কিভাবে বায়ো গ্যাস প্ল্যান্ট ব্যবসা শুরু করবেন?

বায়ো গ্যাস প্ল্যান্ট ব্যবসা শুরু করবেন

বায়ো গ্যাস প্ল্যান্ট ব্যবসা

বায়ো গ্যাস প্ল্যান্ট ব্যবসা

পচনশীল বিভিন্ন জৈব বস্তু হতে বায়োগ্যাস তৈরী করা হয়। অক্সিজেন নাই এমন কোন স্থানে এই সব বস্তু পচানো হলে বায়োগ্যাস তৈরী হয়। সাধাণত বায়ো গ্যাস রান্নার কাজে ব্যবহার করা হয়। বায়ো গ্যাসের ফলে পরিবেশ দূষন কম হয়। বায়ো গ্যাস ব্যবহারের ফলে প্রাকৃতিক গ্যাসের উপর চাপ অনেক কমে যায়। গরুর গোবর, হাঁস, মুরগির বিষ্ঠার মাধ্যমে বায়োগ্যাস তৈরী করা হয়। সময়ের সাথে সাথে বায়োগ্যাসের  চাহিদা বেড়েই চলেছে।

সম্ভাব্য পুজি: এই ব্যবসাটি শুরু করতে আনুমানিক ২০০০০০ টাকা থেকে ৫০০০০০ টাকা পর্যন্ত পুঁজি বিনিয়োগ করতে হবে।

 

অবস্থান: আপনি ইচ্ছা করলে আপনার বাড়িতে এই ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন। এই ব্যবসাটি শুরু করতে হলে নির্দিষ্ট একটি জায়গার প্রয়োজন। কম জায়গায় এই ব্যবসাটি শুরু করা যায় ।

 

কেন এই ব্যবসাটি শুরু করবেন: বায়ো গ্যাস বিশেষ করে রান্নার কাজে ব্যবহার হয়ে থাকে। প্রাকৃতিক গ্যাসের সংকটের ফলে মানুষ এখন বিকল্প গ্যাস হিসেবে বায়োগ্যাসের উপর নির্ভরশীল হয়ে পড়ছে। এতে এই গ্যাসের ব্যবহার কারীর সংখ্যা বাড়ার সাথে সাথে ্এই ব্যবসা শুরু করার সুযোগও তৈরী হচ্ছে।

প্রয়োজনীয় উপকরণ:  সিমেন্ট, ইট, বালি, গরু হাঁস,ও মুরগির বিষ্ঠা ইত্যাদি।

 

কিভাবে এই ব্যবসাটি শুরু করা যায়: প্রথমে একটি চেম্বার ঢাকনা তৈরি করতে হবে। এই চেম্বারে বায়ো গ্যাস তৈরি করা যায়। যাতে বায়ো গ্যাস চলাকালে যাতে সিগনাল পাওয়া যায় তার জন্য একটি মিটার বসাতে হবে এবং দুটি নল চুলার সাথে যুক্ত করে দিতে হবে।  সিগনাল পাওয়ার পর আপনি চুলা জ্বালাতে পারেন। এই ভাবে আপনি খুব সহজে  এই ব্যবসটি শুরু করতে পারেন।

 

সুবিধা: একটি বায়ো গ্যাস প্লান্ট তৈরী করতে কম জায়গাই যথেষ্ট। আবর্জনা দ্বারা এই গ্যাস তৈরী হয় বলে পরিবেশ দূষিত হওয়ার সম্ভাবনা কম। বায়ো গ্যাস প্লান্টের বর্জ্য পরবর্তীতে জৈব সার হিসেবে জমিতে ব্যবহার করা যায়।

 

বাজারজাত করণ: রান্নার কাজে আমরা বায়ো গ্যাস ব্যবহার করে থাকি। বাজারে এই  ব্যবসায়ের চাহিদা দিন দিন বেড়েই চলেছে। গ্রামাঞ্চলে এই ব্যবসাটির চাহিদা সবচেয় বেশি।

 

যোগ্যতা: এই ব্যবসাটি শুরু করার জন্য আপনাকে প্রশিক্ষণ গ্রহন করতে হবে। অবশ্যই এর উপর অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

 

সম্ভাব্য লাভ: আপনি আপনার নিজের রান্নার কাজে এই বায়ো গ্যাস ব্যবহার করতে পারেন। এই ব্যবসার মাধ্যমে মাসে ৩০০০০ টাকা থেকে ৫০০০০ টাকা পর্যন্ত আয় করা যায়।