সাইড ব্যবসা বা পার্ট টাইম ব্যবসা করতে যেসব চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হতে হয়

সাইড ব্যবসা বা পার্ট টাইম ব্যবসা করতে যেসব চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হতে হয়

সাইড ব্যবসা বা পার্ট টাইম ব্যবসা

সাইড ব্যবসা বা পার্ট টাইম ব্যবসা

আপনার আয় বাড়াতে সাইড ব্যবসা বা পার্ট টাইম ব্যবসা দুর্দান্ত উপায় হতে পারে। আর আপনার সাইড ব্যবসাটিটি যদি আপনার প্রধান কর্মের সাথে সম্পৃক্ত হয় তাহলে এটি আপনাকে অনেক বাড়তি সুবিধা প্রদান করতে পারে। পার্ট টাইম ব্যবসা করে যেমন অতিরিক্ত আয় করতে পারবেন ঠিক তেমনি এটি আপনার জীবনে অতিরিক্ত দায়িত্ব অর্পণ করবে। ফলে আপনার উদ্বেগ তৈরি হবে। তাই এই ব্যবসাটি শুরু করার পূর্বে আপনাকে এই ব্যবসার চ্যালেঞ্জ গুলো বিবেচনা করতে হবে।

কেন সাইড ব্যবসা বা পার্ট টাইম ব্যবসা শুরু করবেন

পার্ট টাইম ব্যবসা শুরু করার নানাবিধ কারন থাকতে পারে। ধরুন আপনি একজন ছাএ তাই আপনি চাচ্ছেন ছাএ অবস্থায় টাকা জমাবেন বা অল্প বয়সেই ব্যবসা শিখবেন। আবার হতে পারে আপনি ১০টা টু ৪টা অফিস করেন এবং আপনার হাতে তার পরে অনেক সময় অবসর থাকে তাই আপনি একটি বাড়তি আয়ের পথ খুঁজছেন।

আবার হতে পারে আপনার আয়ের সাথে ব্যয় মিলছে না, তাই বেশী আয় করতে চাচ্ছেন। কারন যাই হোক না কেন, সঠিক সাইড ব্যবসা বা পার্ট টাইম ব্যবসার আইডিয়া না পেলে আপনি সম্যাসায় পড়তে পারেন। তাই জেনে বুজে বিজনেস আইডিয়া পছন্দ করতে হবে। নিচে এই ব্যবসার চ্যালেঞ্জ গুলো সম্পর্কে আলোচনা করা হলো।

এটি আপনার স্বাধীনতা গ্রাস করতে পারে

একটি সাইড ব্যবসা বা পার্ট টাইম নানা ভাবে আপনার জীবনকে প্রভাবিত করতে পারে। এই ব্যবসায় আপনার অতিরিক্ত সময় গুলো ব্যয় করার ফলে আপনার স্বাধীনতা সীমাবদ্ধ হতে পারে। তাছাড়া অতিরিক্ত দায়িত্ব ও পর্যাপ্ত সময়ের অভাবে ক্লান্তি আপনাকে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত করে তুলতে পারে। এটি প্রধান আয়ের উৎস হতে আপনার মনোযোগ কেড়ে নিতে পারে। ব্যবসাটি শুরু করার পর চাইলেই আপনি হঠাৎ করে বন্ধ করে দিতে পারবেন না।

আপনি হতাশ হতে পারেন

সাইড ব্যবসা বা পার্ট টাইম ব্যবসা উদ্যোক্তাদেরকে নতুন কর্মজীবন হিসেবে শুরু করার শতভাগ নিশ্চয়তা দেয় না। তবে এই ব্যবসাটি শুরু করলে আপনি নতুন কিছু শিখতে পারবেন। তাছাড়া এই ব্যবসা থেকে অর্জিত দক্ষতা গুলো আপনার প্রধান কর্মক্ষেত্রেও প্রয়োগ করতে পারবেন।

এই ব্যবসাটি দ্রুত বর্ধনশীল ব্যবসা নয় তাই ধীর গতির কারণে আপনি হতাশ হয়ে পরতে পারেন। আর এই হতাশা আপনার প্রধান কর্মক্ষেত্রকে প্রভাবিত করতে পারে। আপনি যদি এই ব্যবসাটির ব্যাপারে দৃঢ় সংকল্পবদ্ধ হয়ে থাকেন তবে আপনাকে ধৈর্য্য ধারণ করতে হবে।

টাকা আয়ের জন্য সংগ্রাম করতে হতে পারে

যে কোন ব্যবসা শুরু করলেই প্রচুর কাজ করতে হয়। তবে যেহেতু এটি আপনার দ্বিতীয় কর্মক্ষেত্র সেহেতু আপনার জন্য সময় মত কাজ করা কঠিন হয়ে যাবে। তাছাড়া নেটওয়ার্কিং ও বিপণনের মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয় গুলোর জন্য আপনি প্রচুর সময় ব্যয় করতে পারবেন না। ফলে আশানুরূপ ফল পেতে আপনাকে সংগ্রাম করতে হবে।

আপনাকে বাজার, গ্রাহকরা কি চায়, কীভাবে গ্রাহকদেরকে আপনার প্রতি বিশ্বাসী করে তুলবেন, অর্থের বিনিময়ে গ্রাহকরা কি পাবে এই বিষয়ে জানতে হবে এবং জানাতে হবে। কিন্তু পর্যাপ্ত সময়ের অভাবে আপনি সঠিক ভাবে এই কাজ গুলো করতে পারবেন না। ফলে আপনার ব্যবসাটি কাঙ্খিত লক্ষ্য অর্জন করতে পারবে না। তাই ব্যবসা শুরু করার আগে এই সব দিক বিবেচনা করে তার সমাধানও খুঁজে নিতে হবে।

কাজের চাপে ঘুম নাও হতে পারে

আপনি যদি একটি সাইড ব্যবসা বা পার্ট টাইম ব্যবসা শুরু করেন তবে আপনাকে অনেক কিছুই উৎসর্গ করতে হবে। আপনাকে লাঞ্চের অতিরিক্ত সময়টি ব্যবসার প্রকল্পের কাজে ব্যয় করতে হতে পারে। অথবা ই-মেইল ও ফোন কলের উত্তর গুলো দিতে ভোর বেলা ঘুম হতে উঠে যেতে হতে পারে।

তাছাড়া আপনার প্রধান কর্মক্ষেত্রটি যদি ৯ টা থেকে ৫ টা হয়ে থাকে তাহলে কর্মক্ষেত্রের বাইরে অতিরিক্ত সময়ে অর্থাৎ ৯ টার পূর্বে বা ৫ টার পরে অতিরিক্ত সময় গুলো ব্যবসার কাজে ব্যয় করতে হবে। কর্মক্ষেত্রের বাইরে এই সব অতিরিক্ত সময়ে কাজ করতে হবে বিধায় আপনার ঘুমের সময় অল্প হয়ে যেতে পারে।

সবশেষে বলা যায় যে, যে কোন সাইড ব্যবসা বা পার্ট টাইম ব্যবসা করতে এই চ্যালেঞ্জ গুলোর মুখোমুখি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তাই পার্শ্ব ব্যবসা শুরুর পূর্বে আপনি চ্যালেঞ্জ গুলো সামলাতে পারবেন কিনা তা নিশ্চিত হতে হবে।