প্রত্যেক উদ্যোক্তাকে যে ৮ টি পরামর্শ জেনে রাখা প্রয়োজন

প্রত্যেক উদ্যোক্তাকে যে ৮ টি পরামর্শ জেনে রাখা প্রয়োজন

প্রত্যেক উদ্যোক্তাকে যে ৮ টি পরামর্শ জেনে রাখা প্রয়োজন

প্রত্যেক উদ্যোক্তাকে যে ৮ টি পরামর্শ জেনে রাখা প্রয়োজন

একজন উদ্যোক্তা হিসাবে আপনি যেখানেই ব্যবসা শুরু করতে চান না কেন সফল হতে হলে কিছু সঠিক পদ্ধতি অনুসরণ করতে হবে। যে শিল্পেই ব্যবসা শুরু করা হোক সে জন্য দরকার দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা। এ জন্য উদ্যোক্তাদের দক্ষ সহকর্মী ও পরামর্শদাতার একটি শক্তিশালী গ্রুপ থাকতে হয়। এখানে আমরা বিশেষজ্ঞদের পরামর্শের ভিত্তিতে প্রত্যেক উদ্যোক্তাদেরকে যে ৮ টি বিষয় জেনে রাখতে হয় সে সম্পর্কে আলোচনা করব।

আপনার ব্যবসার বাজার গবেষণা করুন

বাজার গবেষণা করতে সময় নিন এবং আপনার আদর্শ গ্রাহকদের চাহিদা গুলো মনোযোগ সহকারে শুনুন। এই মুহূর্তে তারা কি চাইছে সে সম্পর্কে জানার চেষ্টা করুন। এর ফলে আপনি সহজ ও সঠিক ভাবে আপনার ব্যবসাটিকে গ্রাহকদের নিকট জনপ্রিয় করে তুলতে পারবেন।

কঠোর পরিশ্রম করুন

অন্য যে কোন কাজের চেয়ে একটি ব্যবসা শুরু করা কঠিন। সফল উদ্যোক্তাদেরকে বিক্রয়, অর্থ, বিপণন, অপারেশন ইত্যাদি বিভিন্ন কাজ পরিচালনা করতে হয়। আর এই সব বিভাগ গুলো ভালো ভাবে পরিচালনা করতে হলে কঠোর পরিশ্রমের পাশাপাশি সৃজনশীলতা, অধ্যবসায় ও ক্রমাগত শিক্ষা অর্জনের প্রয়োজন হয়।

আপনার নিজের জন্য চান এমন জীবন গঠন করুন

আপনি নিজেই আপনার জীবনের নকশাকারী। আপনার জীবনে যদি এমন কিছু অংশ থাকে যা আপনার সাথে মানানসই না তা বর্জনের চেষ্টা করুন।

উদাহরণস্বরূপ, আপনি যদি একজন কুমার হয়ে থাকেন তাহলে আপনাকে কুমারের চাকা ও মাটি নিয়ে কর্মজীবন চিন্তা করতে হবে। অর্থাৎ আপনি যে কর্মের সাথেই সম্পৃক্ত হয়ে থাকেন আপনাকে সে সম্পর্কেই চিন্তা করতে হবে। পাশাপাশি আপনার কর্ম জীবনের সাথে সম্পৃক্ত করেই ব্যক্তিগত জীবনকে সাজাতে হবে।

আপনার গ্রাহকদের কথা শুনুন

সত্যিকার অর্থেই আপনার গ্রাহকদেরকে অনুভূতি শুনুন। প্রতিটি মানুষই চায় তার বার্তা বা সমস্যা গুলো কেউ মনোযোগ দিয়ে শুনুক। আপনি যদি আপনার গ্রাহকদেরকে শুনেন তাহলে তারা প্রকৃত অর্থে আপনার কাছ থেকে কি চাইছে সে সম্পর্কে ধারণা নিতে পারবেন। তাছাড়া তারাও আপনার সেবা বা পণ্যটি গ্রহণ করতে আগ্রহী হয়ে উঠবে।

আপনাকে কোনটি সতেজ করে তার উপর নজর দিন করুন

কোন কাজটি আপনাকে আনন্দিত ও সতেজ করে তোলে তা খুঁজে দেখুন। অনেক সময় আমরা বাইরের বিভিন্ন জিনিস দেখে প্রভাবিত হয়ে থাকি। তাই আমাদের চারপাশে যা কিছু আছে তার মধ্য থেকে আপনাকে অনুপ্রাণিত করে এমন কোন কিছু আছে কিনা তা দেখুন। আর যত তাড়াতাড়ি তা আপনি উপলব্ধি করতে পারবেন তত তাড়াতাড়ি আপনার পৃথিবীটা পরিবর্তিত হবে।

দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনা করুন

ব্যবসা পরিচালনা করতে গিয়ে প্রতিদিনের চ্যালেঞ্জ গুলো মোকাবেল করা অত্যন্ত সহজ। কিন্তু দীর্ঘ মেয়াদী সফলতার জন্য দীর্ঘ মেয়াদী চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করা আবশ্যক। আর তাই দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনার গ্রহণ করা খুবই জরুরী। আর এই দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনার মধ্যে বিপণন, প্রশিক্ষণ, কর্মচারী উন্নয়ন, মূলধন বাড়ানো, নতুন বাজার ধরা, ইত্যাদি অন্তর্ভুক্ত।

নিজেকে পুরস্কৃত করুন

নতুন ব্যবসা শুরু মানেই মনের ভিতর ভয় কাজ করা। তাই ভয়কে দূর করতে হলে নিজেকে পুরস্কৃত করুন। এর ফলে ভয় অনেকটাই দূর হয়ে যাবে। যে কোন সাফল্যে নিজেকে পুরস্কৃত করুন। ভয়ের বদলে নিজেকে পুরস্কৃত করার উপর দৃষ্টি দিতে করতে পারলে সাফল্য অনেকটাই নিশ্চিত হতে পারে।

অভিজ্ঞ মানুষদের সাথে নেটওয়ার্ক গড়ে তুলুন

নেটওয়ার্ক গড়ে তোলার যে কোন সুযোগ নিয়ে নিন। পাশাপাশি অভিজ্ঞদের নিকট হতে শেখার চেষ্টা করুন। তাছাড়া তাদের নিকট হতে প্রশিক্ষণ এবং পরামর্শও গ্রহণ করতে পারেন। এর ফলে আপনার কৌশলগত পরিকল্পনা গুলো সামনে এগিয়ে নিতে পারবেন।