শেয়ার বাজারে ইনভেস্টর সাইকোলজি বলতে যা বোঝাঁয়

শেয়ার বাজারে ইনভেস্টর সাইকোলজি বলতে যা বোঝাঁয়

শেয়ার বাজারে ইনভেস্টর সাইকোলজি

শেয়ার বাজারে ইনভেস্টর সাইকোলজি

ইংলিশ শব্দ- Investor Psychology এর বাংলা হচ্ছে বিনিয়োগকারীর মনোভাব।  ইনভেস্টর সাইকোলজি বুজতে পারা শেয়ার বাজারের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। যারা শেয়ার বাজারে বিনিয়োগ করে তারা সবাই মানুষ, কেউ রোবট নয়। একজন বিনিয়োগকারী হিসাবে আপনি যদি সফল হতে চান তাহলে Technical Analysis, Fundamental Analysis ইত্যাদির পাশাপাশি আপনাকে ইনভেস্টর সাইকোলজি বুজতে হবে।

ইনভেস্টর সাইকোলজির সংজ্ঞাঃ শেয়ার বাজারে সাধারন বিনিয়োগকারীদের মনোভাবের ফলে বাজারে শেয়ারের দামের উঠানামা যে প্রভাব পড়ে তাকে বিনিয়োগকারীর মনোভাব বা ইনভেস্টর সাইকোলজি বলে।

ইনভেস্টর সাইকোলজি বিস্তারিত

আপনাকে অন্য বিনিয়োগকারীদের বাজার সম্পর্কে আচরণ ও মনোভাব কি তা বুজতে হবে। তারা কি বিশ্বাস করে, তারা কীভাবে কাজ করে, কি ধরনের খবরে বাজারে গুজব সৃষ্টি হয়, কি খবরে বাজার চাঙ্গা হয়, কোন খবরে  বিনিয়োগকারীদের কনফিডেন্স বাড়ে বা কমে, ইত্যাদি বুজতে পারাই ইনভেস্টর সাইকোলজি। অনেক সময় ইনভেস্টরদের সাইকোলজি বুজতে না পারলে ভাল শেয়ার সঠিক সময়ে কিনেও লাভবান হওয়া যায় না।

এই সাইকোলজি যে কোনও সময়ে শেয়ার বাজারে বিনিয়োগকারীদের বর্তমান অনুভূতিকে বোঝায়। উদাহরণস্বরূপ, বিনিয়োগকারীদের হঠাৎ আত্মবিশ্বাস বাড়ার ফলে বাজার অনেকখানি উত্থান হয় ঠিক তেমনি আত্মবিশ্বাস কমে গেলে বিক্রি চাপ বেড়ে যায় এবং বাজার ধীরে ধীরে নীচে নামতে থাকে।

কোন শেয়ারের দাম মূলত বাজারে চাহিদার উপর নির্ভরশীল হলেও অনেক সময় বিনিয়োগকারীদের সাইকোলজিও উপর নির্ভর করে। যেমন ধরুন, কোন একটি “জেড ক্যাটাগরির” শেয়ার ডিলিস্ট হয়ে গেল আজকে তার পরের দিন অন্য জেড ক্যাটাগরির শেয়ারের দাম কমে যাবে। কারন তখন বিনিয়োগকারীদের মনে একটি ভয় থাকবে যে তাদের হাতে থাকা অন্য জেড ক্যাটাগরির শেয়ার ডিলিস্ট হয়ে যায় কিনা। যার ফলে অস্বাভাবিক ভাবে জেড ক্যাটাগরির শেয়ারের বিক্রি চাপ বেড়ে যাবে এবং যার ফলে জেড ক্যাটাগরির শেয়ারের দাম কমে যায়। সাধারন বিনিয়োগকারীদের আস্থার বা মনোভাবই এ ধরনের শেয়ারের দামে প্রভাবিত করে।

আরো পড়ুন – ব্যাংকের ঋণ নিয়ে কখনোই শেয়ার কিনবেন না

বিনিয়োগকারীদের সাইকোলজি আমাদের দেশের শেয়ার বাজারের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ যা বুজতে পারলে লাভবান হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়।

বাজারে বিনিয়োগকারীদের সাইকোলজি বুজতে না পারলে যা ঘটতে পারেঃ

১। অন্ধভাবে একটি বা দুইটি শেয়ার পড়ে থাকে।

২। দাম বেশী কমে গেলে অনেক লস দিয়ে বের হতে আসা।

৩। অল্প লাভে হাতে থাকে শেয়ার বিক্রি করা।

৪। কোন সেক্টর প্লে করবে তা বুজতে না পারা।

৫। বেশী দামে শেয়ার কিনে টাকা আটকে রাখা।

৬। ক্যাশ টাকা সব ব্যবহার করা।