গ্রামে ব্যবসা করতে চাইলে অতিক্রম করতে হবে এই ৫টি চ্যালেঞ্জ

গ্রামে ব্যবসা করতে যে সব চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হয় 

গ্রামে ব্যবসা করতে চাইলে অতিক্রম করতে হবে এই ৫টি চ্যালেঞ্জ

আমাদের মধ্যে অনেকেই গ্রামে ব্যবসা শুরু করতে চাই। গ্রামে ব্যবসা শুরু করার বেশ কিছু ভালো কারন রয়েছে। যেমন ধরুন গ্রামে ব্যবসা করতে তুলনামূলক কম টাকা লাগে, শ্রমিক খরচ কম, সহজে জায়গা পাওয়া যায়, এবং ব্যবসায় প্রতিযোগিতা তুলনামূলক কম।

তবে গ্রামে ব্যবসা করতে চাইলে কিছু চ্যালেঞ্জের মুখামুখি হতে হয় এবং সেই চ্যালেঞ্জগুলো অতিক্রম করতে পারলে ব্যবসাটি সফল করা তুলনামূলক সহজ হয়ে যায়। আসুন জেনে নেই সেই ৫টি চ্যালেঞ্জ কি কি এবং চ্যালেঞ্জগুলো অতিক্রম করার কিছু উপায়।

#১। লাভজনক ব্যবসা খুঁজে বের করা

গ্রামে ব্যবসা শুরু করা সহজ হলেও লাভজনক ব্যবসা খুঁজে বের করা কঠিন। আপনাকে এমন একটি বিজনেস আইডিয়া খুঁজে বের করতে হবে যাতে কোনো একটি সমস্যার সমাধান হয় এবং কম সময়ের মধ্যে লাভের মুখ দেখতে পারেন।

গ্রামের জন্য আমার কিছু পছন্দের বিজনেস আইডিয়া হচ্ছে ছাগল পালন, একই সাথে হাঁস ও মাছ চাষ, কম্পিউটার প্রশিক্ষন কেন্দ্র, জেনারেটর সংযোগ এবং ব্রডব্যান্ড ইনটারনেট সংযোগ। বিজনেস আইডিয়া ঠিক করার আগে সেই ব্যবসায় অপনার আগ্রহ এবং সাধারন জ্ঞান আছে তা নিশ্চিত করতে হবে।

#২। স্থায়িত্ব

আমার জানা মতে আমি অনেকই দেখেছি যারা গ্রামে ব্যবসা শুরু করে বেশী দিন চালাতে পারেনি। এর অন্যতম কারন বাকিতে পণ্য বিক্রি করা।

সাধারনত গ্রামে একে অপরের পরিচিত থাকে বিধায় বাকিতে পণ্য কেনা বেচার রীতি চলে আসছে, যা সাধারনত শহরে খুবই কম। তাই ব্যবসার প্রথম দিন থেকেই আপনাকে বাকিতে পণ্য বিক্রি করা বন্ধ রাখতে হবে।

এছাড়া আপনি যেই ব্যবসাটি শুরু করতে চাচ্ছেন সেই ব্যবসার প্রতি গ্রাহকদের কমপক্ষে ৩ বছর আগ্রহ থাকবে তা নিশ্চিত হতে হবে। তাছাড়া আপনাকে গ্রামের বাইরে আপনার পণ্য বা সেবা বিক্রি করার জন্য আস্তে আস্তে উপযোগী পরিবেশ বানাতে হবে।

#৩। শ্রমিক ধরে রাখা

শহরের তুলনায় গ্রামে শ্রমিক খরচ কম হলেও ধরে রাখা একটি চ্যালেঞ্জ। সাধারনত গ্রামের শ্রমিকদের বেতন শহরের তুলনায় কম দেওয়া হয় এবং এর ফলে সেই শ্রমিক শহরমুখী হয়।

তাই শ্রমিক ধরে রাখতে চাইলে স্বাভাবিকের চেয়ে একটু বেশী বেতন দিতে হবে, এতে সেই শ্রমিক খুশী থাকবে এবং আপনার কাজে আরোও বেশী মনোযোগ দিতে পারবে।

#৪। নিরাপত্তা

কাউকে অবিশ্বাস করা যাবে না এবং কেউই সন্দেহের উর্ধে নয় এই নীতি একজন ব্যবসায়ীকে আরোও সফল করতে পারে। নিরাপত্তার বিষয়টিকে হালকাভাবে নিবেন না। আপনার ব্যবসার অবস্থান এবং পরিবেশ বুজে নিরাপত্তার বলয় ঘটন করতে হবে।

#৫। যোগাযোগ ব্যবস্থা

আপনি যেই পণ্য বা সেবা দিতে চাচ্ছেন সেই ব্যবসার সাথে মিল রেখে যোগাযোগ ব্যবস্থা রাখতে হবে। আপনি যদি হাঁস ও মাছের খামার দিতে চান তবে আপনার খামারে যেন অন্তত একটি ভ্যানগাড়ি প্রবেশ করতে পারে তা নিশ্চিত করতে হবে। – কে এম চিশতি সিয়াম – ইউটিউব লিঙ্ক