বাংলাদেশে ব্যবসা শুরু করার সম্ভাব্য খরচ

ব্যবসা শুরু করার সম্ভাব্য খরচ

বাংলাদেশে ব্যবসা শুরু করার সম্ভাব্য খরচ

বাংলাদেশে ব্যবসা শুরু করার সম্ভাব্য খরচ

একটি ব্যবসা বাস্তবায়নের প্রারম্ভিক খরচ ব্যবসা পরিকল্পনার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ। প্রারম্ভিক খরচের পরিমাণ জানার পূর্বে আপনাকে আপনার বিনিয়োগ ক্ষমতার পরিমাপ জানতে হবে। বাংলাদেশের জন্য ব্যবসা খুব বেশি বন্ধুত্ব  নয়। তাছাড়া সামনের দিন গুলো আরো বেশি খারাপ হয়ে উঠছে। বাংলাদেশে ছোট ও মাঝারী আকারের ব্যবসার উদ্যোগ বাস্তবায়ন করা জটিল এবং পরিবেশের সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ করে তোলা কঠিন।

একটি ব্যবসা শুরুর পূর্বে আপনাকে ব্যবসার সম্ভাব্য খরচ সম্পর্কে কঠিন ভাবে চিন্তা করতে হবে। ব্যবসার শুরুতে আপনাকে ব্যয়বহুল খরচ গুলো এড়িয়ে চলতে হবে। এখানে আমরা ব্যবসা শুরুর প্রারম্ভিক খরচ গুলো নিয়ে আলেচনা করব।

বাংলাদেশে ব্যবসা শুরুর খরচ

যে কোন ছোট ব্যবসা শুরুর পূর্বে প্রথমেই আপনাকে ব্যবসার প্রারম্ভিক খরচ গুলো চিহ্নিত করতে হবে। ভাড়া, বিল ও অন্যান্য আনুষঙ্গিক খরচ এর সাথে অর্ন্তভুক্ত। বাংলাদেশে একটি ছোট ব্যবসা শুরু করতে কোথায় কি পরিমাণ খরচ হতে পারে নিচে তা আলোচনা করা হলো।

অনলাইনে কোম্পানীর নাম ভেরিফিকেশন

সম্ভাব্য খরচ: ১০০ টাকা

সময়: ১ দিন

যখন আপনি প্রস্তাবিত নামটি পাঠাবেন তখন আপনি আরজেএসসি (ডেপুটি রেজিস্টার) থেকে একটি ই-মেইল পাবেন। নাম নথিভুক্তিকরণ সার্টিফিকেটের জন্য আবেদনের সময় আপনাকে প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট ও অন্যান্য ফর্ম অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। ব্যবসা শুরুর পথে এটি একটি প্রাথমিক পদক্ষেপ।

আরজেএসসি- এর ফাইল ডকুমেন্ট গুলোর খরচ

সম্ভাব্য খরচ: ৪১২৫ টাকা

সময়: ১ দিন

বাংলাদেশে মনোনীত ব্যাংক গুলোর মাধ্যমে আরজেএসসি- এর ফি প্রদান করতে হবে। তাছাড়া নিবন্ধন পেতে আপনাকে নি¤œলিখিত নথি গুলো জমা দিতে হবে।

  • নাম ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট
  • নিবন্ধন সমূহ
  • অনুমোদিত ব্যাংক হতে প্রাপ্ত ট্রেজারী চালানের ডকুমেন্ট
  • ট্যাক্স আইডেন্টিফিকেশন নম্বর ইত্যাদি।

সিল তৈরী

সম্ভাব্য খরচ: ৩০০-৫০০ টাকা

সময়: ১ দিনের কম।

ট্যাক্স কর্তৃপক্ষের রেজিস্টার গ্রহণের খরচ

সম্ভাব্য খরচ: বিনা মূল্যে

সময়: ৯ দিন

যথোপযুক্ত ট্যাক্স কর্তৃপক্ষ (এনবিআর) এর নিকট থেকে আপনার ব্যবসা ক্ষেত্রটি অবশ্যই নিবন্ধিত হতে হবে। এক্ষেত্রে বাংলাদেশে এনবিআর- এর অধীনে জোনাল ট্যাক্সেশন বিভাগ ও কর কমিশন দায়িত্বপ্রাপ্ত হয়ে থাকে।

ভ্যাট রেজিস্টেশনের খরচ

সম্ভাব্য খরচ: বিনা মূল্যে

সময়: ৫ দিন

আপনার ব্যবসা ক্ষেত্রটি অবশ্যই এনবিআর- এর অধীনস্থ কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশন হতে রেজিস্টেশন প্রাপ্ত হতে হবে। এক্ষেত্রে বাংলাদেশে এই কাজের জন্য জোনাল ট্যাক্সেশন বিভাগ ও কর কমিশন এনবিআর হতেই দায়িত্বপ্রাপ্ত হয়ে থাকে।

ট্রেড লাইসেন্স সংগ্রহের খরচ

সম্ভাব্য খরচ: ৫ হাজার টাকা

সময়: ৬ দিন

আপনার ব্যবসাটি শুরু করার জন্য মনোনীত এলাকার সিটি কর্পোরেশন অথবা পৌর কর্পোরেশন অথবা ইউনিয়ন পরিষদ হতে ট্রেড লাইসেন্স সংগ্রহ করতে হবে। ট্রেড লাইসেন্স সংগ্রহের জন্য যা যা প্রয়োজন-

  • কোম্পানীর নিবন্ধনের অনুলিপি
  • ব্যাংক সলভেন্সি সার্টিফিকেটের বিবরণ
  • টিন সার্টিফিকেটের অনুলিপি
  • কোম্পানীর ভাড়া চুক্তির অনুলিপি
  • প্রধান ব্যবস্থাপনা পরিচালকের ৩ কপি ছবি ইত্যাদি।