ছাএ জীবনে উদ্যোক্তা হওয়ার ৫টি উপায়

ছাএ জীবনে উদ্যোক্তা হওয়ার ৫টি উপায় (5 ways to be a student entrepreneur)

ছাএ জীবনে উদ্যোক্তা হওয়ার ৫টি উপায়

ছাএ জীবন যে পার করে যায় সেই বুজতে পারে ছাএ জীবনের গুরুত্ব। আপনি ছাএ থাকা অবস্থায় যাই অর্জন করতে পারবেন তাই আপনার পরবর্তী জীবনের গতি বাড়াবে। একজন ছাএ যদি উদোক্তা হতে চায় তবে সর্ব প্রথম তার মানসিকতার পরিবর্তন করতে হবে। নিজের মধ্যে উদ্যোক্তা হওয়া প্রবল ইচ্ছাশক্তি গড়ে তুলতে হবে। আসুন ছাএ জীবনে উদ্যোক্তা হওয়ার ৫টি কার্যকর উপায় জেনে নেই।

#১। ছাএ জীবনে উদ্যোক্তা হতে চাইলে করতে হবে জীবনযাএার পরিবর্তন

একজন সাধারন ছাএ এবং আপনার লাইফস্টাইল কখনই এক হবে না। আপনি আপনার জীবন থেকে বেশ মজার কিছু বিষয় ত্যাগ করবেন এবং একজন সাধারন ছাএ সেই মজার বিষয় গ্রহন করবে।

আপনি আড্ডা দিবেন না, কিন্তু বাকিরা আড্ডা দিবে, আপনি সোসাল মিডিয়ার প্রোফাইল পিকচার মাসের মধ্যে ১৪ বার পরিবর্তন করবেন না কিন্তু বাকিরা করবে। আপনি অন্যকে দেখানোর জন্য দামী মোবাইল কিনবেন না কিন্তু অন্যরা কিনবে।

আপনি sacrifice করবেন এবং অন্যরা এখন Enjoy করবে। ঠিক তেমনি আপনি যখন জীবনভর উপভোগ করবে তখন অন্যরা একটি চাকরির জন্য হন্য হয়ে ঘুরবে। আপনি যদি ছাএ অবস্থায় সত্যিকারের উদ্যোক্তা হতে চান তবে আপনার জীবনযাএার পরিবর্তনের কোন বিকল্প নেই।

#২। আপনার সময়কে মূল্য দিতে হবে

আপনার জীবন থেকে সেই সকল কিছু বাদ দিতে হবে যার কোন ফলাফল নেই। অনেক হাঁসির সিনেমা কিংবা মারামারি কিংবা ভুতের সিনেমা আপনার জীবন থেকে ৩ ঘণ্টা সময় নষ্ট করা ছাড়া আর কিছুই করতে পারে না।

সোসাল মিডিয়ায় অন্যের প্রোফাইল চেক করা, হা হাঁ রিএক্ট দেওয়া, বন্ধুদের পুরাতন ছবি খুঁজে ঠাট্টা মশকরা করা সময় নষ্ট করার অন্যতম সেরা উদাহরন।

কিন্তু আপনার মধ্যে যদি উদ্যোক্তার মানসিকতা থাকে তবে এইগুলো আপনি করবেন না বরং এইগুলো দেখলে আপনার মেজাজ খারাপ লাগবে।

একজন উদ্যোক্তা অনেক ক্ষেএে টাকার চেয়েও তার সময়কে মূল্য দেয়। কেননা তারা জানে এই সময়কে সঠিকভাবে কাজে লাগাতে পারলে এর রিটার্ন অনেকগুন বেশি আসে।

আরো পড়ুন – টাইম ম্যানেজমেন্ট কি?

#৩। মাল্টিটাস্কিং বন্ধ করতে হবে

একজন ছাএ হিসাবে উদ্যোক্তা হতে চাইলে একসাথে অনেকগুলো কাজ করা বন্ধ রাখতে হবে। একটি কাজ শেষ করে আরেকটি কাজ শুরু করতে হবে। 

#৪। টিমে কাজ করার অভিজ্ঞতা অর্জন করুন

একজন উদ্যোক্তা যে কোন কঠিন পরিস্থির মধ্যে কাজ করতে পারে। তারা কখনই অজুহাত দেয় না, তাদের কাছে যা আছে তাই দিয়েই তাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা করে। তারা অন্যের টিমে কাজ করতে পারে আবার নিজেও টিম গঠন করতে পারে।

#৫। কমফোর্ট জোনকে বলে দিন বিদায়

কমফোর্ট জোন এমন একটি জায়গা যেখানে আরাম আছে, বিনোদন আছে, এবং কিছু দিন থাকাও যায়। তবে এই কমফোর্ট জোনের মধ্যে কখনই সফলতা আসতে পারে না।

একজন ছাএ হিসাবে উদ্যোক্তা হতে চাইলে আপনাকে কমফোর্ট জোনের বাইরে গিয়ে সফলতা খুঁজতে হবে।

#৫.১। অন্যের মাধ্যমে কাজ করানো শিখুন

একজন উদ্যোক্তার মধ্যে থাকা অন্যতম গুন সে নেতৃত্ব দিতে পারে, অন্যকে তার কাজে লাগাতে পারে। অন্যকে আপনার কাজে লাগাতে চাইলে কিছু অর্থ খরচ করতে এবং সেই সাথে থাকতে হবে মুখের মিষ্টি কথা।  

বোনাস – না বলতে শিখুন।

না বলতে পারা কোন অপরাধ নয়। আপনার জন্য যেই কাজ মঙ্গল বয়ে আনতে পারে না সেই আজকে না বলে দিন। সব কাজে নিজের জড়াবেন না। আপনার জন্য অনেক সময় অনেক লোভনীয় অফার আসতেই পারে কিন্তু আপনি আপনার লক্ষ্য থেকে এক পা পিছু হাঁটবেন না।

সর্বোপরি, ছাএ অবস্থায় উদ্যোক্তা হতে চাইলে আপনার প্রবল ইচ্ছাশক্তি এবং হার না মানা নিজেকে দেওয়া চ্যালেঞ্জ আপনাকে সফল করতে পারে। – কে এম চিশতি সিয়াম – ইউটিউব লিঙ্ক