সব ডিম এক ঝুড়িতে রাখবেন না

সব ডিম এক ঝুড়িতে রাখবেন না

সব ডিম এক ঝুড়িতে রাখবেন না

সব ডিম এক ঝুড়িতে রাখবেন না

সব ডিম এক ঝুড়িতে রাখবেন না এই কথাটি সাধারনত বিনিয়োগের বেলায় বেশী প্রচলিত হলেও সব ক্ষেএে এই কথা মেনে চলা উচিত। সাধারনত শেয়ার বাজারে যারা বিনিয়োগ করে তারা এই কথা জানে, যদিও অনেকই মানে না।

 

শেয়ার বাজারের ক্ষেএে বিষয়টা এ রকম যে, কখনই সব টাকা দিয়ে এক কোম্পানি ও একই ক্যাটাগরির শেয়ার কিনবেন না। কেননা যদি ঐ কোম্পানি কোন কারনে বাজারে ভাল না করতে পারে তবে আপনার ভরাভুবি হতে পারে।

 

ঠিক তেমনি সফল হতে হলে একটি আয়ের উপর নির্ভর করবেন না। কোন কারনে যদি ঐ আয় বন্ধ হয়ে যায় তবে আপনি আর্থিক ভাবে পঙ্গু হয়ে যাবেন। আজকের এই বিশ্বে যারা সম্পদশালী তারা কখনই একটি আয়ের উপর নির্ভর করে না।

 

বাইরের দেশে যেতে হবে না, আমাদের বাংলাদেশের কথা যদি ভাবুন তবে দেখবেন টপ টেন কোম্পানিগুলোর গড়ে ১৫টির বেশী আয়ের উৎস আছে। পড়ুন – বাংলাদেশের সেরা কোম্পানি লিস্ট 

 

প্রাথমিক অবস্থায় আপনি চাইলেই অনেকগুলো আয়ের পথ বানাতে পারবেন না, তবে সঠিক পরিকল্পনা থাকলে ধাপে ধাপে আয়ের পথ বাড়াতে পারবেন। আপনি যদি চাকরি করেন তবে বাড়তি আয়ের জন্য সাইড ব্যবসা শুরু করতে পারেন, লাভের টাকা দিয়ে বিনিয়োগ করা যেতে পারে।

 

বিনিয়োগে লাভ করে সেই টাকা দিয়ে ফুল টাইম ব্যবসা করা যেতে পারে। আপনি যদি ব্যবসা করেন তবে যেই ব্যবসা করছেন তার বিপরীতে অন্য সেক্টরে নতুন ব্যবসা করতে পারেন। তবে মনে রাখতে হবে আগের ব্যবসা যেন ক্ষতিগ্রস্থ না হয়।

 

এছাড়া আয়ের এমন কিছু পথ বানানো উচিত যার মাধ্যমে প্যাসিভ ইনকাম হবে। যেমন, রিয়েল এস্টেট, ভাল ফান্ডের মিউচুয়াল ফান্ড, ব্লগিং, এফিলিয়েট মার্কেটিং, ব্যবসায় বিনিয়োগ ইত্যাদি। প্যাসিভ ইনকামের সব থেকে ভালগুন হচ্ছে একবার শ্রম ও টাকা বিনিয়োগ করলে এর রিটান বার বার আসতে থাকে। 

 

এর পর আসি ব্যাংক অ্যাকাউন্টে!

আপনি যদি কোন কারনে একটি মাএ ব্যাংক অ্যাকাউন্ট চালান এবং আপনার সমস্ত বিনিয়োগ ঐ একটি অ্যাকাউন্টে জমা করেন তবে আমি বলছি আপনি ভুল করছেন। কেননা যদি কোন কারনে ঐ ব্যাংক দেউলিয়া হয়ে যায় তবে আপনিও দেউলিয়া হয়ে যেতে পারেন। যদিও ব্যাংক খুব কমই দেউলিয়া হয়, তবুও সাবধান হতে হবে। কে এম চিশতি সিয়াম // ইউটিউব লিঙ্ক