যারা ফ্রিল্যান্সিং করেন তাদের এই ৮ টি বিষয় সম্পর্কে জানা থাকতে হবে

যারা ফ্রিল্যান্সিং করেন তাদের এই ৮ টি বিষয় সম্পর্কে জানা থাকতে হবে

যারা ফ্রিল্যান্সিং করেন

যারা ফ্রিল্যান্সিং করেন

বর্তমানে তরুণদের নিকট অর্থ উপার্জনের আলোচিত মাধ্যম গুলোর একটি হলো ফ্রিল্যান্সিং। অনেকেই ফ্রিল্যান্সিং এর মাধ্যমে ভাগ্যের পরিবর্তন ঘটিয়েছে। ফ্রিল্যান্সিংয়ে নিজের ইচ্ছা মতো কাজ করার স্বাধীনতা থাকায় অনেকেই এই পেশাটি শুরু করতে আগ্রহী হয়ে উঠছেন।

কিন্তু ফ্রিল্যান্সার হিসেবে পেশা শুরু করতে আপনাকে কয়েকটি বিষয় বিবেচনা করতে হবে। নিচে ভালো ভাবে ফ্রিল্যান্সিং করতে সহায়ক এমন কয়েকটি বিষয় সম্পর্কে আলোচনা করা হলো।

ফ্রিল্যান্সিং একটি এক কালীন প্রকল্প নয়

সাধারণত ছোট ব্যবসার মালিকেরা তাদের ব্যবসার স্বল্প মেয়াদী প্রকল্প গুলোর জন্য ফুল টাইম কর্মী নিয়োগের পরিবর্তে ফ্রিল্যান্সারদের ভাড়া করে থাকে।

তাই অনেকেই মনে করে থাকেন ফ্রিল্যান্সিং একটি এক কালীন প্রকল্প। কিন্তু ফ্রিল্যান্সিং সাইট গুলোতে কাজের অভাব না থাকায় একটি প্রকল্প শেষ হলে অন্য আরেকটি কোম্পানীর প্রকল্পের সাথে যুক্ত হওয়ার সুযোগ রয়েছে।

পাশাপাশি সাম্প্রতিক সময়ে অনেক বড় বড় কোম্পানীর মতো ছোট ব্যবসার মালিকেরাও তাদের মূল ব্যবসার সাথে ফ্রিল্যান্সারদেরকে সংযুক্ত করতে আগ্রহী হয়ে উঠছেন।

স্থানীয় কাজের চিন্তা বাদ দিন

পড়াশোনা শেষ করে স্থানীয় ভাবে পূর্ণ সময়ের চাকুরী পাওয়া খুবই কঠিন। আর ফ্রিল্যান্সিং এর ক্ষেত্রে দূরের কাজ বাড়িতে বসেই করা যায় বিধায় স্থানীয় কাজের চিন্তা না করাই উত্তম। এর ফলে বেকার না থেকে বরং স্থানীয় অর্থনীতিতে অবদান রাখা যায়।

প্রত্যাখাত হলে থেমে যাওয়া যাবে না

ফ্রিল্যান্সার হিসেবে ক্যারিয়ারের শুরুর দিকে অনেক সময় গ্রাহকদের নিকট হতে প্রত্যাখ্যাত হতে হয়। প্রত্যাখ্যাত হওয়ার অনেক গুলো কারণের মধ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ কারণ হতে পারে অভিজ্ঞতা না থাকা। তাই প্রত্যাখ্যাত হলে ঘাবড়ে গেলে চলবে না। নিরুৎসাহিত না হয়ে পূর্ণ উদ্যমে এগিয়ে চলুন।

একটি ফ্রিল্যান্সার কমিউনিটি খুজেঁ বের করুন

পিছিয়ে পরা ফ্রিল্যান্সারদের সহায়তা, জবাবদিহিতা ও গবেষণার জন্য একটি কমিউনিটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। বড় বড় শহর গুলোতে ফ্রিল্যান্সারদের ইউনিয়ন রয়েছে।

আপনি যে কোন একটি ইউনিয়ন খুজেঁ বের করে তাদের সাথে যুক্ত হউন। এর ফলে তাদের সাফল্যের গল্প গুলো শুনে আপনি নিজেকে অনুপ্রাণিত করতে পারবেন। পাশাপাশি যে কোন সমস্যায় পড়লে তাদের কাছ থেকে বিভিন্ন রকমের সহায়তা পাবেন।

আপনার দক্ষতাকে হাইলাইট করুন

বেশির ভাগ কোম্পানীই ফ্রিল্যান্সার ভাড়া করার সময় তার দক্ষতাকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে থাকে। আপনি আপনার কাজের দক্ষতার একটি তালিকা তৈরি করে নিয়োগকর্তার সাথে যোগাযোগের সময় তা হাইলাইট করার চেষ্টা করুন।

পড়ুন- জীবনে বড় হতে হলে কখনই নিজেকে ছোট ভাববেন না

ডকুমেন্ট রাখুন

একজন ফ্রিল্যান্সার হিসেবে আপনি শুধু গ্রাহককে সেবাই প্রদান করবেন না। পাশাপাশি সকল ডকুমেন্ট সংরক্ষিত রাখার দায়িত্বও আপনার। তাই যে কোন দুর্ঘটনা এড়াতে সর্বোচ্চ সর্তক থাকুন এবং সকল ডকুমেন্ট সুসংহত রাখুন।

একটি পোর্টফোলিও তৈরি করুন

প্রায় সকল ফ্রিল্যান্সারই তাদের নিজের ওয়েবসাইটে একটি ভার্চুয়াল পোর্টফোলিও তৈরি করে। এর ফলে গ্রাহকরা নিজে থেকেই আপনার ওয়েবসাইট থেকে আপনার সম্পর্কে জানতে পারবে। যদি আপনার অতীত কাজের সমৃদ্ধ ইতিহাস থাকে তবে গ্রাহকরা আপনাকে ভাড়া করতে সবচেয়ে বেশি সাচ্ছন্দ্য বোধ করবে।

যোগাযোগ দক্ষতা

একজন ফ্রিল্যান্সার হিসেবে আপনাকে গ্রাহকের নির্দিষ্ট কাজ গুলো সম্পন্ন করে দিতে হবে। তাই তাদের কাজের ধরন ও অন্যান্য বিষয় সম্পর্কে জানতে আপনাকে তাদের সাথে প্রতিনিয়ত যোগাযোগ করতে হবে। এক্ষেত্রে আপনার পর্যাপ্ত যোগাযোগ দক্ষতা থাকতে হবে। দক্ষতা ব্যতিরেকে ফ্রিল্যান্সার হিসেবে সফলতা লাভ করা দু:সাধ্য।