সফল হওয়ার ৫০টি উপায়

সফল হওয়ার ৫০টি উপায়

সফল হওয়ার ৫০টি উপায়

সফল হওয়ার ৫০টি উপায়

আপনি সৃষ্টির সেরা জীব মানুষ হয়ে জন্ম নিয়ে কেন করুনার পাএ হয়ে থাকবেন? আপনি কি সফলতা অর্জন করতে চান না? বিশ্বাস করুন, এই দুনিয়ায় আজকে যারা সফল, সুপ্রতিষ্ঠিত এবং সম্পদশালী তারাও একদিন আপনার আমার মত ছিল।

 

যদি আপনার ইচ্ছা থাকে তাহলে আপনিও হতে পারেন জ্ঞানী,গুণী, ধনী, আলোচিত উজ্জ্বল নক্ষত্র। আপনার ইচ্ছাশক্তি আপনাকে করবে বিখ্যাত, জননন্দিত, ও বিশ্ববরেণ্য। আপনিও হতে পারেন আলোকিত মানুষদের একজন।

সাফল্য কাকে বলে?

পূর্ব নির্ধারিত লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য অর্জকেই সাফল্য বলা হয়। সাফল্যের অনেকগুলো সংজ্ঞা থাকতে পারে। তবে সাফল্য পরিমাপ করার বহুল ব্যবহৃত কিছু মাধ্যম আছে।

এর মধ্যে কিছু উল্লেখযোগ্য মাধ্যম হচ্ছে – জ্ঞান, মানসিক শান্তি, ধন-সম্পদ, সামাজিক অবস্থা, এবং মানুষের ভালবাসা। এইগুলো যদি আপনার মধ্যে থাকে তবে, আপনি নিজেকে সফল বলতে পারেন। 

সাফল্য এমন কিছু বিষয় যা রাতারাতি অর্জন করা যায় না। 

এর জন্য কঠোর পরিশ্রম, অধ্যবসায়, সংকল্প এবং প্রচন্ড ইচ্ছাশক্তি প্রয়োজন। কোন কাজে সাময়িক ব্যর্থ মানে এই যে আপনি হতাশ হবেন, আপনি সৃষ্টির সেরা জীব, আপনাকে হতাশ হওয়া মানাবে না। আপনার ভিতরে থাকা সুপ্ত প্রতিভাকে জাগাতে হবে।

 

আপনাকে যে “সফল হওয়ার ৫০টি উপায়” মেনে চলতেই হবে তা কিন্তু নয়, তবে উপায় যত বেশী জানা থাকবে সাফল্য অর্জন করা ততই সহজ হবে। আমি বিশ্বাস করি, “সফল হওয়ার ৫০টি উপায়” উপায় আপনাকে অনুপ্রাণিত করবে।  

 

১। বড় স্বপ্ন দেখতে ভয় পাবেন না

বড় স্বপ্ন দেখতে ভয় পাবেন না

জীবনে সাফল্য পেতে আপনাকে বড় স্বপ্ন সাহায্য করবে। নিজেকে স্বপ্ন দেখার অনুমতি দিতে হবে। নিজের ক্যারিয়ারের সমস্ত লক্ষ্য এবং আপনি কী ধরনের জীবনযাপন করতে চান সে সম্পর্কে সুস্পষ্ট ধারনা নিতে হবে। 

 

২। সুখী হওয়ার মানসিকতা আপনাকে সুখ দিবে

সুখী হওয়ার মানসিকতা আপনাকে সুখ দিবে

আপনি যদি নিজেকে সুখী মনে করতে পারেন, তবেই আপনি সুখী। বিষয়টা অনেক হাল্কা মনে হলেও এটাই সত্য। আপনি যদি নিজেকে সুখী মনে না করেন তবে গোটা দুনিয়া আপনার কাছে নিয়ে আসলেও সুখী হতে পারবেন না। পড়ুনঃ সুখী হওয়ার মানসিকতা কিভাবে আপনাকে সুখ দিবে

৩। আত্নবিশ্বাসী হতে হবে

আত্নবিশ্বাসী হতে হবে

আত্মবিশ্বাস হলো দক্ষতা ও সামর্থ্য সম্পর্কে একটি মনোভাব। এর অর্থ আপনি নিজেকে স্বীকার করার মাধ্যমে নিজের কাজকে বিশ্বাস করেন। আত্নবিশ্বাসী মানে নিজের শক্তি এবং দুর্বলতা ভালভাবে জানা এবং নিজের সম্পর্কে ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি রাখা। পড়ুন – কিভাবে আত্নবিশ্বাস সফল হতে আপনাকে সাহায্য করবে

 

৪। প্রিয় কমফোর্ট জোনকে বলুন বাই বাই

প্রিয় কমফোর্ট জোনকে বলুন বাই বাই

যারা অলস ও যারা তাদের জীবেন লক্ষ্য নির্ধারণ করতে পারে না তাদের কাছে এই জায়গা এতটাই মজা, যা তারা কখনই ছাড়তে চায় না। কিন্তু যারা জীবনে জ্ঞানী,গুণী, ধনী, আলোচিত উজ্জ্বল নক্ষত্র হতে চায় তারা কখনই কমফোর্ট জোনে থাকতে চায় না।

বিস্তারিত পড়ুন – কেন কমফোর্ট জোনকে বাই-বাই বলবেন 

 

৫। টাকা সম্পর্কে ইতিবাচক চিন্তা করুন

টাকা সম্পর্কে ইতিবাচক চিন্তা করুন

আপনি প্রায় শুনে থাকবেন টাকা দিয়ে সুখ কেনা যায় না। আমিও এই কথার সাথে একমত, কেননা সুখ কোন পণ্য বা সেবা না যা আমি চাইলেই কিনতে পারব। সুখ সম্পূর্ণই নিজের উপর। টাকা দিয়ে সুখ কেনা না গেলেও, কিছু জিনিষ কেনা যায়, যা পরবর্তীতে সুখের কারন হতে পারে। আরোও পড়ুন – কেন টাকা সম্পর্কে ইতিবাচক করবেন! 

 

৬। আয়ের একাধিক রাস্তা বানাতেই হবে

আয়ের একাধিক রাস্তা বানাতেই হবে

সফলতার জন্য আয়ের একাধিক রাস্তা বানাতে হবে 

এই প্রতিযোগিতাপূর্ণ অর্থনীতিতে আপনি কখনই একটি আয়ের পথ দিয়ে সফলতার স্বর্ণশিখরে যেতে পারবেন না। আয়ের একাধিক রাস্তা কেন বানাবেন পড়ুন এখানে 

 

৭। বিনিয়োগের বিকল্প নেই

বিনিয়োগের বিকল্প নেই

আমাদের আধুনিক বিশ্বে অর্থ উপার্জনের দুটি উপায় রয়েছে। প্রথম উপায় নিজের জন্য কাজ করে অর্থ উপার্জন করা বা অন্যের হয়ে কাজ করে অর্থ উপার্জন করা। অর্থ উপার্জনের দ্বিতীয় উপায় হচ্ছে বিনিয়োগ করা। এখানে পড়ুন – কেন বিনিয়োগের বিকল্প নেই 

 

৮। প্রতিযোগীদের শত্রু ভাববেন না

প্রতিযোগীদের শত্রু ভাববেন না

সফল হওয়ার ৫০টি উপায় – প্রতিযোগীদের শত্রু ভাববেন না

সফলতার রাস্তায় যে যার মত সামনে এগিয়ে যাবে। প্রতিযোগীদের কাছ থেকে আমাদের অনেক কিছু শেখার আছে, এমন কি নিজেকেও জানা যায়। জীবনে সাফল্য পেতে তাদেরকে নিয়ে অবশ্যই গবেষণা করতে হবে তবে শত্রু ভাবা যাবে না। জেনে নিন- কেন প্রতিযোগীদের শত্রু ভাববেন না

 

৯। সিদ্ধান্ত নেওয়া একটি দক্ষতা

সিদ্ধান্ত নেওয়া একটি দক্ষতা

সিদ্ধান্ত ভাল হলে তার ফলাফলও ভালো হয় এবং সিদ্ধান্ত খারাপ হলে তার ফলাফলও খারাপ হয়। আমাদের ব্যক্তিগত জীবন এবং কর্ম জীবনে এই দুই ক্ষেএেই প্রতিনিয়ত নানা ধরনের সিদ্ধান্ত নিতে হয়। ডিটেলইস পড়ুন – সিদ্ধান্ত গ্রহন কি? সিদ্ধান্ত নেওয়ার ধাপ, এবং যেভাবে সিদ্ধান্ত নিবেন 

 

১০। যে কোন কাজে স্মার্ট হতে হবে

যে কোন কাজে স্মার্ট হতে হবে

কঠোর পরিশ্রম আর স্মার্ট পরিশ্রম কখনই এক বিষয় না। আসুন জেনে নিই কিভাবে স্মার্ট উপায় অনুসরন করে কাজে সফলতা লাভ করা যায়। 

 

১১। দুর্বলতা উন্নত করার চেষ্টা করা থেকে শক্তি বাড়ানো ভাল

দুর্বলতা উন্নত করার চেষ্টা করা থেকে শক্তি বাড়ানো ভাল

একজন মানুষ কখনই সব রকমের দক্ষতা তার নিজের মধ্যে ফুটিয়ে তুলতে পারে না এবং কখনই সব বিষয়ে দক্ষ হওয়ার চেষ্টাও করা উচিত না। আপনাকে সব কিছুতে ভাল হতে হবে বিষয়টা কিন্তু এ রকম না, সফল হওয়ার জন্য যতটুকু দরকার ঠিক ততটুকু হলেই চলবে। পড়ুন – কেন দুর্বলতা উন্নত করার চেয়ে শক্তি বাড়ানো ভাল

 

১২। টাইম ম্যানেজমেন্ট শিখতেই হবে

টাইম ম্যানেজমেন্ট শিখতেই হবে

“সময় এবং স্রোত কারো জন্য অপেক্ষা করে না।” এই সদা সত্য বাক্য আমরা সবাই জানি এবং কিছু মানুষ মানে তবে আমরা অনেকেই মানি না। যারা সত্যিকার অর্থে মানে তারাই সফল হওয়ার পথে একধাপ এগিয়ে থাকে। আপনি যদি আপনার জীবনে সাফল্য আনতে চান তবে টাইম ম্যানেজমেন্ট শিখতেই হবে। আরোও বিস্তারিত পড়ুন – কেন টাইম ম্যানেজমেন্ট শিখবেন 

 

১৩। সাহসী হতে হবে

ভয়ের অভাবকেই সাহস বলে। যার মধ্যে যত ভয় কম সে তত বেশী সাহসী। ভয় আপনার সম্ভাবনাকে হত্যা করে, আর সাহস আপনার ধারনাকে বাস্তব করে। জীবনের প্রতিটি ক্ষেএে সাফল্য পেতে চাইলে আপনাকে অবশ্যই সাহসী হতে হবে।

 

১৪। শতভাগ নিখুঁত দিন নেই

শতভাগ নিখুঁত দিন নেই

যে কোন কাজ শুরু করার জন্য একদম শতভাগ নিখুঁত দিন নেই, এর মানে এই না যে আপনি কোন কিছু বাদ বিচার না করে ঝাঁপিয়ে পরবেন। আপনার প্রাথমিক প্রস্তুতি সেরেই আপনাকে কাজে মন দিতে হবে।

 

১৫। ব্যর্থ হওয়া দোষের কিছু না

ব্যর্থ হওয়া দোষের কিছু না

আমাদের মধ্যে যদি কেউ কোন কাজে ব্যর্থ হই তবে আমরা অনেকেই হতাশ হয়ে পড়ি। তবে যারা জীবনে সফলতা অর্জন করতে চায় তারা এই ব্যর্থতাকে সফলতার একটি সিড়ি মনে করে। পড়ুন – কেন ব্যর্থ হওয়া দোষের কিছু না

 

১৬। ব্যক্তিত্ববান হয়ে উঠুন

ব্যক্তিত্ববান হয়ে উঠুন

ব্যক্তিত্ব হচ্ছে নিজস্ব গুণাবলীর প্রকৃত প্রতিফলন ঘটানো। আমাদের নিজেদের মধ্যে থাকা যে সব গুন আছে তা খুঁজে বের করে বাস্তব প্রতিফলন ঘটানোকে ব্যক্তিত্ব বলতে পারি। ভালো দিকগুলোকে ব্যক্তিত্ববান এবং খারাপ দিকগুলোকে ব্যক্তিত্বহীন বলা যেতে পারে। জেনে রাখুন – জীবনে সাফল্য পেতে চাইলে ব্যক্তিত্ববান হতে হবে 

 

১৭। তর্কে যাবেন না

তর্কে যাবেন না

তর্কে জিতা বা হারার সাথে সাফল্যের কোন মিল নেই। বরং তর্কে জিতার একমাএ উপায় তর্কে না জড়ানো। তর্ক করা বোকা লোকদের কাজ! যারা জীবনে সফল হতে চায় তারা কখনই নিজেকে তর্কে জড়াবে চাইবে না। পড়ুনঃ কেন কারো সাথে তর্কে জড়াবেন না

 

১৮। কম কথা বলুন এবং বেশী শুনুন

কম কথা বলার চেষ্টা করুন এবং বেশী শুনুন

অযথা কথায় কাজের কিছুই হয় বরং বেশী কথায় সমস্যা তৈরি হয়, অন্যের সমালোচনা করা হয় এবং মিথ্যা কথা বেশী বলতে হয়। পড়ুনঃ কেন কম কথা বলবেন 

 

১৯। অন্যের ভুল থেকে নিজে শিক্ষা নিন

অন্যের ভুল থেকে নিজে শিক্ষা নিন

আমরা সাধারনত সফল মানুষদের সফলতা নিয়ে বেশী গবেষণা করি। কিভাবে তারা সফল হয়েছে, সফলতার মূল মন্ত্র কি, তাদের সফলতা কিভাবে শুরু হয়েছিল, ইত্যাদি জানতে চাই। আজ থেকে আসুন অন্যের ভুল থেকেও আমরা শিক্ষা গ্রহন করি। এখানে বিস্তারিত পড়ুনঃ অন্যের ভুল থেকে নিজে শিক্ষা নিন

 

২০। বাস্তবতা মেনে নিন

বাস্তবতা মেনে নিন

সফল হওয়ার ৫০টি উপায় – বাস্তবতা মেনে নিন

সকল বাধাই অস্থায়ী! কোন মানুষ যেমন এই বিশ্বে স্থায়ী ভাবে বাস করতে পারে না, ঠিক তেমনি ঐ মানুষের কোন সমস্যা স্থায়ী হয় না। যখন যে অবস্থায় থাকেন না কেন, বাস্তবতা মেনে নিন।

 

২১। নেগেটিভ মানুষের সাথে চলবেন না

নেগেটিভ মানুষের সাথে চলবেন না

নেতিবাচক বা নেগেটিভ চিন্তার অধিকারীরা যে কোন মানুষ যে কোন কাজে হতাশ, অসমত, এবং সন্দেহ প্রেষণ করে। এটি একটি হতাশাবাদী মনোভাব যা সর্বদা খারাপ কিছু ঘটার আশঙ্কা করে।

জেনে নিন – কেন নেগেটিভ মানুষদের এড়িয়ে চলবেন

২২। আবেগ নিয়ন্ত্রণ করতে শিখুন

আবেগ নিয়ন্ত্রণ করতে শিখুন

আবেগ ছাড়া যেমন জীবন চলতে পারে না, ঠিক তেমনি আবেগ দিয়েও জীবন চলে না। আবেগ ততক্ষন পর্যন্ত ভালো যতক্ষন পর্যন্ত তা নিজের নিয়ন্ত্রনে থাকে। নিয়ন্ত্রনহীন অবস্থায় আবগী হয়ে যে কোন সিদ্ধান্ত গ্রহন করা খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। পড়ুনঃ কিভাবে আবেগ নিয়ন্ত্রনে রাখবেন 

 

২৩। ইচ্ছাশক্তি ও পরিশ্রম সাফল্যের চাবিকাঠি

ইচ্ছাশক্তি ও পরিশ্রম সাফল্যের চাবিকাঠি

জীবনে বড় হওয়ার জন্য মেধার চেয়ে পরিশ্রমই এগিয়ে। যে কারো অনেক মেধা থাকতেই পারে তবে পরিশ্রম না করলে সেই মেধার কোন দামই নেই। অন্যদিকে কম মেধাবী হয়েও কঠোর পরিশ্রম করে সাফলতা হাতের মুঠোয় আনা যায়। আরোও জানুন – কেন যে কোনো কাজে সফলতার প্রথম শর্ত হলো প্রচন্ড ইচ্ছাশক্তি ও কঠোর পরিশ্রম।

 

২৪। কোন কাজকে ছোট ভাববেন না

কোন কাজকে ছোট ভাববেন না

হয়ত আজকে আপনি ছোট একটি চাকরি করছেন বা কোন রকম একটি ব্যবসা পরিচালনা করছেন। এই অবস্থায় যা করছেন তার প্রতি যদি আবেগ এবং বড় হওয়ার ইচ্ছাশক্তি না থাকে তবে সাফল্য আপনার দরজায় টোকা দিবে না। পড়ুনঃ কোন কাজকে ছোট ভাববেন না

 

২৫। প্রতিদিন নতুন কিছু শিখুন

প্রতিদিন নতুন কিছু শিখুন

যদি সফল হতে চান অর্থাৎ জ্ঞান অর্জন করতে চান, ধন সম্পদের অধিকারি হতে চান, সামাজিক অবস্থার পরিবর্তন করতে চান তবে প্রতিদিন নতুন কিছু শেখার মানসিকতা থাকতে হবে। 

 

২৬। কাউকে দেখানোর জন্য কিছু করবেন না

কাউকে দেখানোর জন্য কিছু করবেন না

কাউকে দেখানোর জন্য কোন কিছু কেনা বা করা আপনাকে কোন দিন সফল করতে পারবে না। কোন ব্যক্তি জীবনে সফল হলে তার ছেঁড়া লুঙ্গিটাও জাদুঘরে ঠাই পায়, কিন্তু জীবনে ব্যর্থ হলে আজকের সুট প্যান্টেরও কোন দাম নেই।

বিস্তারিত পড়ে নিন- সকলকে সন্তুষ্ট ও মুগ্ধ করার চেষ্টা করা নিরর্থক এবং ফলহীন

 

২৭। যতটুকু চিন্তা করতে পারবেন ততটুকুই অর্জন করতে পারবেন

যতটুকু চিন্তা করতে পারবেন ততটুকুই অর্জন করতে পারবেন

আপনি যদি জীবনে সফল হতে চান তবে আপনাকে বড় স্বপ্ন দেখতেই হবে। ছোট স্বপ্ন নিয়ে কেউ কোন দিন সফল হতে পারে নাই। আপনাকে মনে রাখতে হবে, যতটুকু চিন্তা করতে পারবেন ততটুকুই অর্জন করতে পারবেন।

 

২৮। রোম একদিনে তৈরি হয়নি, আপনিও সফলতা একদিনেই পাবেন না

কোন কাজে সাময়িক ব্যর্থ হলে হাল ছেড়ে দেওয়া খুবই সহজ এবং এই সহজ কাজটি বেশীর ভাগ মানুষই করে থাকেন। আপনি যদি জীবনকে সাফল্য মণ্ডিত করতে চান তবে হতাশ না হয়ে চেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে। পড়ুন – সফলতা একদিনেি আসে না 

 

২৯। চরিএ সব থেকে মূল্যবান সম্পদ

চরিএ সব থেকে মূল্যবান সম্পদ

এক মাএ উত্তম চরিএই পারে পরিপূর্ণ ভাবে একজন মানুষকে সফল করতে। জ্ঞান, মানসিক শান্তি, ধন সম্পদ, সামাজিক অবস্থা ও মানুষের ভালবাসা অর্জন করতে চাইলে আপনাকে অবশ্যই আখলাকে হামিদাহ বা উত্তম চরিত্রের অধিকারি হতে হবে।

 

৩০। সব ডিম এক ঝুড়িতে রাখবেন না

সব ডিম এক ঝুড়িতে রাখবেন না

সব ডিম এক ঝুড়িতে রাখবেন না এই কথাটি সাধারনত বিনিয়োগের বেলায় বেশী প্রচলিত হলেও সব ক্ষেএে এই কথা মেনে চলা উচিত। সাধারনত শেয়ার বাজারে যারা বিনিয়োগ করে তারা এই কথা জানে, যদিও অনেকই মানে না। এখানে পড়ুনঃ কেন সব ডিম এক এক ঝুড়িতে রাখবেন না

 

৩১। অতীত নিয়ে চিন্তা করে হতাশ হবেন না

অতীত নিয়ে চিন্তা করে হতাশ হবেন না

আপনি ভুল করেছিলেন না মেনে নিন

মানুষের অন্যতম স্বভাব ভুল করা। হতাশা দুঃখ বোধ জাগ্রত করা ছাড়া আর কিছুই করতে পারে না। প্রতিটি মানুষেরই একটি অতীত আছে, আজকে যিনি সাধু তারও একটি অতীত ছিল, ঠিক তেমনি আজকে যিনি আসামি তারও একটি ভবিষ্যৎ আছে। পড়ুন – অতীত নিয়ে চিন্তা না করে নতুন পরিকল্পনা করুন

 

৩২। সবাইকে সন্মান করুন

সবাইকে সন্মান করুন

জীবনে সম্মানিত সেই হয় যে অন্যকে সম্মান দিতে পারে। আপনি যদি কষ্ট করে সফল ব্যক্তিদের মধ্যে থাকা গুনাবলী পর্যালোচনা করতে পারেন তবে যেই বৈশিষ্ট্য সব চেয়ে কমন পাবেন তা হলো তারা বিনয়ী ও অন্যকে সন্মান দিতে জানে।

 

৩৩। নিজেকে নিজেই অনুপ্রানিত করুন

নিজেকে নিজেই অনুপ্রানিত করুন

আপনিই আপনার মানসিকতা পরিবর্তন করে নিজেকে অনুপ্রানিত করার মাধ্যমে জীবনকে সাফল্যমণ্ডিত করতে পারেন। এর জন্য সর্বপ্রথম নিজেকে অন্যের সাথে তুলনা করা বন্ধ করতে হবে। আসুন জেনে নেই কিভাবে নিজেকে নিজেই অনুপ্রানিত করা যায়।

 

৩৪। কথার মাধ্যমে মন জয় করুন

কথার মাধ্যমে মন জয় করুন

অন্যের ভালবাসা ও বিশ্বাস এমন একটি বিষয় যা চাইলেই জোড় করে আদায় করতে পারবেন না। টাকা দিয়েও এই সব কেনা যায় না। একমাএ ব্যবহার পারে অন্যের মনে জায়গা করে নিতে। ব্যবহারের অন্যতম একটি মাধ্যম মানুষের মুখের কথা। জেনে নিন – কিভাবে কথার মাধ্যমে অন্যের মন জয় করবেন 

 

৩৫। আপনার যা আছে তাই কাজে লাগান

আপনার যা আছে তাই কাজে লাগান

আপনার কি নেই এই চিন্তা বাদ দিয়ে আপনার কি আছে তাই নিয়ে আপনাকে  এগিয়ে যেতে হবে। বিশ্বাস করুন প্রতিভা তখন কাজে লাগে যখন আপনি সেই প্রতিভা খুঁজে তার সঠিক ব্যবহার করতে পারবেন। পড়ুন – আপনার যা আছে তাই কাজে লাগান

 

৩৬। অন্যের দোষ খুঁজবেন না

অন্যের দোষ খুঁজবেন না

নিজের সমালোচনা করা কতটা ভালো গুন যা এর তুলনা খুঁজে পাওয়া বড়ই মুশকিল। ঠিক তেমনি অন্যের দোষ খুঁজে তাদের সমালোচনা করাও মোটেই ভাল কিছু না। কারো অবর্তমানে তার দোষ নিয়ে আলোচনা করা এর চেয়ে খারাপ কিছু নেই বললেই চলে। কেন অন্যের দোষ খুজবেন না তা এখানে পড়ুন। 

৩৭। “ব্যবহারে বংশের পরিচয়” ভুলে যাবেন না

 

৩৮। অন্ধ ভাবে কারো কাজ কপি পেস্ট করবেন না

অন্ধ ভাবে কারো কাজ কপি পেস্ট করবেন না

অনুকরনের জোয়ারে নিজের বিবেক বিবেচনা, জাতীয় স্বত্বা, নিজের দেশ, নিজের সমাজ-সংস্কৃতি, আমরা ভুলে যাই। আমরা চক্ষু বন্ধ করে অন্যের মত হতে চাই। অন্যের মত নিজের লাইফস্টাইলে পরিবর্তন না করতে পারলে আমরা হতাশায় ভুগি। আমাদের কোন অবস্থাতেই অন্যের কাজ কপি পেস্ট করা উচিত হবে না। 

 

৩৯। টাকা ধার নেওয়া বন্ধ করুন

টাকা ধার নেওয়া বন্ধ করুন

এদের থেকে বোকা আর কে হতে পারে যারা টাকা ধার করে নিজের সখ পূরণ করতে চায়। যতক্ষন পারা যায় ততক্ষন টাকা ধার করা থেকে বিরত থাকতে হবে। আপনাকে মনে রাখতে হবে, টাকা ধার করা কখনই আপনার আত্নসন্মান বাড়াতে বা সফল বানাতে পারে না। পড়ুন – কেন টাকা ধার নেওয়া বন্ধ করবেন 

 

৪০। আয়ের চেয়ে ব্যয় কম করুন

আয়ের চেয়ে ব্যয় কম করুন

সফল হওয়ার ৫০ উপায় – আয়ের চেয়ে ব্যয় কম করুন

সম্পদশালী হতে হলে আপনাকে আয় বুজে ব্যয় করতে হবে। এর চেয়ে বড় কথা আয়ের চেয়ে ব্যয় কম করতে হবে। আপনার আয়ের চেয়ে ব্যয় যত কম হবে তত টাকা আপনার কাছে জমা থাকবে।

 

৪১। প্রত্যাখ্যান হওয়া মানে আরেকটি পথ খোলা

প্রত্যাখ্যান হওয়া মানে আরেকটি পথ খোলা

আমাদের মানব জীবনে দুর্ভাগ্যজনক একটি অভিজ্ঞতার নাম প্রত্যাখ্যান হওয়া। কোন কিছুতে প্রত্যাখ্যান হওয়া মানে এখানেই শেষ নয়, প্রত্যাখ্যান হওয়া মানে আপনার জন্য আরেকটি পথ খোলা।

 

৪২। বই পড়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন

বই পড়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন

বই পড়া কেবল একটি গুরুত্বপূর্ণ পেশাদার দক্ষতাই না; এটি তথ্যবহুল, সৃজনশীল এবং সাহিত্যের অনুপ্রেরণামূলক কাজগুলি উপভোগ করার সেরা উপায়, যা আমাদের জীবনের অভিজ্ঞতাকে সমৃদ্ধ করছে। আসুন বই পড়ার অভ্যাস করে গড়ে তুলবেন এর কিছু কারন খুঁজে বের করি।

 

৪৩। “না” বলতে পারা একটি দক্ষতা

“না” বলতে পারা একটি দক্ষতা

সব সময় সব বিষয়ে “ইয়েস” বা হাঁ বলা কখনই আমাদেরকে সফল হতে সাহয্য করবে না। “না” বলতে পারা একটি দক্ষতা। কোথায় এবং কিভাবে “না” বলবেন তা জেনে রাখতে হবে।

 

৪৪। বক্তব্য দেওয়া শিখতে হবে

বক্তব্য দেওয়া শিখতে হবে

বক্তৃতা দেওয়া মানে সাহসী উচ্চারণ, বক্তৃতা মানে অন্যকে অনুপ্রাণিত করা, এটি একটি শিল্প এবং এটি একটি শিক্ষার অংশবিশেষ। আপনি কি বলছেন তা গুরুত্বপূর্ণ, কিন্তু আপনি কিভাবে বলছেন তা অধিক গুরুত্বপূর্ণ।

পড়ুনঃ বক্তৃতা দেওয়া একটি দক্ষতা  

৪৫। ব্যবসার জন্য লোন নেওয়ার আগে কয়েকবার ভাবুন

ব্যবসার জন্য লোন নেওয়ার আগে কয়েকবার ভাবুন

Business Loan বা ব্যবসার জন্য লোন আর মানসিক চাপের মধ্যে কোন পার্থক্য দেখি না। আপনার কাছে টাকা না থাকলে টাকা পাওয়ার একমাএ উপায় লোন হতে পারে না। পড়ুন – লোন ছাড়া কিভাবে ব্যবসা করা যায়

 

৪৬। অন্যের কাছ থেকে সাহায্য নেওয়া মানে আপনি ছোট না

অন্যের কাছ থেকে সাহায্য নেওয়া মানে আপনি ছোট না

অন্যের কাছ থেকে সাহায্য নেওয়া মানে শুধুমাএ টাকা পয়সা ভিত্তিক সাহায্য বোঝায় না। এটি হতে পারে কেউ আপনাকে বুদ্ধি-পরামর্শ দিয়ে সাহায্য করছে, কেউ আপনাকে শ্রম দিয়ে সাহায্য করছে, কেউ আপনাকে সাহস দিয়ে সাহায্য করছে। এই বিশ্বে সবাই সব বিষয়ে পারদর্শী হয় না। তাই অন্যের থেকে সাহায্য নিলে আপনি ছোট হবেন না। 

 

৪৭। অতিরিক্ত আড্ডাকে বলুন গুডবাই

অতিরিক্ত আড্ডাকে বলুন গুডবাই

যারা জীবনে সফল হতে চায় তারা তাদের জীবনের প্রতিটি মুহূর্তকে কাজে লাগাতে চায়। আড্ডা তখনই খারাপ হয় যখন তা অতিরিক্ত হয়ে যায়। আপনি যদি জীবনে সফলতা আনতে চান তবে অতিরিক্ত আড্ডাকে না বলতেই হবে। 

 

৪৮। কিছু কাজ কখনই করবেন না

কিছু কাজ কখনই করবেন না

যারা সফল হতে চায় তারা শুধুমাএ তাদের কর্মেই সফল হতে চায় না বরং জীবনের প্রতিটি ধাপেই সফল হতে চায়। কিছু কাজ বা অভ্যাস আছে যা আমাদের কখনই করা উচিত নয়।

 

৪৯। কিছু অভ্যাস আপনার জীবন নষ্ট করছে না তো

কিছু অভ্যাস আপনার জীবন নষ্ট করছে না তো

আমাদের জীবনে প্রতিদিনের কিছু অভ্যাস আমাদের সফল করতে পারে, ঠিক তেমনি কিছু অভ্যাস আমাদের জীবন নষ্ট করতে পারে। আর কথা না বাড়িয়ে আসুন জেনে নেই এমন কি অভ্যাস আপনার জীবন নষ্ট করতে পারে।

 

৫০। জীবনসঙ্গী আপনাকে সফল বা বিফল বানাতে পারে

জীবনসঙ্গী আপনাকে সফল বা বিফল বানাতে পারে

আপনার জীবনসঙ্গী আপনার হাত ধরে সফল বানিয়ে দিবে না, তবে আপনার জীবনসঙ্গীর মধ্যে থাকা কিছু গুন আপনাকে সফল করতে সাহায্য করবে। আসুন জেনে নিই জীবনসঙ্গীর মধ্যে কি কি গুন থাকলে আপনি সফল হতে পারবেন।

 

– কে এম চিশতি সিয়াম // ইউটিউব চ্যানেল থেকে নেওয়া

সফল হওয়ার ৫০টি উপায়