কিভাবে গোবর থেকে প্রাকৃতিক গ্যাস সিএনজি উৎপাদন ব্যবসা শুরু করবেন?

কিভাবে গোবর থেকে প্রাকৃতিক গ্যাস সিএনজি উৎপাদন ব্যবসা শুরু করবেন?

গোবর থেকে প্রাকৃতিক গ্যাস সিএনজি উৎপাদন ব্যবসা

গোবর থেকে প্রাকৃতিক গ্যাস সিএনজি উৎপাদন ব্যবসা

বর্তমানে প্রাকৃতিক গ্যাস সিএনজি’র চাহিদা ব্যাপক। চাহিদা পূরণ করার লক্ষ্যে প্রাকৃতিক গ্যাসের পাশাপাশি বিভিন্ন উপায়ে উৎপাদিত গ্যাসের প্রয়োজনীয়তা অপরিসীম। গোবর থেকে প্রাকৃতিক গ্যাস সিএনজি উৎপাদন একটি বৃহৎ আকারের ব্যবসা।

 

সম্ভাব্য পুঁজি: এই ব্যবসাটি শুরু করতে হলে ৩৫০০০০০ টাকা থেকে ৫৫০০০০০ টাকা পর্যন্ত পুঁজি বিনিয়োগ করা প্রয়োজন হতে পারে। তবে ক্ষেএ বিশেষে কম বেশী হবে।

 

কেন এই ব্যবসা করবেনঃ আগে গবাদি পশুর গোবর ও মলমূত্রগুলো কৃষি কাজে ও বায়ুগ্যাস উৎপাদন করার কাজে ব্যবহার করা  হত। বর্তমানে পশুর গোবর ও মলমূত্র প্রক্রিয়াজাত করে প্রাকৃতিক গ্যাস সিএনজি উৎপাদিত হচ্ছে। যদি আপনি বায়োগ্যাস দিয়ে সিএনজি উৎপাদান করতে পারেন তাহলে ভুগর্ভস্থ গ্যাসের উপর এর প্রভাব কম পড়বে। দেখা যায় ১০০ টি পশুর গোবর দিয়ে ১৫-২০ কিলোওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করা সম্ভব।

 

এই ব্যবসার বর্তমান বাজার: দিন দিন বিভিন্ন কারণে গ্যাসের চাহিদা বাড়তে থাকায় এই ব্যবসার একটি বিশাল বাজার তৈরী হচ্ছে। দিন দিন চাহিদা আরো বাড়বে।

 

কিভাবে শুরু করবেন: যে কোনো ব্যবসা করতে হলে আপনাকে সরকার থেকে ট্রেড লাইসেন্স  সংগ্রহ করতে হয়। আপনি যদি সিএনজি উৎপাদন ব্যবসাটি শুরু করতে চান তাহলে আপনাকে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিয়ে গোবর থেকে প্রাকৃতিক গ্যাস সিএনজি উৎপাদন ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন। সিএনজি তৈরী করার জন্য বায়োগ্যাস প্লান্ট উৎপন্ন করতে হবে, তারপর ফিল্টার ও কমপ্রেসারের মাধ্যমে  র্কাবন-ডাই-অক্সাইড দিয়ে বায়োগ্যাসকে সিএনজি গ্যাসে রুপান্তর করা হয়ে থাকে।  ৪০% কার্বন ডাই-অক্সাইড ও ৬০% মিথেনের সমন্বয়ে বায়োগ্যাস উৎপন্ন হয়ে থাকে। সিএনজি তৈরীর প্রধান উৎস হল মিথেল, যা না থাকলে সিএনজি তৈরী করা সম্ভব না।

 

বাজারজাত করণ: সিএনজিতে চলে এমন গাড়ির চালকরাই  হবেন এই ব্যবসায়ের প্রধান ভোক্তা ।

যোগ্যতা: গোবর থেকে প্রাকৃতিক গ্যাস সিএনজি উৎপাদন করতে হলে আপনাকে অবশ্যই এর উপর প্রশিক্ষন নিতে হবে এবং অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। তখন দেকা যাবে আপনি সহজেই এই কাজটি করতে পারবেন এবং বিভিন্ন ধরনের সমস্যা সমাধান করতে পারবেন।

সম্ভাব্য লাভ: সাধারণত ২৬০০ কেজি গোবর থেকে ৩২৬ কিউবেক মিটার সিএনজি উৎপাদন করা যায়। আর ৩২৬ কিউবেক মিটার সিএনজির বর্তমান বাজার মূল্য প্রায় ১০০০০ টাকা।