২০২০ সালের জন্য ১২০টি লাভজনক বিজনেস আইডিয়া

২০২০ সালের জন্য ১২০টি লাভজনক বিজনেস আইডিয়া

১২০টি লাভজনক বিজনেস আইডিয়া ২০২০

১২০টি লাভজনক বিজনেস আইডিয়া ২০২০

লাভজনক বিজনেস আইডিয়া খুঁজছেন? ছোট, বড়, মাঝারি, কৃষি, পাইকারি, উৎপাদনমুখী, খাবার ভিত্তিক, অনলাইন, স্মার্ট, নতুন ও ইউনিক ব্যবসার ধারনা নিয়ে আর্টিকেলটি সাজানো হয়েছে। অসংখ্য বিজনেস আইডিয়ার মধ্যে থেকে আমরা ২০২০ সালের জন্য ১২০টি লাভজনক বিজনেস আইডিয়া আপনাদের কাছে তুলে ধরার ইচ্ছা প্রকাশ করছি।

এই ১২০টি ব্যবসার মধ্যে কিছু ব্যবসা শুরু করতে আপনার অনেক টাকার দরকার হতে পারে, আবার কিছু ব্যবসায় কম টাকা লাগতে পারে। আবার কিছু ব্যবসা রয়েছে যা করতে কোন টাকাই লাগবে না। তাই দেরি না করে সম্পূর্ণ আর্টিকেল পড়ুন এবং কোন ব্যবসাটি আপনার জন্য উপযুক্ত তা খুঁজে বের করুন। তাই আর কথা না বাড়িয়ে সরাসরি লাভজনক বিজনেস আইডিয়ায় চলে যাই।

খাবার ভিত্তিক ব্যবসার ধারনা (Food Business Ideas)

খাবার আমাদের মৌলিক চাহিদার অন্যতম একটি। খাবার ভিত্তিক ব্যবসা লাভজনক ব্যবসা ক্ষেএ। সময়ের সাথে সাথে খাবার ভিত্তিক ব্যবসা বেশ জমজমাট। এই ব্যবসার মূল চ্যালেঞ্জ ভালো জায়গা ও মান মানসম্মত খাবার।

#১ বেকারির ব্যবসা (Bakery Business)

খাবার ভিত্তক ব্যবসার মধ্যে বেকারির ব্যবসা অন্যতম সেরা একটি ব্যবসা। এই ব্যবসা আমাদের দেশে অনেক দিন থেকেই চলে আসছে। প্রতিদিনের নাস্তায় বেকারির পণ্য আমাদের নিত্য দিনের সঙ্গী। সঠিক পরিকল্পনা ও বাজারজাতকরনের উপর এই ব্যবসার সফলতা নির্ভর করে।

এই ব্যবসার প্রাথমিক খরচ একটু বেশী। কারন প্রথম দিকে আপনাকে মেশিনারি কিনতে হবে, কারখানা বানাতে হবে। স্থান ভেদে ৫ থেকে ৮ লাখ টাকা দিয়ে বেকারির ব্যবসা শুরু করতে পারবেন। বিস্তারিত পড়ুন –যেভাবে বেকারি ব্যবসা শুর করবেন

#২ ক্যাটারিং ব্যবসা (Catering Business)

আপনি কি আপনার বন্ধুদের এবং পরিবারের জন্য খাবার রান্না করতে পছন্দ করেন? আপনি যদি রান্নায় দক্ষ হন তবে আপনি ক্যাটারিং ব্যবসা বা খাদ্য সরবরাহ ব্যবসা শুরু করতে পারেন। প্রথম দিকে ছোট ছোট অর্ডার নিতে পারেন এবং আস্তে আস্তে ব্যবসার পরিধি বাড়াতে পারেন। পড়ুন – যেভাবে ক্যাটারিং ব্যবসা শুরু করবেন

#৩ ফুড কার্ট ব্যবসা (Food Cart Business)

এই ব্যবসা কম জনবলে এবং অল্প টাকায় শুরু করা যায়। রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে এই ব্যবসা দিন দিন জনপ্রিয়তা বাড়ছে। বার্গার, হট কফি, কোল্ড কফি, নুডলস, ফ্রাইড চিকেন, ফ্রেঞ্চ ফ্রাই ফুড কার্টে চাহিদাসম্পন্ন খাবার। উপযুক্ত স্থান ও মানসম্মত খাবার এই ব্যবসাকে সফল করতে সাহায্য করবে।

#৪ খাবার ডেলিভারি ব্যবসা (Meal Delivery Business)

কর্ম ব্যস্ত অফিসে খাবার ডেলিভারি ব্যবসা একটি লাভজনক ব্যবসা ক্ষেএ। অল্প পুঁজিতে আপনি এই ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন। প্রথমে আপনাকে খাবারের মেনু বানিয়ে বিভিন্ন অফিসে যেতে হবে। তাদের স্বাস্থ্যসম্মত খাবার প্রতিদিন কম দামে ডেলিভারি দিয়ে এই ব্যবসা পরিচালনা করতে হবে।

বিস্তারিত জেনে নিন – খাদ্য প্রেমীদের জন্য ৫ টি খাদ্য ব্যবসার ধারণা

#৫ কাঁচা বাজার হোম ডেলিভারি ব্যবসা

কাঁচা বাজার হোম ডেলিভারি ব্যবসা একটি ইউনিক ও স্মার্ট বিজনেস আইডিয়া। এই ব্যবসা আপনি খুবই অল্প টাকা দিয়ে শুরু করতে পারেন।

কাঁচা বাজার হোম ডেলিভারি ব্যবসার জন্য প্রথমে আপনাকে কয়েকটি এলাকা বেছে নিতে হবে। ফোনের মাধ্যমে অর্ডার পেয়ে বাজার করে পৌঁছে দিতে হবে গ্রাহকের কাছে।

বেশী গ্রাহক পেতে আপনি একটি মোবাইল অ্যাপ বানিয়ে নিতে পারেন। মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে গ্রাহক তার প্রয়োজনীয় পণ্য জানিয়ে দিবে এবং আপনি বা আপনার লোক বাজার করে পৌঁছে দিবে গ্রাহকের কাছে। বিস্তারিত পড়ুন – যেভাবে কাঁচা বাজার হোম ডেলিভারি ব্যবসা শুরু করতে হয়

হোম সার্ভিস বিজনেস আইডিয়া – Home service business ideas

মানুষের ব্যস্ততা দিন দিন বেড়েই যাচ্ছে। এই ব্যস্ততার পাশা পাশি বেড়ে যাচ্ছে হোম সার্ভিস ব্যবসা। হোম সার্ভিস ব্যবসার বড় গুন কম টাকা দিয়ে ব্যবসা করা যায় তবে দক্ষতা ও সৃজনশীলতার দরকার হয়।

খুবই অল্প টাকা বা বিনা পুঁজিতে লাভজনক এই হোম সার্ভিস ব্যবসা ক্ষেএ। আসুন কিছু হোম সার্ভিস বিজনেস আইডিয়া জেনে নেই।

#৬ বাড়ী ঘর পরিষ্কার সেবা (Deep House Cleaning Business)

বর্তমানে ব্যস্ততার এই যুগে খুব কম মানুষই তাদের বাড়ী ঘর পরিষ্কার করতে পারে। যেমন অনেকের সময় থাকে না আবার অনেকের ভালভাবে পরিষ্কার করার জন্য সরঞ্জাম থাকে না।

বাড়ী ঘর পরিষ্কার সেবা একটি লাভজনক সেবা ভিত্তিক ব্যবসা অল্পপুঁজি ও দক্ষ জনবল নিয়ে এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন। এত কম টাকায় এমন লাভজনক ব্যবসা খুবই কম আছে।

#৭ বাগান সেবা (Garden Service)

বাগান সেবা ব্যবসা একটি ইউনিক ও স্মার্ট ব্যবসা ক্ষেএ। লাভজনক বিজনেস আইডিয়া হিসাবে আমি এই ব্যবসাকে ১০ এ ৮ দিব। কম টাকায় এই ব্যবসা বেশ লাভজনক। বিভিন্ন বাগানের ডিজাইন বানিয়ে আপনি গ্রাহকের কাছে আপনার ব্যবসার কথা জানান দিতে পারেন। গ্রাহক আপনার বাগানের ডিজাইন পছন্দ করলে ও দর দামে ঠিক থাকলে তারা আপনাকে তাদের বাগান সাজানোর কাজ দিবে।

প্রথমে বন্ধু-বান্ধব, আত্নীয় স্বজনদের কাজ গুলো করে অভিজ্ঞতা ও স্যাম্পেল করে নিতে পারে। অনলাইন ও অফলাইন প্রচারনা আপনাকে এই ব্যবসায় সফল করতে সাহায্য করবে। আপনি জানেন কি- ছোট শহরে কোন ব্যবসা লাভজনক?

#৮ ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসা (Interior Designing Business)

 

নিজের দক্ষতা ও সৃজনশীলতা কাজে লাগিয়ে যদি ব্যবসা করতে চান তাহলে শুরু করুন ইন্টেরিয়র ডিজাইন ব্যবসা অফিস কিংবা বাড়ীর ইন্টেরিয়রের কাজের প্রচুর চাহিদা রয়েছে। এই ব্যবসার জন্য গ্রাহক পেতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করতে পারেন।  

অনলাইন ব্যবসা – Online Business in Bengali

আধুনিক এর যুগে দিন দিন অনলাইন ব্যবসার পরিধি বেড়েই যাচ্ছে। অনলাইন ব্যবসায় সব থেকে বড় সুবিধা ঘরে বসে নিজের বুদ্ধি, মেধা, শ্রম কাজে লাগিয়ে টাকা আয় করা যায়। নিজেই নিজের বস! আসুন জেনে নেই কিছু অনলাইন ব্যবসার ধারনা লাভজনক ও সহজ অনলাইন বিজনেস আইডিয়া পাওয়ার পর আমরা দোকান ভিত্তিক ব্যবসা, কৃষি, উৎপাদনমুখী ব্যবসার ধারনা নিয়ে আলোচনা করব।

#৯ অনলাইন ব্লগ (Online Blog)

 

অনলাইনে থেকে যতগুলো মাধ্যম থেকে টাকা আয় করা যায় তার মধ্যে সেরা একটি মাধ্যম অনলাইন ব্লগ। একটি ব্লগ এ টাকা আয়ের মূল্য উৎস ভিজিটর। যেকোন সাইটে ভিজিটর মূল ভোমরা।

একটি ব্লগ বা ওয়েবসাইট থেকে অনেক ভাবে টাকা আয় করা যায়। বিজ্ঞাপন প্রচার, অনুমোদিত বিপণন (affiliate marketing), সরাসরি বিজ্ঞাপন, নিজের পণ্য বিক্রি, সহ অনেক ভাবেই টাকা আয় করা যায়।

পড়ুন – যেভাবে অনলাইন ব্লগ থেকে টাকা আয় করবেন

#১০ ইউটিউব এ ভিডিও প্রকাশ করে টাকা আয় করুন

 

ইউটিউব ৩/৪ বছর আগেও অনেক সহজ ছিল। এখন দিন দিন তারা কঠোর হচ্ছে। তিন থেকে চার বছর আগে – আপনি যখন একটি ভিডিও আপলোড করতেন সাথে সাথে আপনি ইনকাম করা শুরু করতেন।

এখন এই সুযোগ নেই। ইউটিউব ভিডিও থেকে টাকা আয় করতে হলে আপনাকে অবশ্যই কিছু আইন মেনে চলতে হবেই। যেমন- অন্য কারো ভিডিও থেকে একটু অংশও কপি করা যাবে না।

সম্পূর্ণ নিজের ভিডিও হতে হবে। তাছাড়া, ১০০০ সাবস্ক্রাবার ও ৪০০০ ঘন্টা watch hour লাগবে। তবে ইউটিউব এ একবার একটি চ্যানেল দাঁড় করাতে পারলে একটি প্যাসিভ ইনকাম (passive income) তৈরি হয়।

#১১ অনলাইনে কোর্স (Online Course) বিক্রি করে আয় করুন

 

অনলাইনে কোর্স বিক্রি একটি লাভজনক অনলাইন বিজনেস আইডিয়া। আপনি যেই বিষয়ের উপর পারদর্শী সেই বিষয়ের উপর অনলাইন কোর্স বানাতে পারেন। কোর্স বানানো হলে তা প্রচার করে বিক্রি বানিয়ে নিতে পারেন।

আপনি চাইলে অনেক ভাবে অনলাইন কোর্স বিক্রি করতে পারেন। সরাসরি নিজের কোর্স নিজে প্রচার করে বিক্রি বাড়াতে পারেন। আপনি চাইলে udemy ডট কমে গিয়ে কোর্স বিক্রি করতে পারেন।

#১২ মোবাইল অ্যাপ (mobile app) বানিয়ে টাকা আয় করুন

 

বর্তমান বিশ্বে মোবাইল অ্যাপের চাহিদা বলে শেষ করা যাবে না। একটি কাজ করুন! আপনার মোবাইলে কয়েকটি অ্যাপ আছে তা গুনে নিন। কম পক্ষে ১৮ থেকে ২৫টা অ্যাপ থাকবে।

এখন ল্যাপটপ ও ডেস্কটপরের চাহিদা দিন দিন কমে যাচ্ছে। অন্যদিকে স্মার্ট ফোন ও অ্যাপের চাহিদা বেড়ে যাচ্ছে। তাই একটি মোবাইল অ্যাপ হতে পারে আয়ের সেরা মাধ্যম।

#১৩ আর্টিকেল লিখে আয় করুন

 

আর্টিকেল রাইটার এমন একজন ব্যক্তি যিনি অন্যের হয়ে আর্টিকেল লিখে আয় করে থাকেন। এটি একটি স্বাধীন পেশা।

একজন আর্টিকেল রাইটারের এসইও (SEO) জ্ঞান থাকা বাঞ্ছনীয়। নিজ ঘর, অফিস বা যে কোন জায়গা থেকে আর্টিকেল লিখে টাকা আয় করা যায়। দক্ষতা, অভিজ্ঞতা এই কাজকে আরো বেগবান করে।

#১৪ ই-কমার্স বিজনেস (ecommerce business)

 

ই-কমার্স আরেকটি স্বাধীন ব্যবসা। কঠোর পরিশ্রম, অনেকগুলো পদক্ষেপ এবং সিদ্ধান্তের সমন্বয়ে এই ব্যবসা। ই-কমার্স বিজনেস শুরু করা মটেই সহজ কাজ না।

প্রথমে অনেকেই মনে করে যে, পাইকারি দামে কিছু পণ্য কিনলাম, ছবি তুলে প্রচার করলাম এবং বিক্রি করলাম। আসলেই কি শুধু তাই? মোটেই না। সাধারন যেকোন ব্যবসার চেয়ে এই ব্যবসা শুরু করা কঠিন ও চ্যালেঞ্জিং।

পড়ুন – How to Start an E-commerce Business

#১৫ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ম্যানেজার (Social Media Manager)

 

এই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ম্যানেজার একটি ইউনিক বিজনেস আইডিয়া। খুব কম টাকা বা টাকা ছাড়াই এই ব্যবসা শুরু করা যায়।

আমাদের দেশে সোসাল মিডিয়া এখনও ৬০% কোম্পানি ব্যবহার করে না। তাই আপনার জন্য বিশাল এক বাজার খোলা আছে। বিভিন্ন প্যাকেজ সাজিয়ে আপনি বিভিন্ন কোম্পানির হয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাদের পণ্য বা সেবার প্রচারনা করতে পারেন।

আপনি যদি বিক্রি ছাড়া ব্যবসার ধারনা পেতে চান তবে এই আর্টিকেলটি পড়ুন – যারা বিক্রি পছন্দ করেন না তাদের জন্য এই ৫ টা আইডিয়া

 

#১৬ অনলাইনে ইংরেজি শিখিয়ে টাকা আয় করুন

আপনি যদি ইংলিশে দক্ষ হয়ে থাকেন তাহলে এই দক্ষতাকে ব্যবসায় রুপান্তর করতে পারেন। এর জন্য আপনি একটি ইউটিউব চ্যানেল খুলতে পারেন, কিংবা অনলাইন কোর্স বানাতে পারেন। জেনে নিন – ব্যবসায়িক অভিজ্ঞতা ছাড়া যেভাবে ব্যবসা করা যায়

 

#১৭ ব্যবসার পরিকল্পনা লেখক (Business Plan Writer)

আরেকটি লাভজনক বিজনেস আইডিয়া এটি। আমাদের দেশের পেক্ষাপটে এই ব্যবসা ইউনিউ। যেকোন ব্যবসা শুরু করতে হলে বিজনেস প্লানের কোন বিকল্প নেই।

আপনি যদি ব্যবসায় দক্ষ হয়ে থাকেন ও ব্যবসায়িক পরিকল্পনা লিখতে পারেন তবে এই ব্যবসা বেশ জমজমাট হবে। এটি একটি সেবা ভিত্তিক ব্যবসা যা পার্ট-টাইম ব্যবসা হিসাবেও করা যায়।

 

#১৮ বিবাহের ফটোগ্রাফি ব্যবসা

আপনি যদি ছবি তুলতে পছন্দ করেন, তবে বিবাহের ফটোগ্রাফি ব্যবসা শুরু করতে পারেন। কাজে স্বাধীনতা, সৃজনশীলতা, ও মানসম্মত পারিশ্রমিক এই তিন কারনে বিবাহ ফটোগ্রাফি ব্যবসাকে আমি দশে সাড়ে আট দিব।

বিবাহ ফটোগ্রাফার হওয়ার আগে আপনাকে যথেষ্ট দক্ষ ও স্যাম্পল বানাতে হবে। আপনার তোলা সৃজনশীল ছবিই আপনাকে চিত্রিত করবে। গ্রাহক বাড়াতে ও ব্যবসা প্রসারে মার্কেটিং করতে হবে।

পড়ুনযেভাবে ফটোগ্রাফি ব্যবসা শুরু করবেন

#১৯ বিবাহ পোশাক ভাড়া দিয়ে আয় করুন

বিবাহের পোশাক এমন পোশাক যা সাধারনত বিয়ের দিনেই পরিধান করা হয়। এর পরে এই পোশাকের কোন ব্যবহার হয় না। সাধারনত বিয়ের পোশাকের দাম অনেক বেশী হয়। ছেলে কিংবা মেয়ে উভয়ের বিয়ের পোশাক দাম আকাশচুম্বী।

আপনি চাইলে বিবাহের পোশাক কিনে তা ভাড়া দিতে পারেন। এই ব্যবসার সব থেকে বড় সুবিধা খুব সহজেই শুরু করা যায়।

অনলাইনে বিজ্ঞাপন দিয়ে এই ব্যবসার প্রচারনা করা যায়। গ্রাহক অনেক ডিজাইনের মধ্যে থেকে তার পছন্দের পোশাক ভাড়া নিতে পারবে। এই ব্যবসা আপনি ঘরে বসে অনলাইন ভিত্তিক করতে পারেন। বিশেষ করে মহিলা উদ্যোক্তাদের জন্য এই ব্যবসাটি বেশ লাভজনক।

 

#২০ গজ কাপড় ব্যবসা

আমাদের মৌলিক চাহিদার মধ্যে কাপড় অন্যতম। খাদ্যের পরেই বস্ত্রের  অবস্থান। কাপড় বিক্রির দোকান একটি লাভজনক ব্যবসা আইডিয়া।

উপযুক্ত স্থানে কাপড়ের পসরা সাজিয়ে এই ব্যবসাটি পরিচালনা করা যেতে পারে। বিস্তারিত জানুন – যেভাবে গজ কাপড় বিক্রির ব্যবসা শুরু করবেন

 

#২১ কফি শপ ব্যবসা (Coffee Shop Business)

কফি খেতে পছন্দ করে এমন খুব কম মানুষই আছে। কফির স্বাস্থ্য গুন এবং কফির জনপ্রিয়তা এই ব্যবসাকে সফল করতে ভূমিকা রাখে। কফি শপ ব্যবসা একটি লাভজনক বিজনেস আইডিয়া।

অল্প টাকায় এই ব্যবসা শুরু করা যায়। জায়গা ভেদে টাকার পরিমান কম বেশী লাগতে পারে। কফি শপ ব্যবসার জন্য স্থান নির্বাচন খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

 

#২২ প্রসাধনী বা কসমেটিক দোকান ব্যবসা

সত্যি বলতে কি কসমেটিক বা প্রসাধনী এখন আর সাধারন কিছু না। বিশেষ করে মহিলাদের কাছে এটি একটি মৌলিক চাহিদা। কসমেটিক বিক্রির দোকান হতে পারে একটি লাভজনক ব্যবসা ক্ষেএ।

এই ব্যবসায় ২০ থেকে ৪০ ভাগ পর্যন্ত লাভ করা যেতে পারে। সঠিক স্থান নির্বাচন, গ্রাহকের সাথে ভালো ব্যবহার, মানসম্মত পন্য এই ব্যবসাকে সফল করতে সাহায্য করবে।

লোভে না পড়ে অতিরিক্ত লাভ করা থেকে বিরত থাকতে হবে। এতে আপনি বেশী গ্রাহক পাবেন এবং ব্যবসা ভালো চলবে।

আরোও পড়ুন – সৌন্দর্য ও প্রসাধনী ব্যবসা ক্ষেএ

#২৩ চশমার দোকান ব্যবসা – লাভজনক বিজনেস আইডিয়া

 

একটি লাভজনক ব্যবসার অন্যতম নাম চশমার দোকান। ব্যবসার জন্য সঠিক স্থান নির্বাচন, ভালো গ্রাহক সেবা, ভালো মানের পণ্য এই ব্যবসাকে আরো চাঙ্গা করে।

১৫ বছর আগেও শতকরা ১৫ থেকে ১৮ জন চশমা পরতেন। এখন শতকরা ৬০ ভাগ মানুষ চশমা পরছে। এই ব্যবসার প্রতি মানুষের দিন দিন আগ্রহ বাড়ছে।

পুরান ঢাকার পাটুয়াটুলী চশমার সেরা পাইকারি মার্কেট হিসাবে বিবেচনা করা হয়। এখান থেকেই দেশের নানা প্রান্তে খুচরা চশমা বিক্রি করা হয়। স্থায়ী দোকানের পাশাপাশি অনলাইন চশমার দোকান করা যেতে পারে। বিশেষ করে অনলাইনে সানগ্লাস ব্যবসা করা যেতে পারে।

 

#২৪ ক্রোকারিজ ব্যবসা

একটি ক্রোকারিজ দোকান ব্যবসা করে আপনি অনাহাসে স্বাবলম্বী হতে পারেন। ক্রোকারিজ এমন পণ্য যা আমরা সবাই বাসা বাড়িতে নিত্য দিন ব্যবহার করি।

চা খাওয়ার কাপ থেকে শুরু করে, পানি খাওয়ার গ্লাস, ভাত খাওয়ার প্লেট, ফল খাওয়ার চামচ সবই ক্রোকারিজ পণ্য।

এই ব্যবসার কোন সিজন নেই। মানে বছরের সব সময় একই রকম ভাবে কেনা বেচা হয়। ক্রোকারিজ ব্যবসার অন্যতম বড় সুবিধা হলো পণ্য নষ্ট হয়ে যাওয়া বা মেদ শেষ হয়ে যাওয়ার ভয় নেই। তাই এই ব্যবসায় ঝুঁকিও কম। 

ক্রোকারিজ ব্যবসা করে সফল হতে হলে সঠিক জায়গা নির্বাচন, ভালো মানের পণ্য, ও গ্রাহক সেবা বাড়াতে হবে।

 

#২৫ ফাস্ট ফুডের ব্যবসা (Fast Food Shop)

কম দামে মুখরোচক খাবারের অন্য নাম যেন ফাস্ট ফুড। লোক সমাগম বেশী হয় এমন স্থানে একটি ফাস্ট-ফুড ব্যবসা করে আপনি নিজেই নিজের বস হতে পারেন। বিস্তারিত পড়ুন – যেভাবে ফাস্ট ফুডের দোকান ব্যবসা শুরু করবেন

# ২৬ রেস্টুরেন্ট ব্যবসা (Restaurant Business)

আমেরিকার একটি গবেষণায় দেখা যায় যে, উদোক্তা যাদের বয়স ২৪ থেকে ৩০ বছর তাদের এক নাম্বার পছন্দের ব্যবসার নাম রেস্টুরেন্ট। লাভজনক ব্যবসা হিসাবে এই ব্যবসার বেশ সুনাম আছে ঠিক তেমনি সঠিক ভাবে ব্যবসা পরিচালনা করতে না পারলে লসের সম্মুখীন হতে পারেন। জেনে নিন – রেস্টুরেন্ট ব্যবসা করে সফল হওয়ার কিছু উপায়

আরো পড়ুন – যেভাবে সফলতার সাথে রেস্টুরেন্ট ব্যবসা শুরু করবেন

#২৭ খাবার হোটেল ব্যবসা

সকালের নাস্তা, দুপুরের ভাত, বিকালের নাস্তা ও রাতের খাবার এই চার বেলাকে কেন্দ্র করে শুরু করুন খাবার হোটেল ব্যবসা। এই ব্যবসায় সাধারনত ক্রেতা নিজ দরকারেই আপনার ব্যবসার গ্রাহক হবে।

যুক্তিসংগত দামে মান সম্মত খাবার পরিবেশন ও গ্রাহকের সাথে সুন্দর ব্যবহার এই ব্যবসার প্রধান শক্তি। আমাদের খাবার ব্যবসা নিয়ে সকল আর্টিকেল এখানে পড়ুন।

 

#২৮ বিরিয়ানির ব্যবসা

ব্যস্ত এলাকায়, জনবহুল রাস্তার মোড়, অফিস এলাকা বিরিয়ানির ব্যবসার জন্য উত্তম জায়গা। ঘরে বা দোকানে রান্না করে খুব সহজেই এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন। দোকানে ৮/১০ বসার মত জায়গা থাকতে হবে।

এছাড়া পার্সেলের ব্যবস্থা রাখতে হবে। মুরগির বিরিয়ানি, গরুর মাংসের বিরিয়ানি, কাচ্চি বিরিয়ানি ইত্যাদি বেশ জমজমাট। খাবারের স্বাদ ভাল রাখতে পারলে আপনার গ্রাহকই আপনার জন্য ফ্রী বিজ্ঞাপন করবে।

 

#২৯ আইসক্রিম পার্লার

খুব কম মানুষই আছে যারা আইসক্রিম পছন্দ করে না। গড়ে একটি আইসক্রিম পার্লারের জন্য ৪৫০ থেকে ৫০০ বর্গফুটের দোকানের দরকার হয়। আইসক্রিম পার্লার একটি লাভজনক ব্যবসা ক্ষেএ। এই ব্যবসা শুরু করার আগে আপনাকে যথেষ্ট মার্কেট রিসার্চ ও পরিকল্পনা করতে হবে।

পড়ুন – ছোট ব্যবসা শুরু করার ধাপসমূহ

#৩০ ছোট সোনামনিদের জন্য খেলনার দোকান (Toys Business)

 

বাচ্চাদের মুখে হাসি ফোটানোর সাথে সাথে জীবিকা নির্বাহের এক সেরা উপায় খেলনার দোকান। সাধারন ভাবে খেয়াল করলে খেলনার দোকান সহজ মনে হলেও অনেক চ্যালেঞ্জের মুখোমুখী হতে হয়। জেনে নিতে পারেন – অপরিচিত পণ্য যেভাবে মার্কেটিং করবেন

#৩১ রঙিন মাছ ও একুরিয়াম ব্যবসা

একুরিয়াম ও রঙিন মাছেন ব্যবসা একটি লাভজনক বিজনেস আইডিয়া। এই ব্যবসা শুরু করতে ৭/৮ লাখ টাকা দরকার হতে পারে। ছোট আকারের দোকন ভাড়া নিয়ে ব্যবসাটি পরিচালনা করা যায়। জেনে রাখুন- ছোট ব্যবসা শুরু করার জন্য ৫টি গোল্ডেন টিপস

 

#৩২ পুরাতন ফার্নিচার কেনা বেচা

ফার্নিচার বা আসবাবপত্র আমরা নিত্যদিন ব্যবহার করি। অনেক সময় একটি ফার্নিচার পুরাতন হয়ে গেলে তা বাধ দিয়ে নতুন ফার্নিচার কিনে থাকি। আপনি চাইলে পুরাতন ফার্নিচার কেনা ও বেচার এই ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন।

পুরাতন ফার্নিচার কিনে তা ভালোভাবে মেরামত এবং রঙ করে পুনরায় বিক্রি করে লাভ করতে পারেন। যখন আপনি একটি পুরাতন ফার্নিচার কিনবেন তখনই আপনাকে জিতে কিনতে হবে।

কেননা এই একই পণ্য আপনাকে আবার বিক্রি করতে হবে। এই ব্যবসা ঘরে বসেই করা যায়। অনলাইনে বিজ্ঞাপন দিয়ে আপনার ব্যবসার কথা জানান দিতে পারেন।

 

#৩৩ পুরাতন বইয়ের দোকান

বই অমূল্য সম্পদ। অনেক সময় বই পড়া শেষ হলে আমাদের কাছে তার গুরুত্ব কমে যায় এবং আরেকটি বইয়ের গুরুত্ব বেড়ে যায়। আপনি চাইলে একটি দোকান ভাড়া নিয়ে পুরাতন বই কেনা বেচা করতে পারেন।

যদিও পুরাতন বইয়ের দোকান ব্যবসা একটু ধীর গতির তবে এই ব্যবসায় লাভ নেহাত কম নয়। আপনি স্থায়ী দোকানের পাশাপাশি অনলাইনেও এই ব্যবসার কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারেন।

অবশ্যই পড়ুন – পুরাতন পণ্য কেনা বেচা হতে পারে একটি লাভজনক ব্যবসা

#৩৪ পুরাতন ইলেক্ট্রনিক পণ্য কেনা বেচা

আমাদের ইলেক্ট্রনিক পণ্যের চাহিদার শেষ নেই। একটি যায় তো আরেকটি আসে। ইলেক্ট্রনিক পণ্যের চাহিদার যাওয়া আসার মধ্যে আপনি একটি ব্যবসা করতে পারেন।

পুরাতন ইলেক্ট্রনিক পণ্য কম দামে কিনে (কোন সমস্যা থাকলে তা ঠিক করে) পুরনায় আবার বিক্রি করে এই ব্যবসা করা হয়। এই ব্যবসায় গ্রাহক পেতে একটি দোকান ভাড়া নিতে পারেন এবং অনলাইনে আপনার সেবা জানান দিতে পারেন।

#৩৫ লাইব্রেরি প্লাস কফি শপ (A library with a Coffee Shop)

একবার ভাবুনতো, বই পড়ার সাথে কফি পান করার মুহূর্ত! আপনি চাইলে একটি ছোট আকারের লাইব্রেরি দিতে পারেন এবং গ্রাহকে কফি অফার করতে পারেন। এছাড়াও লাইব্রেরি সেবার পাশাপাশি বই বিক্রি করতে পারেন। আরও পড়ুন – কফি শপ ব্যবসা শুরু করার প্রধান কারনসমূহ

#৩৬ প্রিন্ট, মোবাইল ব্যাংকিং, মোবাইল রিচার্জ ব্যবসা

একটি দোকান ভাড়া নিয়ে প্রিন্ট, মোবাইল ব্যাংকিং, মোবাইল রিচার্জ ব্যবসা ব্যবসা শুরু করতে পারেন। ব্যস্ত আবাসিক এলাকা, অফিস এলাকা, ইউনিভার্সিটি এলাকা এই ব্যবসার জন্য উত্তম জায়গা। এই ব্যবসাটি দেখতে অনেক ছোট মনে হলেও আসলে এই ব্যবসায় ভালো লাভ করা যায়। তাই জীবনে বড় হতে হলে কখনই নিজেকে ছোট ভাববেন না

#৩৭ শাড়ী বিক্রির দোকান

শাড়ী ব্যবসার মূল গ্রাহক মহিলারা। একটি শাড়ী বিক্রির দোকান হতে পারে একটি লাভজনক ব্যবসা ক্ষেএ। এই ব্যবসা শুরু করার আগে সঠিক বিজনেস প্ল্যান করেই বাজারে আসতে হবে। প্রথম দিকে পরিচিতি পেতে সময় লাগে। ইদের ৪/৫ মাস আগে এই ব্যবসা শুরু করার সঠিক সময়।

#৩৮ শেয়ার মার্কেট (Invest in the Stock Market)

আমাদের দেশে শেয়ার মার্কেট সম্পর্কে নেগেটিভ ধারনা অনেক বেশী। কিন্তু বাস্তবিক ভাবে শেয়ার বাজারে বিনিয়োগ হতে পারে একটি Passive Income. শেয়ার বাজারে দুই ভাবে বিনিয়োগ করা যায়।

এক আইপিওতে শেয়ারের জন্য আবেদন করা যায় এবং দুই, সরাসরি সেকেন্ডারি মার্কেট থেকে শেয়ার কেনা বেচা যায়। শেয়ার বাজারে বিনিয়োগের জন্য বিও অ্যাকাউন্ট খুলতে হয়। বিও অ্যাকাউন্ট ব্রোকার হাউসের মাধ্যমে খুলতে হয়। পড়ুন – যেভাবে শেয়ার বাজারে বিনিয়োগ করবেন

#৩৯ ইন্সুরেন্স এজেন্ট (Insurance Agent)

ইন্সুরেন্স এজেন্ট বা বীমা প্রতিনিধি মূলত একজন ব্যক্তি যে বীমা কোম্পানি ও গ্রাহকের মধ্যে একটি চুক্তি করিয়ে দেয়। সাধারনত বীমা প্রতিনিধির কোন বেতন নির্ধারন করা হয় না। বীমা বিক্রির উপর কমিশন দেওয়া হয়। এছাড়া একজন বীমা প্রতিনিধি অনেক গুলো সুবিধা ভোগ করতে পারে।

এখানে কোন ইনকামের কোন ধরাবাঁধা নিয়ম নেই। আপনি যত বেশী বীমা বিক্রি করবেন ততই ইনকাম বাড়বে।

বিশদ ভাবে জানুন – যেভাবে ইন্সুরেন্স বিক্রি করবেন

#৪০ বাসা ও অফিস বদল সার্ভিস

এটি একটি লাভজনক এবং সেবা ভিত্তিক ব্যবসার আইডিয়া। আপনি একটু খেয়াল করলেই দেখবেন প্রতি মাসে বহু মানুষ তাদের বাসা ও অফিস পরিবর্তন করে। বাসা কিংবা অফিস পরিবর্তন করা একটি জামেলার কাজ।

আপনি চাইলে এই সেবা ভিত্তিক ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন। এর জন্য আপনাকে কিছু দক্ষ ও কর্মঠ লোক নিয়োগ দিতে হবে। এছাড়া ভ্যান গাড়ী বা পিকআপের দরকার হতে পারে। প্র

থম অবস্থায় গ্রাহক পেতে অনলাইন বিজ্ঞাপন চালাতে পারেন। সন্তুষ্ট গ্রাহক পরবর্তীতে আপনার হয়ে ফ্রী মার্কেটিং করবে।

#৪১ কম্পিউটার ও কম্পিউটার সামগ্রী বিক্রি ব্যবসা   

কম্পিউটার ও কম্পিউটার সামগ্রী বিক্রি ব্যবসা একটি লাভজনক ব্যবসা ক্ষেএ। প্রথম দিকে ব্র্যান্ড তৈরি করতে কিছুটা সময় লাগবে।

নিশ্চয়তা সহকারে ভালো মানের পণ্য বিক্রি করতে পারলে আপনি খুব সহজেই এই ব্যবসায় লাভবান হতে পারবেন। বিস্তারিত পড়বেন – যেভাবে সফলতার সাথে কম্পিউটার ও কম্পিউটার সামগ্রী বিক্রি ব্যবসা শুরু করতে হয়

#৪২ সাইবার ক্যাফে

বর্তমানে বড় বিভাগীয় শহরে এই ব্যবসার চাহিদা কমে যাচ্ছে। কিন্তু এখনও জেলা শহরে সাইবার ক্যাফের বেশ চাহিদা রয়েছে। একটি মাঝারি সাইজের দোকান ভাড়া দিয়ে এই ব্যবসা পরিচালনা করা যায়। জেনে নিন – যেভাবে সাইবার ক্যাফে শুরু করতে হয়

#৪৩ পাগড়ির কারখানা

ছোট আকারের উৎপাদনমুখী ব্যবসা হিসাবে শুরু করুন পাগড়ি বানানোর ব্যবসা। সাধারনত বিবাহের বর এর ব্যবসার গ্রাহক। অল্প পুঁজিতে যেভাবে পাগড়ির কারখানা শুরু করতে হয় তা পড়ুন এখানে

#৪৪ জুতার দোকান ব্যবসা

আমরা অনেকেই sustainable business সম্পর্কে জানি। এই sustainable (টেকসই) ব্যবসার অন্যতম উদাহরন জুতার দোকান ব্যবসা। এই ব্যবসা অল্প পুঁজিতে শুরু করা যায় এবং ব্যবসা বুজে এর পরিধি বাড়ানো যায়।

এছাড়া কর্মচারি নিয়োগ দিয়ে চাকরির পাশাপাশি পার্ট-টাইম ব্যবসা হিসাবে এই ব্যবসা পরিচালনা করা যায়। এখানে পড়ুন – যেভাবে জুতার দোকান ব্যবসা শুরু করবেন।

#৪৫ কাঠের শোপিস তৈরি ব্যবসা

সৃজনশীলতা এবং নতুনত্ব নিয়ে যদি ব্যবসা করতে আপনি আগ্রহী হন তবে শুরু করুন কাঠের শোপিস তৈরি ব্যবসা এই ব্যবসায় প্রচুর সৃজনশীলতার দরকার হয়। স্থায়ী দোকান নিয়ে এবং অনলাইনে প্রচার চালিয়ে কাঠের শোপিস তৈরি ব্যবসা করতে পারেন। কোন সন্দেহ ছাড়া বলা যায় যে ২০২০ সালের জন্য এটি একটি লাভজনক বিজনেস আইডিয়া।

আসুন এবার কিছু কৃষি ও খামার ভিত্তিক ব্যবসা নিয়ে আলোচনা করা যাক

#৪৬ মৌমাছী পালন (Beekeeping)

আমাদের দেশে সাধারণত পাহাড়ী মৌমাছি, ভারতীয় মৌমাছি ও ক্ষুদে মৌমাছি পাওয়া যায়। ক্ষুদে মৌমাছির চাক থেকে সাধারনত গড়ে ২০০ গ্রাম মধু পাওয়া যায়। ভারতীয় মৌমাছি চাক থেকে ৪ কেজি মধু পাওয়া যায় এবং সর্বোচ্চ পাহাড়ী মৌমাছি চাক থেকে ১০ কেজি মধু পাওয়া যায়।

তবে পাহাড়ী মৌমাছি বক্সবন্ধী করে পালন করা যায় না। মধুর স্বাস্থ্য উপকারিতা ও চাহিদা বিবেচনায় নিয়ে মৌমাছী পালন হতে পারে একটি লাভজনক ব্যবসা।

#৪৭ মাশরুম চাষ (Mushroom cultivation)

মাশরুম একটি পুষ্টিকর খাবার ও এর চাষ অত্যন্ত লাভজনক। খুবই অল্প সময়ের মধ্যে খাবার উপযগী হয়। বাজারের অন্য সবজির থেকে মাশরুমের দাম বেশী। এছাড়া অন্য সবজির চেয়ে পোকা মাকড়ের আক্রমন অনেক কম।

#৪৮ কবুতর খামার

বাড়তি আয়ের জন্য কবুতর খামার একটি লাভজনক ব্যবসা ক্ষেএ। অনেকই সখ করে কবুতর পুষেন। কিন্তু এই সখই পরবর্তীতে আয়ের একটি সেরা মাধ্যম হতে পারে। তাই কবুতর খামার শুরু করার আগে এ ব্যবসা সম্পর্কে জানতে হবে।

জেনে নিন – কবুতর পালন পদ্ধতি ও শুরু করুন বাড়তি আয়

#৪৯ হাঁসের খামার ব্যবসা (duck farm business)

মুরগির খামারের চেয়ে হাঁসের খামার লাভজনক। অল্প পুঁজিতে শুরু করা যায়। বেশী জনবলের দরকার হয় না। সাইড ব্যবসা হিসাবেও হাঁসের খামার শুরু করা যায়। ছোট জায়গায় শুরু করে আস্তে আস্তে খামার বড় করা যায়।

তবে হাঁসের খামার শুরু করতে হলে আপনাকে খামারের জন্য উন্নত জাঁতের হাঁস নির্বাচন করতে হবে।

কেন হাঁসের খামার শুরু করবেন তার জন্য ১০ টি কারন রয়েছে। যা পড়লে আপনি এই ব্যবসা শুরু করতে উৎসাহ পাবেন। পড়ুন হাঁসের খামার শুরু করার ১০ কারন।

#৫০ কোয়েল পালন

কোয়েল একটি ছোট আকারের গৃহপালিত পাখি। অল্প টাকা দিয়ে কোয়েল পালন ব্যবসা শুরু করা যায়। আপনি জেনে অবাক হবেন যে, কোয়েল ৬-৭ সপ্তাহে ডিমপাড়া শুরু করে এবং বছরে ২৫০-২৬০ টি ডিম পাড়ে। অল্প দিনে বেশী লাভ করা যায় এই কোয়েল পাখি পালন করে।

#৫১ ছাগলের খামার ব্যবসা – Goat farm business

আমাদের দেশে বিশেষ করে গ্রাম গঞ্জে কেউ কেউ ছাগল পালন করে থাকে। আপনি যদি ১০০ ছাগল পালন করতে পারেন তবে বছরে প্রায় ২৫ লক্ষ টাকা আয় করা যায়। যা সব খরচ বাদ দিয়ে প্রতি বছর ১৫ লক্ষ টাকা লাভ করা যায়।

ছাগল পালন শুরু করার অনেক কারন ও সুবিধা রয়েছে। পড়ুন যে ১৩ কারণে ছাগল পালন খামার ব্যবসা শুরু করবেন

#৫২ খরগোশ পালন

অল্প পুঁজিতে স্বাবলম্বী হওয়ার উপায় খুঁজছেন? শুরু করুন খরগোশ পালন ব্যবসা। আমাদের দেশে সাধারনত খরগোশ শখের বা পোষা প্রাণী হিসেবে পালন করে থাকে। অল্প পুঁজিতে খুব সহজেই এই খরগোশ পালন ব্যবসা শুরু করা যায়।

ঘরের কোন এক কোনে, ছাদের উপর, বা পতিত জমিতে খরগোশ পালন শুরু করা যায়। ছাএ-ছাএী, গৃহবধু, যে কেউ এই ব্যবসা শুরু করে স্বাবলম্বী হতে পারেন।

#৫৩ ফুল চাষ ব্যবসা

ফুল ভালবাসে এমন মানুষ খুবই কম আছে। বাড়িত পতিত জমিতে শুরু করে লাভ বুজে আস্তে আস্তে এই ব্যবসা পরিধি বাড়াতে পারেন। আমাদের দেশে ফুল চাষ সাধারনত শীতে বেশী হয়। তবে এর চাহিদা সারা বছরই লেগে থাকে।

১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২১ই ফেব্রুয়ারি, সহ সারাবছর নানা উপলক্ষে ফুলের ব্যবহার হয়। কাউকে শুভেচ্ছা জানানো থেকে শুরু করে ঘর সাজাতে ফুলের ব্যবহার রয়েছে।

#৫৪ সবজি চাষ

সবজি চাষ একটি অল্প পুঁজির ব্যবসা সবজি চাষের জন্য রোদ পড়ে এমন জায়গা খুঁজে বের করতে হবে। বাণিজ্যিক ভাবে সবজি চাষ করে নিজদের চাহিদা মিটিয়ে বাজারে বিক্রি করে আয় করা যায়।

তবে এই ব্যবসায় সফলতা পেতে হলে আগাম সবজি চাষ করতে হবে। ধরুন আপনি লাউ চাষ করতে চান। বাজারে লাউের সরবরাহ বাড়ার আগেই আপনাকে লাউের যোগান দিতে হবে। এতে আপনি অন্য ব্যবসায়ীদের চেয়ে অনেক এগিয়ে থাকবেন।

#৫৫ মাছ ও হাঁস চাষ

এক সাথে দুইয়ের চাষ। এর নাম মাছ ও হাঁস চাষ কম পুঁজিতে এই ব্যবসাটি শুরু করা যায়। এর জন্য দরকার একটি পুকুর। পুকুরের পানিতে মাছ চাষ হবে এবং পুকুরের উপরে ঘর বানিয়ে হাঁস চাষ হবে।

হাঁসের বিষ্ঠা মাছের খাবারের যোগান দিবে এবং হাঁস পানিতে সাঁতার কাটলে পানিতে অক্সিজেন বাড়বে। হাঁস থাকার জন্য উপযুক্ত বাসস্থান নিশ্চিত করতে হবে।

এছাড়া খামারে হাঁসের খাবারের গুরুত্ব বুজতে হবে এবং সহজে উপায়ে খাবার বানানোর নিয়ম জানতে হবে।

#৫৬ মাছের ঘের

মাছের ঘের সাধারনত অগভীর জলাশয় যেখানে বাণিজ্যিক ভাবে মাছের চাষ করা হয়। আমাদের দেশে মাছের ঘের ব্যবসা বহুল পরিচিত ও লাভজনক ব্যবসা। সাধারন পতিত জমি বা ধানি জমিতে অগভীর ভাবে মাটি খনন করে মাছের ঘরে বানানো হয়।

বিভিন্ন প্রজাতির মাছ চাষের পাশাপাশি ঘেরের আইলে সবজি চাষ, কলা চাষ, লেবু চাষ করা হয়। রোদ পড়ে এমন জায়গা ঘের করার জন্য উত্তম। পরিশ্রম ও মেধা এই ব্যবসার অন্যতম মূলধন।

#৫৬ মাছের খাদ্য তৈরির ব্যবসা

মাছের খাবার তৈরি লাভজনক ব্যবসা। বাণিজ্যিকভাবে যাঁরা মাছ চাষ করে তারাই আপনার গ্রাহক হবে। এছাড়া নিজের মাছের ঘের থাকলে খুব সহজেই মাছের খাদ্য তৈরি করে খরচ কমাতে পারবেন।

#৫৭ গরু মোটাতাজাকরণ ব্যবসা

মাংস উৎপাদনের জন্য গরুর খামার হতে পারে আয়ের মাধ্যম। পার্ট-টাইম ব্যবসা হিসাবে এই ব্যবসা একটি লাভজনক ব্যবসা। কম সময়ের জন্য গরু কিনে ভালোভাবে যত্ন নিয়ে মোটাতাজা করে পুনরায় বিক্রি করে মুনাফা পাওয়া যায়। পড়ুন – যেভাবে গরু মোটাতাজাকরণ ব্যবসা শুরু করতে হয়

#৫৮ ডেইরী খামার – Dairy farm

দুধ উৎপাদনের জন্য গরুর খামার আরেকটি লাভজনক বিজনেস আইডিয়া।

দুগ্ধ খামার স্থাপনের জন্য সঠিক স্থান নির্বাচন করতে হবে। ডেইরী ফার্ম ব্যবসা শুরু করার অনেক সুবিধা ও কারন রয়েছে।

আমরা ডেইরী ফার্ম ব্যবসা শুরু করার ৭ কারন খুঁজে পেয়েছি। এই কারন গুলো আপনাকে এই ব্যবসা শুরু করতে উৎসাহ দিবে। 

অবশ্যই পড়ুন – যেভাবে সফলভাবে ডেইরী ফার্মের ব্যবসা শুরু করবেন

#৫৯ লেয়ার মুরগি পালন – Layer Farming Business

ডিম উৎপাদনের জন্য লেয়ার মুরগির খামার একটি লাভজনক ব্যবসা। এটি এমন একটি ব্যবসা যা প্রথমে অল্প টাকা বিনিয়োগে শুরু করা যায় এবং পরবর্তীতে বিনিয়োগকৃত টাকার পরিমাণ বাড়ানো যায়। লেয়ার মুরগি পালন ব্যবসা শুরু করার আগে পোলট্রি ফার্ম পরিচালনা কি ভাবে করতে হয় তা জেনে নিতে হবে।

#৬০ ব্রয়লার মুরগি ব্যবসা (Broiler Chicken Business)

ব্রয়লার মুরগি পালন লাভজনক ব্যবসা হলেও মাঝে মাঝে দর উঠানামা করে। তাই আপনাকে প্রথমে মার্কেট যাচাই করে এই ব্যবসা শুরু করতে হবে। কেননা ব্রয়লার মুরগি ব্যবসায় যেমন লাভও বেশী তেমনি লসেরও সম্মুখীন হতে পারেন।

আপনি যদি নির্দিষ্ট একটি গ্রাহক শ্রেনী পান তবে এই ব্যবসা করে বেশ লাভবান হওয়া যায়। এরকম হতে পারে আপনি প্রতি মাসে ২০০ কেজি মাংস একটি হোটেলে সরবরাহ করতে হবে। আবার ১০০ কেজি মাংস কোন রেস্টুরেন্টে দিতে হবে। তাই এই রকম গ্রাহক খুঁজে ব্রয়লার মুরগি পালন ব্যবসা শুরু করুন।

বিস্তারিত জানুন – মাংস উৎপাদন করার জন্য ব্রয়লার মুরগির খামার

আসুন এবার কিছু খুচরা ও পাইকারি ও অন্যান্য ব্যবসার ধারনা খুঁজে বের করি।

#৬১ মাটির গয়না তৈরী ব্যবসা

প্রায় সব শ্রেনীর নারীদের মধ্যে মাটির গয়নার প্রতি আকর্ষণ রয়েছে। এটি একটি ছোট ব্যবসা তবে সৃষ্টিশীল দক্ষতার দরকার আছে। কম টাকা দিয়ে ব্যবসাটি শুরু করা গেলেও পরিচালনা করতে এবং গ্রাহক পেতে অনলাইনে প্রচার ও প্রচারনা করতে পারেন বিশদভাবে জানুন – মাটির গয়না তৈরি ব্যবসা কিভাবে শুরু করবেন

#৬২ টি-শার্ট ব্যবসা (T-shirt Business)

টি-শার্ট আমাদের পোশাক পরিচ্ছেদের মধ্যে বহুল ব্যবহৃত পোশাক। ছেলেদের পাশাপাশি মেয়েরাও টি-শার্ট পরিধান করে। এই ব্যবসার মূল আকর্ষণ হচ্ছে ডিজাইন। কারন টি-শার্টের ডিজাইনের উপর গ্রাহকের ভালোলাগা কাজ করে। বিস্তারিত জেনে নিন – যেভাবে টি শার্ট ব্যবসা শুরু করবেন

#৬৩ খেলাধুলার সামগ্রীর ব্যবসা (Sporting Goods Business)

খেলাধুলার সঙ্গে জড়িত পণ্য নিয়ে শুরু করুন খেলাধুলার সামগ্রী বিক্রির ব্যবসা। উপযুক্ত স্থানে দোকান নিতে হবে। সাধারনত তরুণ ছেলে মেয়েরাই এই ব্যবসার গ্রাহক হবে। ভাল ব্যবহার এবং আশেপাশের চেয়ে তুলনামূলক কম দাম এই ব্যবসাকে সফলতা এনে দিবে। আরও পড়ুন – ১০ টি স্পোর্টস ব্যবসা ধারণা

#৬৪ ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট ব্যবসা (Event management business)

ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট ব্যবসা একটি চ্যালেঞ্জিং ব্যবসা ক্ষেএ। শৈল্পিকতার ছোঁয়া ও সৃজনশীলতা এই ব্যবসার হাতিয়ার। এই ব্যবসায় নিজেকে প্রমাণের সুযোগ রয়েছে।

#৬৫ গিফট শপ ব্যবসা – Gift shop business

গিফট শপ ব্যবসা একটি চলমান এবং লাভজনক বিজনেস আইডিয়া। এই ব্যবসাটি একটু ধীর গতির হলেও ঝুঁকি নেই বললেই চলে। গ্রাহক নিজ দরকারে গিফট কিনতে আসে। ভালো ব্যবহার ও তুলনামূলক কম দাম সফলতাকে সহজ করে।

#৬৬ মুদির দোকান (Grocery Store)

আপনি জেনে হয়ত অবাক হবে যে, একটি মুদি দোকান থেকে মাসে ১ লক্ষ টাকা লাভ করা যায়। ভালো জায়গায় দোকান দিতে হবে। এছাড়া বাকী দেওয়া যাবে না। একদমই না, যদি দোকান নাও চলে তবুও না। জেনে নিন – সফলভাবে মুদি দোকান ব্যবসা শুরু করার সূত্র

#৬৭ লন্ড্রি ব্যবসা (The Laundry Business)

লন্ড্রি দোকান একটি ছোট সেবা মূলক ব্যবসা। জনবসতি বেশী এলাকা এই ব্যবসার জন্য আদর্শ জায়গা। অল্প টাকা দিয়ে লন্ড্রি ব্যবসা শুরু করা যায়। হোম ডেলিভারির ব্যবস্থা করলে বেশী গ্রাহক পাওয়া যেতে পারে।

দক্ষতা – কাপড় ইস্ত্রি করা জানতে হবে। গ্রাহকের সাথে ভালো ব্যবহার করতে হবে।

পড়ুন – ছোট ব্যবসা ব্যর্থ হওয়ার ৭ টি কারণ

#৬৮ সেলুন ব্যবসা (Salon Business)

খুচরা খাতে এই ব্যবসা অনেক এগিয়ে। একটি সেলুন ব্যবসা আয়ের অন্যতম সেরা পথ। প্রথম দিকে বিনিয়োগের পরিমাণ বেশী, পরবর্তীতে সাধারন খরচ। দোকানের লোকেশনের উপর সফলতা অনেকটা নির্ভর করে। বিস্তারিত পড়ুন – যেভাবে সেলুন ব্যবসা শুরু করবেন

#৬৯ ফলের জুসের দোকান (Fruit Juice Shop)

বাজারে জুসের অভাব নেই। অভাব আছে শুধু খাঁটি জুসের। আপনি এই সমস্যাকে সমাধারন করতে পারেন ফলের জুসের দোকান দিয়ে। এর জন্য ছোট একটি জায়গাই যথেষ্ট। ব্যস্ত রাস্তার মোড়ে, অফিস এলাকা, মার্কেটের সামনে ফলের জুসের দোকান দেওয়া যেতে পারে। এই ব্যবসার বড় মূলধন সততা।

#৭০ ইলেকট্রনিক্স সামগ্রী বিক্রি ব্যবসা

ইলেকট্রনিক্স সামগ্রী আমাদের প্রতিদিনের সঙ্গী। লাইট, ফ্যান, চাজার লাইট, টিভি, ফ্রিজ থেকে শুরু করে সকল ইলেকট্রনিক্স সামগ্রী বিক্রির দোকান দিতে পারেন। এছাড়া যেকোন একটি পণ্যের (শুধু ফ্রিজ) পসরা জানিয়ে শুরু করতে পারেন এই ব্যবসাটি।

ইলেকট্রনিক্স সামগ্রী বিক্রি ব্যবসার জন্য আপনার বড় স্পেস দরকার হবে। কেননা ছোট দোকানে আপনি সকল পণ্য রাখতে পারবেন না। ব্যবসাটি শুরু করার আগে যথেষ্ট মার্কেট যাচাই কর নিতে হবে। পড়ুন – ইলেকট্রনিক্স পণ্যের সার্ভিসিং ব্যবসা

#৭১ জিম বা ব্যায়ামাগার ব্যবসা

সাস্থ্যই সম্পদ! এই স্লোগানকে সামনে রেখে শুরু করুন জিম বা ব্যায়ামাগার ব্যবসা। নিজ এলাকা বা যেকোন এলাকায় একটু বড় স্পেস ভাড়া নিয়ে ব্যায়ামাগার খুলতে পারেন। মানুষজন সাধারনত মাস হিসাবে আপনার জিমে টাকা প্রদান করবে। এছাড়া ভর্তিতে এক কালীন কিছু টাকা ধার্য করতে পারেন। ব্যায়াম করানোর জন্য দক্ষ লোক নিয়োগ  দিতে হবে।

#৭২ বিউটি পার্লার ব্যবসা (Beauty Parlor Business)

বিশেষ করে মহিলা উদ্যোক্তাদের জন্য এটি একটি উত্তম ব্যবসা ক্ষেএ। বিশেষ করে তরুনী থেকে শুরু করে মধ্য বয়সী মহিলারা এই ব্যবসার গ্রাহক। আরও পড়ুন – যেভাবে বিউটি পার্লার ব্যবসা শুরু করবেন

#৭৩ বনসাই বিক্রি ব্যবসা (Bonsai Business)

এ যেন জীবন্ত শিল্পের এক উদাহরন বনসাই গাছ। অফিস বা বাসা সাজাতে অনেক সখ করে বনসাই গাছ কিনে থাকে। আপনি চাইলে খুব সহজেই এই ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন। কিভাবে শুরু করবেন এই ব্যবসা তা বিস্তারিত জানেন- যেভাবে বনসাই গাছের ব্যবসা শুরু করবেন

#৭৪ মা ও শিশুর ব্যবহার্য সামগ্রী বিক্রি দোকান ব্যবসা

একটি লাভজনক ব্যবসার ধারনা মা ও শিশুর ব্যবহার্য সামগ্রী বিক্রি দোকান ব্যবসা। হাসপাতাল এলাকায় এই ব্যবসা ভাল চলবে। এছাড়া শপিং সেন্টারের একটি দোকান ভাড়া নিয়ে এই ব্যবসাটি করা যেতে পারে। এই ব্যবসার বিশেষ দিক হলো, এক দোকানে মা ও শিশুর সকল পণ্য পাওয়া যাবে।

#৭৫ ঔষুধের দোকান বা ফার্মেসি ব্যবসা

ফার্মেসি ব্যবসা একটি জমজমাট ও লাভজনক ব্যবসার আইডিয়া। ফার্মেসি ব্যবসা শুরু করতে হলে যথাযথ অনুমতি নিয়ে ব্যবসা করতে হবে। এই ব্যবসার জন্য স্থান নির্বাচন খুবই গুরুত্বপূর্ণ। বিশদ ভাবে জানুন – How to Start a Pharmacy Business

#৭৬ লেপ-তোষকের দোকান ব্যবসা

ধীর গতির এই ব্যবসায় লসের সম্ভবনা খুবই কম। লেপ-তোষক আমাদের সবার নিত্যদিনের ব্যবহার্য সামগ্রী। জানুন- যেভাবে লেপ-তোষকের দোকান ব্যবসা শুরু করতে হয়

#৭৭ বেল্ট বানানোর কারখানা (Belt Factory)

বেল্ট পুরুষের একটি ব্যবহার্য পণ্য। বাজারে এই পণ্যের বেশ চাহিদা রয়েছে। অল্প টাকায় যদি আপনি উৎপাদনমুখী ব্যবসা শুরু করতে চান তবে বেল্ট বানানোর কারখানা দিতে পারেন। এর জন্য যথাযথ অভিজ্ঞতা ও দক্ষতা থাকতে হবে।

#৭৮ বাজারের ব্যাগ বানানোর ব্যবসা

কম টাকা দিয়ে আরেকটি উৎপাদনমুখী ব্যবসার নাম বাজারের ব্যাগ। চটের রোল কিনে সাইজ মত কেটে সেলাই দিয়ে বাজারের ব্যাগ বানানো হয়। ব্যাগ বানানোর পরে লোক নিয়োগ দিয়ে মার্কেটিং করতে হবে। একটি বাজারের ব্যাগ বানাতে খরচ হয় ৪ থেকে ৫ টাকা যা সেল হয় ৭ থেকে ৮ টাকা।

#৭৯ গাড়ি ঠিক করার গ্যারেজ ব্যবসা (Car Garage)

অটোমোবাইল গ্যারেজ ব্যবসা একটি লাভজনক ব্যবসা। এই ব্যবসা সাধারনত সেবা মূলক ব্যবসা। গাড়ি ঠিক করার কাজ করার পাশাপাশি গাড়ির বিভিন্ন পার্টস বিক্রি করতে পারেন। এই ব্যবসায় অভিজ্ঞতা থাকা চাই।

#৮০ বাড়ি ঘর রঙ করার এজেন্সি

নতুন বাড়ী বানালে আমরা সাধারনত রঙ করে থাকি। এছাড়া ৪/৫ বছর পর পর বাড়ি ঘর রঙ করার দরকার হয়। বাড়ীর মালিকের জন্য রঙের মিস্ত্রি খুঁজে বের করা কষ্টসাধ্য এবং তাদের দিয়ে কাজ করানো যথেষ্ট জামেলার। তাই এই সমস্যাকে সমাধান দিতে পারেন আপনি।

বাড়ি ঘর রঙ করার এজেন্সি খুলে দক্ষ লোক নিয়োগ দিয়ে এই ব্যবসা চালাতে পারেন। বাড়ির মালিক সরাসরি আপনার সাথে যোগাযোগ করবে এবং আপনার কর্মচারী রঙের কাজ করবে। ব্যবসাটি ভালোভাবে চালতে পারলে লাভবান হওয়া সম্ভব। প্রথম দিকে গ্রাহক পেতে আপনাকে মার্কেটিং করতে হতে পারে।

#৮১ আর্টিফিশিয়াল ফুল ও গাছের ব্যবসা (Artificial flowers)

ঘর সাজারে আর্টিফিশিয়াল ফুল ও গাছের ব্যবহার লক্ষনীয়। একটি দোকান নিয়ে এই ব্যবসা করতে পারেন। পাইকারি বাজার থেকে মালামাল কিনে খুচরা  বাজারে বিক্রি করতে হবে। লাভের দিক থেকে এই ব্যবসা সেরা। সাধারনত ২৫ থেকে ৩৫ ভাগ লাভ করা যায়।

#৮২ কমিউনিটি সেন্টার ব্যবসা (Community center business)

একবার বড় বিনিয়োগ করলে এই সুফল অনেক বছর পাওয়া যায় এই ব্যবসায়। কমিউিনিটি সেন্টারে সাধারনত বিয়ে, বৌভাত, জন্মদিন, বিভিন্ন পার্টির ব্যবস্থা করা হয়। এই ব্যবসা নিয়ে আমাদের একটি বিস্তারিত আর্টিকেল আছে। আপনি চাইলে এখানে পড়তে পারেন-  যেভাবে কমিউনিটি সেন্টার ব্যবসা করবেন

#৮৩ ছোট আকারে সুপার শপ (Small Scale Super shop)

একটি সুপার শপে সাধারনত প্রতিদিনের ব্যবহৃত সকল পণ্য বিক্রি করা হয়। খাবার থেকে শুরু করে পুতুল পর্যন্ত বিক্রি করা হয়। আপনার বাজেট যদি কম থাকে তাহলে ছোট আকারে একটি সুপার শপ খুলতে পারেন।

জানুন – যেভাবে ছোট পরিসরে সুপার শপ ব্যবসা শুরু করবেন

#৮৪ ডে কেয়ার সেন্টার (Day care center)

ডে কেয়ার সেন্টার একটি সেবাদানকারি প্রতিষ্ঠান। সাধারনত ডে-কেয়ারে বাচ্চাদের দেখাশুনার পাশাপাশি লেখাপড়া করানো হয়। ডে কেয়ারে বাচ্চারা সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত থাকে। ব্যস্ত বাবা-মা তাদের সন্তানকে ডে কেয়ার রেখে তাদের সারাদিনের কাজ করে থাকেন। আপনি যদি এই ব্যবসাটি শুরু করতে চান তবে এখানে পড়ুন – যেভাবে ডে কেয়ার সেন্টার ব্যবসা শুরু করতে হয়

#৮৫ স্টেশনারী দোকান ব্যবসা (Stationery Store Business)

আমি স্টেশনারী দোকান দশে সাড়ে আট দিব। লাভের দিক বিবেচনা করলে শতকরা ২৫ ভাগ লাভ করা যায়। ভালো লোকেশন এই ব্যবসায় সাফল্য এনে দেয়। পড়ুন – স্টেশনারি ব্যবসা কি লাভজনক?

#৮৬ রিসোর্ট ব্যবসা (Resort Business)

আপনি যদি পর্যটন শিল্পে ব্যবসা করতে চান তবে শুরু করুন রিসোর্ট ব্যবসা। প্রথমে বড় বিনিয়োগের দরকার হয়। পরবর্তীতে তেমন বড় বিনিয়োগের দরকার হয় না। গ্রাহক পেতে অনলাইনে বিজ্ঞাপন দিতে পারেন। আপনার যদি পর্যটন শিল্পে আরও বিজনেস আইডিয়া দরকার হয় তাহলে এই লেখাটি পড়ুন – আতিথেয়তা এবং পর্যটন ব্যবসা ধারণা

#৮৭ ফ্লাট ক্রয়-বিক্রয় ব্যবসা (Flat Buy Sell Business)

বড় বিনিয়োগের ব্যবসা করতে চাইলে শুরু করুন ফ্লাট ক্রয়-বিক্রয় ব্যবসা। এই ব্যবসায় সাফল্য পেতে চাইলে আপনাকে দেখে শুনে বিনিয়োগ করতে হবে। একটি ফ্লাট কেনার পরে তা আবার বিক্রি করতে হবে। আপনি চাইলে রেডি ফ্লাট কেনা বেচা করতে পারেন বা আপনি এজেন্ট হিসাবেও কাজ করতে পারেন।

যেহেতু বিনিয়োগ বেশী তাই লাভ ও লস উভয়ই বেশী। আপনি যদি এই ব্যবসাটি সম্পর্কে আগ্রহী হয়ে থাকেন তবে এই আর্টিকেলটি পড়ুন- যেভাবে ফ্ল্যাট ক্রয় বিক্রয় ব্যবসা শুরু করবেন

#৮৮ হেলমেট ব্যবসা (Helmet Business)

হেলমেট ছাড়া মোটর সাইকেল চালানো যায় না। প্রতিদিন নতুন নতুন গ্রাহক শত শত মোটরসাইকেল কিনছে। আপনি এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে শুরু করুন হেলমেট বিক্রির ব্যবসা।

দোকান দিয়ে এই ব্যবসা করা যায় এবং অনলাইনেও হেলমেট বিক্রি করা যেতে পারে। তাছাড়া আপনি নিজে হেলমেট বানিয়ে হোলসেলে বেচতে পারেন।

জেনে নিন – যেভাবে হেলমেট তৈরী ব্যবসা শুরু করবেন

#৮৯ স্টুডিও ভাড়া দিয়ে আয় করুন (Studio Rentals Business)

বর্তমান এই অনলাইন যুগে অডিও ও ভিডিও ব্যবহার সম্পর্কে আপনি অবগত আছেন। আমাদের মধ্যে অনেক মানুষ আছে যাদের অডিও ও ভিডিও করার মত ভালো মানের স্টুডিও নেই। আপনি এই সমস্যা সামধান দিতে পারেন।

একটি ভালো মানের স্টুডিও বানিয়ে ভাড়া দিতে পারেন। ঘন্টা ও দিন হিসাবে ভাড়া দেওয়া যেতে পারে। এর জন্য একটি নিঃশব্দ রুম থাকা যাই।

ভালো মানের মাইক, ক্যামেরা, ও আলোর ব্যবস্থা করতে হবে। এটি একটি Passive Income এর মাধ্যম হতে পারে। গ্রাহক পেতে ফেসবুকে বিজ্ঞাপন দিতে হতে পারে।

অবশ্যই পড়বেন – যে ৮ কারনে ব্যবসা সফল নাও হতে পারে

#৯০ ব্যবসা পরার্মশ কেন্দ্র (Business consulting center)

ব্যবসা পরার্মশ কেন্দ্র একটি ইউনিক ব্যবসার ধারনা। আপনি যদি ব্যবসায় অভিজ্ঞ হয়ে থাকেন এবং ব্যবসা করতে প্রয়োজনীয় ধাপ গুলো বুজে থাকেন তবে শুরু করুন ব্যবসা পরার্মশ কেন্দ্র। নতুন উদ্যোক্তরা আপনার গ্রাহক হবে।

#৯৪ প্রি-স্কুল (Pre-School)

আপনি যদি ছোট বাচ্চাদের সাথে সময় পার করার পাশাপাশি একটি ব্যবসা করতে চান হবে শুরু করুন প্রি-স্কুল। একটি প্রি-স্কুলে সাধারনত ৩/৪ বছরের বাচ্চারা খেলতে খেলতে নানা জিনিস শিখে, যা তাদের পরিবর্তী স্কুল জীবনে কাজে লাগে। প্রি-স্কুলের জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিতে হবে।

#৯২ ক্রিকেট একাডেমী (Cricket Academy)

আমাদের দেশ ক্রিকেট পাগল দেশ। এখন একজন ক্রিকেটার শুধু খেলোয়াড়ই নন, একজন সেলিব্রিটিও বটে। ক্রিকেট একাডেমী একটি লাভজনক ব্যবসা ক্ষেএ। ভালো মানের কোচ নিয়োগ দিয়ে শুরু করুন আপনার ক্রিকেট একাডেমী। বিজ্ঞাপন অধিক গ্রাহক পেতে সাহায্য করবে।

#৯৩ খাঁটি ঘি বানিয়ে বিক্রি করুন

বাজারে ঘির অভাব না থাকলেও খাঁটি ঘির অভাব বেশ লক্ষনীয়। আপনি চাইলে বাসায় খাঁটি ঘি বানিয়ে মুদি দোকানে, সুপার শপে বিক্রি করতে পারেন। এছাড়া খুচরা গ্রাহক পেতে অনলাইনেও ঘি বিক্রি করতে পারেন। সততা এই ব্যবসাকে সফল করবে।  

#৯৪ দর্জিবাড়ী ব্যবসা

দর্জিবাড়ী বা টেইলাস ব্যবসা একটি লাভজনক বিজনেস আইডিয়া যা খুব অল্প টাকায় শুরু করা যায়। একটি দোকান ভাড়া নিয়ে অনাহাসে এই ব্যবসাটি করা যেতে পারে। আপনি চাইলে ঘরে বসেও দর্জিবাড়ী ব্যবসা করতে পারেন। এই ব্যবসায় আগ্রহী হলে এই আর্টিকেলটি পড়ুন – যেভাবে দর্জিবাড়ী ব্যবসা শুরু করতে হয়

#৯৫ গুড়া মসলার ব্যবসা

ভালো মানের মসলা কিনে তা গুড়ো করে প্যাকেটজাত করে এই ব্যবসাটি করা যেতে পারেন। নির্দিধায় এই ব্যবসা লাভজনক। মার্কেটিং এ দক্ষ হলে এই ব্যবসায় সহজেই সফল হওয়া যায়। এই ব্যবসা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পড়ুন – গুড়া মসলা তৈরী ব্যবসা শুরু করবেন

#৯৬ মাটি ও পাথরের গয়না

মাটি পাথর ও সৃজনশীলতা এই তিন মিলিয়ে শুরু করুন নিজের বানাণো গয়না ব্যবসা। কোন মূলধন ছাড়া বা খুব সামান্য মূলধন নিয়ে এই ব্যবসা করতে পারেন। কিভাবে মাটি ও পাথর দিয়ে গয়না বানাতে হয় তা জানতে হবে। গয়না বানানোর পরে তা মার্কেটিং করতে হবে। এই ব্যবসা আপনি সাইড ব্যবসা হিসাবেও বিবেচনা করতে পারেন।

#৯৭ বিবাহের গাড়ি সাজিয়ে আয়

নতুন জামাই গাড়ি নিয়ে বিয়ে করতে যাবে আর তা সাজানো থাকবে না তা কেমন করে হয়? সৃজনশীলতা ও ফুল দিয়ে খুব সহজেই একটি গাড়ি সাজানো যায়। আপনার সেরা ডিজাইনের ছবি তুলে তা মার্কেটিং করতে পারেন অনলাইনে। এই পদ্ধতি নতুন নতুন গ্রাহক পেতে সাহায্য করবে।

#৯৮ ড্রাইভিং স্কুল (Driving School)

ড্রাইভিং স্কুল মানে আপনি অন্য একজন কে ড্রাইভিং শিখাতে সাহায্য করবেন এবং তার বিনিময়ে টাকা আয় করবেন। মূলত এটি একটি চুক্তি ভিত্তি কাজ। এই ব্যবসা শুরু করতে হবে আপনার একটি গাড়ি থাকা চাই, তা হতে পারে নিজের গাড়ি বা ভাড়া গাড়ি।  

পড়ুন – ড্রাইভিং স্কুল ব্যবসা শুরু করবেন যেভাবে

#৯৯ জেনারেটর সেবা প্রদাণ ব্যবসা

সেবামূলক এই ব্যবসা বেশ লাভজনক। বড় শহরে আপনি এই ব্যবসা না করে ছোট শহর বা মফস্বলে করতে পারেন। জেনারেটর সেবা প্রদাণ ব্যবসা করতে প্রথম দিকে বড় বিনিয়োগের দরকার হয়। পরে শুধু তেল কেনা ও লাইনম্যানের জন্য টাকা খরচ করতে হয়।

#১০০ নির্মাণ সামগ্রী বিক্রি ব্যবসা

১০০তম লাভজনক বিজনেস আইডিয়ায় আপনাকে স্বাগতম। আপনাকে ধন্যবাদ কারন আপনি ইতিমধ্যে ৯৯ টি ব্যবসার ধারনা পড়ে নিয়েছেন। মানে আপনি ৬১০২ টি শব্দ পড়েছেন।

নির্মাণ সামগ্রী বিক্রি ব্যবসা শুরু করতে পূর্ব অভিজ্ঞতার দরকার হয়। এর জন্য বড় স্পেস বা জায়গা দরকার হয়। রট, বালু, সিমেন্ট ইত্যাদি হবে আপনার পণ্য।

#১০১ স্কুল ব্যাগ ব্যবসা (School Bag Business)

বাজারে একটি দোকান নিয়ে পাইকারি দামে স্কুল ব্যাগ কিনে এই ব্যবসাটি শুরু করা যায়। এছাড়া নিজ উদ্যোগে স্কুল ব্যাগ বানাতে পারেন। পড়ুনঃ স্কুল ব্যাগ তৈরী ব্যবসা শুরু করবেন যেভাবে

#১০২ আতর টুপি জায়নামাজ বিক্রি ব্যবসা

ছোট একটি দোকান ভাড়া নিয়ে আপনি খুব সহজেই আতর টুপি জায়নামাজ বিক্রি করতে পারেন। গ্রাহক তা নিজ দরকারে পণ্য কিনতে আসবে। এই ক্ষেএে মার্কেটিং এর দরকার হয় না। তবে ভালো লোকেশন ও ভালো ব্যবহার ব্যবসাটিকে সফল করবে।

#১০৩ পাঞ্জাবী ব্যবসা

ছেলেদের অন্যতম পছন্দের পোশাক পাঞ্জাবী। ঈদের সময় পাঞ্জাবীর চাহিদা বেশি থাকলেও সারা বছর কম বেশি পাঞ্জাবী বিক্রি হয়। পণ্যের মানের সাথে দাম ঠিক থাকলে একই গ্রাহক বার বার আসবে।

#১০৪ জিন্স প্যান্ট ব্যবসা

জিন্স প্যান্ট ব্যবসা একটি লাভজনক ব্যবসা যা শুরু করতে অনেক বড় দোকানে দরকার হয় না। ছেলেদের পাশাপাশি মেয়েদের জিন্স প্যান্টও বিক্রি করতে পারেন।

#১০৫ শার্ট ব্যবসা

পাইকারি দামে শার্ট কিনে এই ব্যবসা করা যায়। আপনি চাইলে কারখানা থেকে নিজের কোম্পানির নামে শার্ট বানাতে পারেন। নিজের ব্র্যান্ড খোলার সুযোগ রয়েছে এই ব্যবসায়। 

এখনই পড়ে নিন – ফ্যাশন হাউস ব্যবসায় যে ধরনের নাম ব্যবহার করা উত্তম

#১০৬ এ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস

এটিকে শুধু ব্যবসা হিসাবে বিবেচনা করা যাবে না। এ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস একটি সেবা। মানুষ বিপদে পড়লে এ্যাম্বুলেন্স খবর দেয়। কিছু অসাধু ব্যবসায়ী এই বিপদকে পুঁজি করে ব্যবসা করতে চায়। আপনি যদি এই ব্যবসা শুরু করেন আপনার কাছে আমার অনুরোধ থাকবে অযথা বেশী মূল্য নিবেন না। 

পড়ুন – একজন সফল ব্যবসায়ী ১৪ টি আদর্শ গুণাবলী

#১০৭ ভ্রমনকারীর ছবি তুলে আয় করুন

পর্যটন শিল্পে আরেকটি ছোট ব্যবসার নাম ভ্রমনকারীর ছবি তুলে আয়। একটি ভালো মানে ক্যামেরা ও ছবি তোলার দক্ষতা থাকা চাই। কাজ শুরু করার আগেই আপনাকে কত টাকা দিতে হবে তা ঠিক করে নিন।

#১০৮ ভ্রমন ইউটিউব চ্যানেল দিয়ে টাকা আয় করুন

আপনি যদি ভ্রমন করতে পছন্দ করেন তবে আজ থেকে শুরু করুন ভ্রমন ইউটিউব চ্যানেল। নিজের বানানো ভিডিও দিয়ে আয় করুন ইউটিউব থেকে।

#১০৯ চাইনিজ রেস্টুরেন্ট ব্যবসা 

চাইনিজ রেস্টুরেন্ট ব্যবসায় বিনিয়োগ বেশী লাগলেও লাভও বেশী। সুন্দর ডেকারেশন, মানসম্মত খাবার, কাস্টমার সার্ভিস এই ব্যবসাকে সফল করে। চাইনিজ রেস্টুরেন্ট ব্যবসা শুরু করা আগে সঠিক ভাবে ব্যবসা পরিকল্পনা রেডি করতে হবে। পড়ুন – ব্যবসা জন্য সঠিক ব্যবসা পরিকল্পনা লিখতে হয় যেভাবে

#১১০ জমি কেনা বেচা ব্যবসা (Land Buy Sell Business)

জমি কেনা বেচা বেশ পুরাতন ব্যবসা হলেও এখনও এর চাহিদা আকাশচুম্বী। বর্তমানে যেই জমির দাম কম এবং ভবিষ্যতে দাম বাড়বে সেই জমি কিনতে হবে।

এমনটি হতে পারে আপনি একটি পুকুর সহকারে জমি কিনলেন, পরে বালু দিয়ে ভর্তি করে আবার পুনরায় বিক্রি করলেন। এতে লাভের পরিমান অনেক গুন বেড়ে যায়।

#১১১ ভ্রাম্যমান কফি শপ (Mobile Coffee Shop)

কম খরচে একটি ফুড কার্ট বানিয়ে ভ্রাম্যমান কফি শপ ব্যবসা শুরু করা যায়। সাধারন কফি শপ একটি স্থায়ী জায়গার উপর ভিত্তি করে ব্যবসা করে থাকে। অন্যদিকে ভ্রাম্যমান কফি শপ বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে ঘুরে ব্যবসা করে। অল্প বিনিয়োগে এই ব্যবসায় লাভ বেশী।

#১১২ ভ্রাম্যমান ক্রোকারিজ পণ্যের দোকান

একটি ছোট পিকআপ ভাড়া নিয়ে না কিনে শুরু করুন ভ্রাম্যমান ক্রোকারিজ পণ্যের দোকান। যেখানে লোক সমাগম বেশী সেই স্থানে আপনার এই ব্যবসা ভালো চলবে।

#১১৩ গাড়ি ভাড়া ব্যবসা (Rent-a-Car Business)

গাড়ি ভিত্তিক ব্যবসা করতে চাইলে আপনার গাড়ি ভাড়া দিয়ে আয় করুন। বর্তমানে উবার, পাঠাও এ গাড়ি ভাড়া দিয়ে একটি বাড়তি পথ বানাতে পারেন। যারা ট্রান্সপোর্ট বা পরিবহন ব্যবসা করতে চান তাদের জন এই ১০ টি ব্যবসার ধারনা।

#১১৩ বাচ্চাদের জন্মদিন পরিকল্পনা ব্যবসা

ছোট সোনামনিদের জন্য কাজ করতে চাইলে শুরু করুন জন্মদিন পরিকল্পনা ব্যবসা। অনেক বাবা মা তাদের সন্তানের জন্মদিন মনে রাখার মত করে করতে চায়।

আপনি বিভিন্ন প্যাকেজ সাজিয়ে এই স্মার্ট ব্যবসাটি করতে পারেন। মূলত এই ব্যবসায় তেমন কোন বিনিয়োগের দরকার হয় না। গ্রাহক পেতে বিজ্ঞাপনের জন্য টাকা খরচ করতে হবে।

আপনার যেই পার্টিতে বেশ ভালো অভিজ্ঞতা হয়েছে তা সোসাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারেন। এতে মানুষজন আপনার ব্যবসা সম্পর্কে আরো ভালো ধারনা পাবে।

জন্মদিন পরিকল্পনার মধ্যে বিভিন্ন কুইস, খেলা, সহজ ধাঁধা ও উত্তর রাখতে পারেন।  এছাড়া ছবি, ভিডিও সেবা রাখা যায়।

#১১৪ পিকনিকের জন্য জায়গা ভাড়া

আপনার যদি কোন খালি জমি থেকে থাকে তাহলে পিকনিকের জন্য জায়গা ভাড়া দিতে পারেন। এর জন্য জায়গাটি বড়, খোলা মেলা, রান্নার করার ব্যবস্থা থাকতে হবে। আপনি যদি এই ব্যবসা নিয়ে বিশদ ভাবে জানতে চান তবে এই আর্টিকেলটি পড়ুন – যেভাবে পিকনিক স্পট ভাড়া দিয়ে ব্যবসা করা যায়

#১১৫ আগুন নিবারক পণ্যের ব্যবসা

সম্প্রতি আগুনের ভয়াবহতা আমাদের সবার জানা। এই ব্যবসার জন্য দোকান ভাড়া নিতে হবে। আগুন নিবারক বিভিন্ন পণ্য বিক্রি করতে হবে। বর্তমানে এই ব্যবসাটি বেশ চলমান ও লাভজনক।

#১১৬ বাংলায় ফ্যাশন ব্লগ

বাংলায় একটি ফ্যাশন ব্লগ হতে পারে আয়ের মাধ্যম। পাঠকদের জন্য ফ্যাশন ভিত্তিক বিভিন্ন লেখা লিখে ফ্যাশন ব্লগ দিয়ে আয় করতে পারেন। এই সেক্টরে এখনো প্রতিদ্বন্দ্বিতা তেমন গড়ে উঠেনি।

#১১৭ বাংলায় স্বাস্থ্য ব্লগ

ফ্যাশন ব্লগের চেয়ে স্বাস্থ্য ব্লগ থেকে বেশী টাকা আয় করা যায়। এর জন্য আপনাকে অন্যের সাহায্য নিতে হতে পারে। কিভাবে ওজন কমানো যায়, কোন খাবারে কি ভিটামিন এই জাতীয় আর্টিকেলের বেশ চাহিদা আছে।

#১১৮ গাড়ির পার্টস ব্যবসা

অভিজ্ঞতা এই ব্যবসাকে সফল করে। গাড়ির পার্টস ব্যবসা একটি লাভজনক ব্যবসা। গ্রাহকের সাথে সুসম্পর্ক থাকলে একই গ্রাহক বার বার আসে।

#১১৯ গাড়ি ধোয়া ব্যবসা

অল্প পুঁজিতে অধিক লাভ এই গাড়ি ধোয়ার ব্যবসায়। আপনি নিজে বা কিছু কর্মী রেখে এই ব্যবসা চালাতে পারেন। বিস্তারিত পড়ুন – যেভাবে গাড়ি ধোয়ার ব্যবসা শুরু করবেন

#১২০ বাসা বাড়ীর নিরাপত্তা ভিত্তিক ব্যবসা

এখন সকলেই নিরাপত্তা নিয়ে বেশ সচেতন। আপনি যদি নিরাপত্তা ভিত্তিক ব্যবসা করতে চান তবে শুরু করুন সিসিটিবি ক্যামেরা ব্যবসা, সিকিউরিটি গার্ড সাপ্লাই, দেহরক্ষী সাপ্লাই, সুরক্ষা সম্পর্কিত ব্লগ ইত্যাদি। 

আমরা চেষ্টা করেছি সব থেকে লাভজনক ব্যবসা আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। এই ১২০টি লাভজনক বিজনেস আইডিয়া এর মধ্যে যেই ব্যবসাটি আপনার কাছে গ্রহনযোগ্যতা পেয়েছে তা নিয়ে গবেষণা করুন। হুট করে ব্যবসা শুরু না করে সঠিক ভাবে নিজেকে জানুন, আপনার ক্ষমতা ও দুর্বলতা কোথায় তা জেনে ব্যবসা শুরু করুন। আর্টিকেলটি ভালো লাগলে শেয়ার করতে ভুলবেন না।