সিদ্ধান্ত নেওয়া একটি দক্ষতা

সিদ্ধান্ত নেওয়া একটি দক্ষতা

সিদ্ধান্ত নেওয়া একটি দক্ষতা

সিদ্ধান্ত নেওয়া একটি দক্ষতা

সফল ব্যক্তিদের মধ্যে থাকা অন্যতম একটি দক্ষতার নাম সিদ্ধান্ত গ্রহন দক্ষতা। সিদ্ধান্ত ভাল হলে তার ফলাফলও ভালো হয় এবং সিদ্ধান্ত খারাপ হলে তার ফলাফলও খারাপ হয়। আমাদের ব্যক্তিগত জীবন এবং কর্ম জীবনে এই দুই ক্ষেএেই প্রতিনিয়ত নানা ধরনের সিদ্ধান্ত নিতে হয়।

সিদ্ধান্ত গ্রহন কি?

খুব সহজ বলা যায়, সিদ্ধান্ত গ্রহণ হচ্ছে দুই বা তার বেশি অপশনের মধ্যে থেকে নিজের জন্য উপযোগী বিষয়কে গ্রহন করা। আমাদের ছাএ জীবন থেকে শুরু করে মৃত্যুর আগ মুহূর্ত পর্যন্ত ছোট বড় নানা ধরনের সিদ্ধান্ত নিতে হয়।

 

যেমন, ছাএ জীবনে অষ্টম শ্রেনী পাশ করার পর একটি বড় সিদ্ধান্ত নিতে হয়। Science, Arts ও Commerce এর মধ্যে থেকে আমাদের যে কোন একটি গ্রুপ বেছে নিতে হয়।

তেমনি আবার অসুস্থ হলে কোন হাসপাতালে যাব, কোন ডাক্তার দেখাব তারও একটি সিদ্ধান্ত নিতে হয়।

মূল কথা আমাদের প্রতিদিনের জীবনে সিদ্ধান্ত গ্রহন করতেই হয়। সিদ্ধান্ত নেওয়া একটি দক্ষতা এবং সফল হতে চাইলে আপনাকে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতেই হবে।

সিদ্ধান্ত নেওয়ার ৩টি ধাপ

সিদ্ধান্ত নেওয়ার ৩টি ধাপ আছে, যা খুবই সহজ এবং কার্যকারী। প্রথম ধাপ তথ্য সংগ্রহ করা, ২য় ধাপ যাচাই বাচাই করা এবং ৩য় ধাপ বিভিন্ন দিক থেকে চিন্তা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া। পড়ুন – সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়া উন্নত করতে ৫ পদক্ষেপ

 

কিভাবে সিদ্ধান্ত নিবেন?

সিদ্ধান্ত নানা ধরনের হতে পারে। সাধারন ছোট, বড়, মাঝারি, গুরুত্বপূর্ণ, কম গুরুত্বপূর্ণ, জীবন মরন পশ্ন, এই রকমের নানা ধরনের সিদ্ধান্ত আপনাকে নিতে হতে পারে। কিছু বিষয় মাথায় রাখলে দ্রুত ভাল সিদ্ধান্তটি বেছে নেওয়া যায়। আসুন এই বিষয়ে কিছু জেনে নেই।

লাভ ক্ষতির হিসাব

যেকোন সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে সম্ভাব্য লাভ ক্ষতির একটি হিসাবে করে নিন। অনেকই বলে থাকে সব সময় লাভ ক্ষতির হিসাব করতে হয় না, তবে আমি মনে করি সফল হতে হলে আমাদের লাভ ক্ষতির হিসাবটা খুব বেশী দরকার।

কারন সিদ্ধান্ত নেওয়ার পরে আপনার উপর কোন না কোন প্রভাব পরবে, তাই এই প্রভাব আপনি কত টুকু নিতে পারবেন তা জানার জন্যই আপনার  লাভ ক্ষতির হিসাব করে নেওয়াই উত্তম।

 

পছন্দ কমিয়ে আনুন

ভালো সিদ্ধান্ত নিতে চাইলে আপনার জন্য থাকা অপশনগুলো কমিয়ে আনতে হবে। ধরুন, আপনি ব্যবসা করতে চান এবং অনেকগুলো বিজনেস আইডিয়া মাথায় ঘুরপাক খাচ্ছে। আপনি ততক্ষন পর্যন্ত বিজনেস আইডিয়া ঠিক করতে পারবেন না যতক্ষন পর্যন্ত অপশন কমিয়ে আনবেন।

 

নিজেকে সময়সীমা দিয়ে দিন

সিদ্ধান্তের গুরুত্ব বুজে আপনাকে একটি সময়সীমা বেঁধে দিতে হবে। অতিরিক্ত টেনশন না করে লক্ষকে গুরুত্ব দিয়ে সময়ের মধ্যে সিদ্ধান্ত নিতে পারলে কম সময়ে কার্যকারী সিদ্ধান্ত নেওয়া যায়। কে এম চিশতি সিয়াম – ইউটিউব লিঙ্ক