ব্যক্তিগত এবং ব্যবসায়িক সাফল্যের জন্য ৫টি নীতিমালা

ব্যক্তিগত এবং ব্যবসায়িক সাফল্যের জন্য ৫টি নীতিমালা

ব্যক্তিগত এবং ব্যবসায়িক সাফল্যের জন্য ৫টি নীতিমালা

একজন ব্যবসায়ী হিসাবে আপনার ব্যক্তিগত সাফল্য আপনার ব্যবসার মাধ্যমেই প্রকাশ পাবে। অর্থাৎ আপনার ব্যবসাটি যদি সফল হয়, ব্যবসার সুনাম যদি চারদিকে ছড়িয়ে পরে, আপনার ব্র্যান্ড যদি গ্রাহক পছন্দ এবং বিশ্বাস করে তবে এটিই হবে আপনার ব্যক্তিগত সাফল্যে। আজকের এই সংক্ষিপ্ত আর্টিকেলে আমি আপনার সাথে ব্যক্তিগত এবং ব্যবসায়িক সাফল্যের জন্য ৫টি নীতিমালা তুলে ধরে ইচ্ছা প্রকাশ করছি।

#১। আপনার ব্যক্তিগত লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্য ঠিক করুন

একজন ব্যবসায়ী হিসাবে আপনি কি করতে চান, আপনি সামনের ৫ বছরের মধ্যে নিজেকে কোথায় দেখতে চান তা ঠিক করতে হবে। আপনার ব্যক্তিগত লক্ষ্যগুলি আপনার ব্যবসায়ের লক্ষ্যগুলির সাথে মিল রাখতে হবে।

যেমন ধরুন আপনি গ্রাহকদের সর্বোচ্চ সেবা দিতে চান, গ্রাহকের সমস্যাকে অন্যদের থেকে সুন্দর করে সমাধান করতে চান এবং এর বিনিময়ে অন্যদের থেকে বেশী টাকা আয় করতে চান। এই ব্যক্তিগত লক্ষ্যকে আপনার ব্যবসায় প্রতিফলিত করতে হবে। লক্ষ্যে পৌঁছাতে চাইলে নিজেকে নিজেই অনুপ্রাণিত করুন – পড়ুন এখানে 

#২। নিজের দুর্বলতা ঠিক করার চেয়ে নিজের শক্তিতে মনোনিবেশ করুন।

একজন ব্যবসায়ির মধ্যে অনেকগুলো গুন থাকতে হয়। তবে এর মানে এই না যে তাকে সকল ব্যবসায়িক যোগ্যতা অর্জন করতেই হবে। আপনি যেখানে নিজেকে দক্ষ মনে করেন সেই কাজগুলো আপনি নিজে করুন এবং যেই কাজে নিজেকে দক্ষ মনে করছেন না তা অন্যকে দিনে করান। এতে আপনার ব্যবসা সুন্দরভাবে চালাতে পারবেন।

#৩। স্বল্পমেয়াদী লক্ষ্য ঠিক করুন।

আমরা জানি একজন ব্যবসায়ী সব সময়ই নিজের ব্যবসা বাড়াতে চায়, নিজের অবস্থা আরোও উন্নত করতে চায়। এটি দোষের কিছু না, বরং এই ইচ্ছাশক্তি ঐ ব্যবসায়িকে আরোও সফল বানাবে।

তবে সব বড় স্বপ্নগুলো কখনই রাতারাতি বাস্তব করা যায়। আপনি যদি সামনের ৫ বছরের মধ্যে সমাজের একজন হতে চান, নিজের ব্যবসাকে দেশের নানা প্রান্তে ছড়িয়ে দিতে চান তবে আপনাকে স্বল্পমেয়াদী লক্ষ ঠিক করতে হবে।

ধরুন আপনি আগামী মাসে কি অর্জন করতে চান, তার পরের মাসে কি অর্জন করতে চান এই সকল স্বল্পমেয়াদী লক্ষ্য আপনাকে ঠিক করতে হবে। স্বল্পমেয়াদী লক্ষ্যগুলোকে বাস্তবরুপ দিতে পারলে বড় স্বপ্নগুলো আস্তে আস্তে আপনার হাতে ধরা দিবে।

আরোও পড়ুন – ব্যবসায়ের লক্ষ্য নির্ধারণ ও পূরণ করতে চাইলে এই ৫টি ভুল এড়িয়ে যেতে হবে

#৪। নিজের সাথে সৎ হতে হবে

আপনি যা বলছেন তা আপনাকে করে দেখাতে হবে। আপনি যেমন তেমনি অন্যের কাছে তুলে ধরতে হবে। কর্মচারীকে অনুপ্রানিত করার আগে নিজেকে অনুপ্রানিত করতে হবে।

#৫। নিজেকে বিশ্বাস করতে হবে এবং প্রতিনিয়ত শিখতে হবে।

একজন ব্যবসায়ী হিসাবে আপনি যেই লক্ষ্য ঠিক করেছেন তার প্রতি আপনার পূর্ণ বিশ্বাস থাকতে হবে। আপনার লক্ষ্য নিয়ে যদি আপনার নিজের সন্দেহ থাকে তবে সেই লক্ষ্য কখনই পূরণ করতে পারবেন না।

প্রতিদিন নতুন কিছু শেখার জন্য নিজেকে উন্মুক্ত রাখতে হবে। সকলের কথা শুনতে হবে কিন্তু সিদ্ধান্ত নিজেকেই নিতে হবে। – কে এম চিশতি সিয়াম – ইউটিউব লিঙ্ক