পেশাগত জীবনে সফলতার পেছনে মেধা নাকি অন্য কিছু

পেশাগত জীবনে সফলতার পেছনে মেধা নাকি অন্য কিছু?

পেশাগত জীবনে সফলতার পেছনে মেধা নাকি অন্য কিছু

জীবনে সফল হতে চায় না এমন মানুষ কোটিতে একজনও খুঁজে পাওয়া যায় না। সফল সবাই হতে চায়, তবে এই সফলতা সবার কাছে ধরা দেয় না। অনেক সময় সফলতা ছিনিয়ে আনতে হয়।

পেশাগত জীবনে সফলতা পেতে চাইলে মেধা যেমন দরকার তার থেকে বেশি দরকার সেই মেধাকে কাজে লাগানো।

প্রতিটি স্কুলের ফাস্ট বয় সব সময় ক্যারিয়ারে সফল হয় না।

কোন রকম পাশ করা একজন ছাত্রও কিংবা, একাডেমিক সার্টিফিকেট না থাকাও ব্যক্তিও জীবনে এতটা সফল হয় যা অকল্পনীয়।

একজন ছাত্র যদি তার মেধা কাজে লাগাতে না পারে তাহলে সেই মেধার দুই পয়সারও দাম থাকে না।

মেধা কাজে লাগাতে চাইলে জীবনের কোনো না কোনো স্টেইজে ঝুঁকি নিতেই হবে।

ঝুঁকি না নিয়ে পেশাগত জীবনে সফলতা কোনো দিনই সম্ভব না।

এই ঝুঁকি নেওয়া মানে এই না যে, পানির গভীরতা না মেপে নদীতে ঝাঁপ দিতে হবে।

আমাদের তরুন বয়স ঝুঁকি নেওয়ার বয়স।

এখন যদি কোনো কাজে ঝুঁকি না নেই তাহলে জীবনের শেষ বয়সে এক বুক আফসোস বয়ে বেড়াতে হবে।

সমাজের গতানুগতিক জগতের বাইরে গিয়ে যারা চিন্তা করতে পারে তারাই জীবনে সফলতার মুকুট পড়তে পারে।

আমাদের সমাজ ব্যবস্থা চাকরিকে বেশি প্রাধান্য দেয়।

কেননা এখানে ঝুঁকি কম থাকে কিংবা অনেক সময় ঝুঁকি থাকেই না।

মাস শেষে কিছু টাকা পকেটে আসবে তা দিয়েই আমার সারা মাস চলতে হবে।

এর বাইরে আমার যাওয়ার আর কোনো সুযোগ থাকে না। তবে যারা সাহসী এবং ঝুঁকি নিতে জানে তারাই আমাকে আপনাকে চাকরি দিতে পারবে।

এখন আপনি চাকরি করবেন না চাকরি দিবেন এর চিন্তা আপনাকে করতে হবে, এবং যতটা সম্ভব দ্রুত চিন্তা করতে হবে।

নতুন কিছু জানতে চাওয়া, দ্রুত সিদ্ধান্ত নিতে পারা এর জন্য মেধাবী হতেই হবে তা কিন্তু নয়। মেধা অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ তবে এর সাথে থাকা চাই সাহস।

যখন মেধা ও সাহসের মিশ্রন ঘটানো যায় তখন সফলতা শুধুমাত্র সময়ের বিষয়।

আমাদের এই বিশ্ব এখন অর্থনৈতিক নির্ভর। সমাজের দশ জনের একজন হয়ে বাচতে চাইলে, অন্যের বিপদে এগিয়ে আসতে চাইলে আপনাকে চ্যালিঞ্জিং জীবন যাপন গ্রহন করতে হবে।

এই পথ চলায় অবশ্যই নানা রকম বাঁধা আসবে, এই বাঁধা উপেক্ষা করে যারা সামনে আসতে পারে তারাই সফলতাকে বুক পকেটে রেখে চলতে পারে। – কে এম চিশতি – ইউটিউব লিঙ্ক