এই ৮টি কাজ করতে পারলে ৩০ বছর বয়সে কোটিপতি হতে পারবেন

৩০ বছর বয়সে কোটিপতি হতে চান?

৩০ বছর বয়সে কোটিপতি হতে চান

আমাদের অনেকর মনে এক লালিত স্বপ্নের নাম কোটিপতি হওয়া। আল্লাহ যদি চান এবং এই ৮টি কাজ করতে পারলে ৩০ বছর বয়সে কোটিপতি হতে পারবেন। ২২ বছর বয়স থেকে এই কাজগুলী করতে পারলে আপনি খুব সহজেই কোটিপতি হতে পারবেন। যদি আপনার ২২ বছর বয়স পার হয়ে যায় তবে চিন্তার কোন কারন নেই, আপনি শুধু পরিশ্রম করা বাড়িয়ে দিন। আর কথা না বাড়িয়ে মূল আলোচনায় চলে যাই।

ভিন্ন পথে উপার্জন করুন

আমাদের দেশে উপার্জন করার অনেক রাস্তা থাকলেও বেশী উপার্জন করার রাস্তা খুব কম। যা আছে তা খুব প্রতিযোগীতাপূর্ণ। আপনাকে এমন কিছু খুঁজে বের করতে হবে যেখানে প্রতিযোগীতা এখন কম এবং আয়ও কম কিন্তু ভবিষ্যতে অনেক ভাল করার চান্স বেশী থাকবে।

এ রকম সম্ভাবনাময় ভবিষ্যতের ব্যবসার কিছু উদাহরনঃ ইকমার্স, অনলাইন বিজ্ঞাপন এজেন্সী, অ্যাপ বানানো, চেইন সুপার শপ ইত্যাদি।

আয়ের একাধিক রাস্তা তৈরি করুন

সারা বিশ্বে যারা যত বিলিনিয়র এমন কি মিলিনিয়র আছেন তাদের গড়ে ৫টির বেশী আয়ের পথ আছে। মানে তারা প্রতি মাসে ৫টি ব্যবসার মাধ্যমে আয় করে থাকেন। ঠিক আপনাকেও অধিক আয়েক পথ বানাতে হবে। তবে একটি ব্যবসা যখন খুব ভাল ভাবে দাঁড় করাতে পারবেন তার পরেই অন্য ব্যবসার কথা ভাবুন। কেননা এক সাথে দুইটি ব্যবসা দাঁড় করাতে গেলে দুইটি ব্যবসাই ধ্বংস হয়ে যেতে পারে।

বিনিয়োগের জন্য টাকা জমা করুন

শুধু জমানোর জন্যই টাকা জমাবেন না। কারন অলস টাকা দিয়ে আপনি কিছুই করতে পারবেন না। বিনিয়োগের কথা মাথায় রেখে টাকা জমা করুন। কখনই টাকাকে অলস ভাবে ফেলে রাখবেন না। একটি লক্ষ্য স্থির করে বিনিয়োগ করুন। আরো পড়ুন – ঘুমন্ত টাকা এবং জীবিত টাকার মধ্যে পার্থক্য কোথায়

শেয়ার বাজারে বিনিয়োগ করুন

আমি আপনাকে শেয়ার বাজারে বিনিয়োগ করতে বলছি বিধায় মনে মনে গালি দিচ্ছেন? গালি দেন আর যাই করুন শেয়ার বাজার টাকা বানানোর অন্যতম সেরা মাধ্যম। তবে স্বীকার করতে দ্বিধা নেই যে, শেয়ার বাজার ঝুঁকিপূর্ণ। এই ঝুঁকি এড়াতে আপনাকে দেখে শুনে শেয়ার বাজারে বিনিয়োগ করতে হবে।

আপনার আয়ের শতকরা ১০ ভাগ আপনি শেয়ার বাজারে বিনিয়োগ করুন। যদি আপনি এই মাসে ১ লাখ টাকা আয় করে থাকেন তাহলে শেয়ার বাজারের জন্য ১০ হাজার টাকা বাজেট রাখুন। এবং প্রতি মাসে নতুন করে বিনিয়োগ চালিয়ে যেতে পারলে অনেকটা রিস্ক এড়ানো যায়। শেয়ার বাজার নিয়ে আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ কথা- কখনই একটি কোম্পানির শেয়ারে সব টাকা বিনিয়োগ করবেন না। ওয়ারেন বাফেট এর মতে, “কখনই সব ডিম একটি ঝুড়িতে রাখবেন না”।

জানুন – আইপিও ( IPO )কি? কিভাবে আইপিও’তে শেয়ার পেতে আবেদন করতে হয়

সুশৃঙ্খল সিদ্ধান্ত গ্রহণ করুন

টাকা আয়, বিনিয়োগ এবং ব্যবসা বাড়ানোর ক্ষেএে আপনাকে সুশৃঙ্খল সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে হবে। অতিরিক্ত ভয় এবং অতিরিক্ত লোভ এই দুইটি বিষয় কখনই পাত্তা দিবেন না। কারন ব্যবসায় এই অতিরিক্ত ভয় এবং অতিরিক্ত লোভ আপনাকে বিপদের সম্মুখীন করতে পারে।

কাউকে দেখানোর জন্য কিছু করবেন না

ধরে নিলাম আপনার একটি গাড়ি আছে যা পুরাতন মডেলের। আপনার বন্ধুর বা কাছের মানুষের কাছে একটি দামি গাড়ি আছে, এখন আপনি তাকে দেখানোর জন্য অনেক টাকা ব্যয় করে একটি দামি গাড়ি কিনে ফেললেন। যা হয়ত ওই সময়ে আপনার না করলেও হতো। তাই কাউকে দেখানোর জন্য কখনই কিছু কিনে শো অফ করবেন না।

নিজেকে বিনিয়োগ করুন

প্রতিনিয়ত নতুন দক্ষতা বাড়ানোর জন্য নিজেকে বিনিয়োগ করুন। নতুন অভিজ্ঞতা এবং দক্ষতা কিভাবে বাড়াতে পারেন সেই দিকগুলো খুঁজে বের করুন। আপনার শক্তি এবং দুর্বলতা (strength and weakness) কোথায় তা বের করুন এবং নিজেকে আরো উন্নত করুন।

লক্ষ্য নির্ধারণ করুন এবং সেগুলি অর্জনের জন্য কাজ করে যান

নিজেকে সময় বেধে দিন! এক একটি কাজের জন্য লক্ষ্য নির্ধারণ করুন। লক্ষ্য পূরণ না হওয়া পর্যন্ত কাজ চালিয়ে যান। নিজেকে নিজের বস বানিয়ে নিন। বসের কথা মত কাজ করতে থাকুন। সফলতা আসবেন!

বোনাস টিপস- অসৎ সঙ্গ ছেড়ে দিন

অসৎ মানুষের সাথে চললে অসৎ বুদ্ধি ছাড়া আপনি আর কিছুই পাবেন না। তারা আপনার ও সফলতার শত্রু। এমন মানুষের সাথে চলুন যাদের কাছ থেকে আপনার উপকার না হোক কিন্তু কোন ক্ষতি যেন না হয়।