বিবাহ ফটোগ্রাফি শুরু করতে চান? বিবাহ ফটোগ্রাফার হিসেবে সফল হতে কিছু পরামর্শ

বিবাহ ফটোগ্রাফার হিসেবে সফল হতে কিছু পরামর্শ

বিবাহ ফটোগ্রাফার হিসেবে পেশা

বিবাহ ফটোগ্রাফার পেশা

সাম্প্রতিক কালে প্রায় সকল বিবাহ অনুষ্ঠানে ফটোগ্রাফার ভাড়া করা হয়ে থাকে। আর এ জন্য আলাদা বাজেটও বরাদ্ধ করা হয়ে থাকে। কিন্তু একজন পেশাদার ফটোগ্রাফার হওয়া মটেই সহজ কাজ না।  এটি একটি প্রতিযোগীতাপূর্ণ ও খুবই চ্যালেঞ্জিং পেশা।

কিন্তু এটি একটি দ্রুত বর্ধনশীল ও লাভজনক শিল্প। এই পেশায় সফল হতে হলে প্রয়োজন স্মার্ট কৌশল প্রণয়ন ও প্রচুর অধ্যবসায়। তাই এখানে আমরা একজন বিবাহ ফটোগ্রাফার  (wedding photographer) হিসেবে পেশা শুরু করে কিভাবে সফল হওয়া যায় সে সম্পর্কে কিছু পরামর্শ তুলে ধরব। নিচে তা বিস্তারিত আলোচনা করা হলো।

১. বিবাহ ফটোগ্রাফি (wedding photography business) শুরু করতে খুঁটিনাটি বিষয়গুলো পর্যবেক্ষণ করুন

পেশাদার বিবাহ ফটোগ্রাফার হিসেবে পেশা শুরু করার আগে আপনাকে ফটোগ্রাফি ব্যবসাটি সম্পর্কে ভালো ভাবে জানতে হবে। এক্ষেত্রে স্থানীয় ফটোগ্রাফাররা গ্রাহক হিসেবে কাকে টার্গেট করে থাকে, গ্রাহকদেরকে কি ধরনের সেবা অফার করে, কি রকমের মূল্য নির্ধারণ করে থাকে ইত্যাদি খুঁটিনাটি গুলো জানার চেষ্টা করুন।

এজন্য আপনি অন্য ফটোগ্রাফারদের পোর্টফলি নিয়ে গবেষণা করতে পারেন। এরপর কিভাবে আপনার সেবাটিকে তাদের চেয়ে আলাদা ও সুন্দর করা যায় তা নিয়ে চিন্তা করুন।

২. কাছের মানুষদের দিয়ে শুরু করুন

গ্রাহকদের কাজ করার আগে আপনার পরিবারের সদস্য, নিকটাত্নীয় কিংবা বন্ধুদের বিবাহ অনুষ্ঠান বা পারিবারিক অন্য কোন অনুষ্ঠানের ফটোগ্রাফির কাজ করতে পারেন।

তারপর তাদের নিকট আপনার কাজের দক্ষতা সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করুন। এর ফলে আপনার কাজের দক্ষতা সম্পর্কে আপনি নিজেই ধারণা নিতে পারবেন। ফলে আপনি নিজেকে আত্নবিশ্বাসী হিসেবে গড়ে তুলতে পারবেন।

আপনি যদি আপনার পরিবারের সদস্য, নিকটাত্নীয় কিংবা বন্ধুদের কাছ থেকে ইতিবাচক সাড়া পান তাহলে অন্য গ্রাহকদের সাথে কাজ করা শুরু করতে পারেন।

৩. মূল্য নির্ধারণ করুন           

সফল ভাবে একটি বিবাহ ফটোগ্রাফি ব্যবসা পরিচালনা করতে হলে অবশ্য্ই ব্যয় এবং নির্ধারিত মূল্যের মধ্যে ভারসাম্য বজায় রাখতে হবে। ব্যয়ের সাথে নির্ধারিত মূল্যের ভারসাম্য বজায় রাখতে পারে না বলে বেশির ভাগ বিবাহ ফটোগ্রাফি ব্যবসা ব্যর্থ হয়।

তাই মূল্য নির্ধারণের আগে সমস্ত খরচ পুঙ্খানুপুঙ্খ ভাবে হিসাব করুন। আর হিসাবের মধ্যে সরঞ্জাম, ভাড়া, সহায়তাকারীর খরচ, ইডিট ইত্যাদি আনুষঙ্গিক খরচ গুলো অর্ন্তভুক্ত করুন।

এক্ষেত্রে অবশ্যই আপনাকে অন্যান্য প্রতিযোগীদের মূল্যের সাথে সমন্বয় করে মূল্য নির্ধারণ করতে হবে। প্রতিযোগীদের নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে আপনার নির্ধারিত মূল্য যদি বেশি হয়ে যায় তাহলে আপনার প্রতি গ্রাহকদের আগ্রহ কমে যাবে।

৪. একটি ব্র্যান্ড তৈরি করুন

বিবাহ ফটোগ্রাফির জন্য একটি ব্র্যান্ড তৈরি করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এর ফলে একজন পেশাদার ফটোগ্রাফার হিসেবে আপনি সর্বজন স্বীকৃত হতে পারবেন।

একটি ব্র্যান্ড তৈরি করতে হলে ব্যবসার নাম, লোগো ও অন্যান্য ভিজুয়াল উপাদান গুলোর সমন্বয় করা প্রয়োজন। এরপর ভিডিটিং কার্ড, ওয়েবসাইট, সেবার ধরন ইত্যাদি জুড়ে আপনার ব্র্যান্ডের পরিচিতি মূলক মূল উপাদান তথা লোগোটি সংযুক্ত করুন। গ্রাহকদের আস্থা অর্জনের জন্য ব্র্যান্ড তৈরি করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ

৫. একটি পোর্টফোলিও ওয়েবসাইট তৈরি করুন

পেশাদার বিবাহ ফটোগ্রাফার হিসেবে পরিচিতি পেতে হলে একটি চমৎকার পোর্টফোলিও ওয়েবসাইট থাকা আবশ্যক। একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে সেখানে আপনার তোলা সেরা চিত্রকর্ম গুলো শেয়ার করতে পারেন। তবে এ ক্ষেএে গ্রাহক অনুমত নেওয়া উচিত।

এতে নতুন গ্রাহকরা সহজেই আপনার প্রতি আকৃষ্ট হবে। আরেকটি বিষয় ওয়েবসাইটের ভিজিটররা যেন সহজেই আপনার সাথে যোগাযোগ করতে পারে সে ব্যবস্থা রাখুন।

৬. আপনার অভিজ্ঞতা শেয়ার করে ব্লগ লিখুন

ব্লগ লেখা পেশাদার ফটোগ্রাফারদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ না হলেও সফলতার জন্য এটি খুবই সহায়ক। ব্লগে লেখালেখির মাধ্যমে আপনি আপনার পোর্টফোলিওকে আরো সমৃদ্ধ করে তুলতে পারেন।

তাছাড়া এর মাধ্যমে যে সকল দম্পতিরা গুগল বা অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিন গুলোতে বিবাহ ফটোগ্রাফার খুজেঁ থাকেন তারা সহজেই আপনাকে পেয়ে যেতে পারে।

৭. সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করুন

সাম্প্রতিক সময়ে যে কোন ব্যবসার জন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম গুলো অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে দাড়িঁয়েছে।

এই ব্যবসার ক্ষেএে ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম, ও ইউটিউব ইত্যাদি জনপ্রিয় যোগাযোগ মাধ্যম গুলোতে পেজ খুলে নিয়মিত পোস্ট করতে পারেন। এর ফলে আপনার ব্যবসাটি সম্পর্কে প্রচুর মানুষ জানতে পারবে।

৮. প্রতিনিয়ত নতুন জিনিস শেখার চেষ্টা করুন

পরিবর্তনের সাথে সাথে প্রায় সকল ব্যবসার ধরণ পরিবর্তন হচ্ছে। বিবাহ ফটোগ্রাফি তার ব্যতিক্রম নয়। তাই কখন কোন ট্রেন্ড গুলো জনপ্রিয় হয়ে উঠছে তা জানার চেষ্টা করুন। পাশাপাশি সেই নতুনত্বের সাথে আপনার ব্যবসাটিকে খাঁপ খাওয়ানোর চেষ্টা করুন।