ভোলা জেলায় যে ব্যবসা করলে লাভবান হতে পারবেন

ভোলা জেলায় যে ব্যবসা করলে লাভবান হতে পারবেন

ভোলা জেলায় যে ব্যবসা করলে লাভবান হতে পারবেন

ভোলা জেলায় যে ব্যবসা করলে লাভবান হতে পারবেন

“কুইন আইল্যান্ড অব বাংলাদেশ” বা ভোলা জেলা বাংলাদেশের সব থেকে বড় দ্বীপ। সুপারি, নারিকেল, আমড়া, মহিষের দুধের দধি, মিষ্টি সহ নানা জিনিষের জন্য বিখ্যাত ভোলা। ছোট-বড় যেকোন বিনিয়োগে ব্যবসা করার জন্য ভোলা একটি অন্যতম সেরা জেলা।

এক নজরে ভোলার অর্থনীতি

ভোলার অর্থনীতি কৃষি ও মৎস্য নির্ভর হলেও নানামুখী প্রকল্প ভোলার অর্থনীতিকে দিন দিন আরো চাঙ্গা করছে। দেশের মোট ইলিশের একটি বিশাল অংশ এই জেলা থেকে সরবরাহ করা হচ্ছে। প্রাকৃতিক গ্যাস থাকায় রয়েছে শিল্পায়নের অপার সম্ভবনা তবে সড়ক যোগাযোগের সু-ব্যবস্থা না থাকায় দেশী বিদেশী শিল্প উদ্যোক্তা আগ্রহ হারাচ্ছে। এমন আবস্থায় যদি ভোলা বরিশাল সেতু নির্মিত হয় তাহলে ভোলা হবে দেশের অন্যতম অর্থনীতির কেন্দ্র। তবে শাক-সবজি চাষ, গবাধি পশু পালন, মাছ চাষ, হাঁস-মুরগি পালন করে ভোলা আজ পরিপূর্ণ জেলা।

ভোলা জেলার জন্য সফল ৫টি ব্যবসার ধারনা

হাঁস পালন

হাঁস পালন ভোলার পরিবেশ ও জলবায়ুর জন্য বিশেষ উপযোগী। হাঁস মুলত দুই ভাবে পালন করা যায়, একটি মুক্ত পরিবেশ ও আরেকটি আটকা পরিবেশে। খোলা বা মুক্ত ভাবে হাঁস পালন করলে বেশী খাবার দিতে হয় না বিধায় তাই এই পদ্ধতি বেশ লাভজনক। ইন্ডিয়ান রানার ও খাকীক্যাম্বেল জাতের হাঁস দিয়ে হাঁস চাষ শুরু করতে পারলে লাভের পরিমাণ বেশী হতে পারে।

আবাসিক হোটেল ব্যবসা

ভোলার সদর রোড, চকবাজারে কিছু আবাসিক হোটেল আছে যা চাহিদার তুললায় কম। উন্নত সুযোগ সুবিধা ও সেবার মান ভাল রাখতে পারলে গ্রাহকের কমতি হবে না। ভোলা জেলাতে বড় বিনিয়োগের ব্যবসা করতে চাইলে এই ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন।

রেস্টুরেন্ট ব্যবসা

আপনি যদি ভোলা জেলায় খাবার ভিত্তিক ব্যবসা করতে চাল তাহলে চাইনিজ, থাই, ইন্ডিয়ান খাবার দিয়ে শুরু করতে পারেন রেস্টুরেন্ট ব্যবসা। বর্তমান ও ভবিষ্যৎ চিন্তা মাথায় রেখে এই ব্যবসা শুরু করা যেতে পারে। তবে রেস্টুরেন্ট ব্যবসা শুরু করার আগে ব্যবসার অবস্থান ও মার্কেট যাচাই করে নিতে হবে।

আরও পড়ুন- রেস্টুরেন্ট ব্যবসা করে সফল হওয়ার কিছু উপায়

ইলেকট্রনিক্স পণ্যের ব্যবসা

মধ্যম মানের বিনিয়োগ দিয়েই শুরু করতে পারেন ইলেকট্রনিক্স পণ্যের ব্যবসা। যত দিন যাচ্ছে মানুষ তত বেশী ইলেকট্রনিক্স পণ্যের উপর বেশী আগ্রহ বাড়ছে। চাহিদা দিক বিবেচনা করে ছোট আকারে শুরু করতে পারেন এবং পরে ব্যবসার পরিধি বাড়াতে পারেন।

ইউটিউব চ্যানেল

ভোলা জেলার সংস্কৃতি, ঐতিহ্য, ইতিহাস, সম্যসা, দর্শনীয় স্থান ইত্যাদি নিয়ে ইউটিউব চ্যানেল খুলতে পারেন। পার্ট-টাইম আয়ের পথ হিসাবেও এটি বেছে নিতে পারেন। শুরু করা একটু কঠিন হলেও ভাল টাকা আয় করতে পারবেন বলে বিশ্বাস করছি।