কিভাবে অফিস ও বিবাহ বাড়ি সাজাতে গাছ ভাড়া দিয়ে আয় করবেন

গাছ ভাড়া দিয়ে আয় করুন

গাছ ভাড়া দিয়ে আয় করুন

গাছ ভাড়া দিয়ে আয় করা যায় এমনটি যদি ২০ আগে কেউ শুনতো তাহলে সে বলতেই পারত এটি পাগলের প্রলাপ। এখন আর এটি বলা সম্ভব নয়। কারন বাহারি জাতের গাছ ভাড়া দিয়ে খুবই লাভজনক একটি ব্যবসা শুরু করা যায়।

বর্তমানে সরকারী ও বেসরকারী অফিসগুলো খুবই সুন্দর করে সাজানো হয়। পরিবেশ বান্ধব গাছ দিয়ে সাজাতে পারলে সেই অফিসটি আরো সুন্দর দেখায়। তাছাড়া বিবাহ অনুষ্ঠানে আজকাল গাছ নিয়ে সাজানোর একটি প্রবনতা দেখা যাচ্ছে। একটি পরিবেশ বান্ধব ও ইউনিক ব্যবসা হিসাবে আপনি গাছ ভাড়া দিয়ে আয় করতে পারেন।

সৌখিনতার অংশ হিসেবে মানুষ সাজ সজ্জার ব্যাপারে বরাবরই বেশ আগ্রহী ও সচেতন। এই সাজ সজ্জা ও সৌন্দর্য্য বর্ধনের প্রয়াস শুধু মানবদেহেই সীমাববদ্ধ থাকে না। এখন মানুষ বাসগৃহের পাশাপাশি অফিস, শিল্পকারখানা ও বিভিন্ন বিবাহ পার্টি বা অনুষ্ঠানের আয়োজন সুন্দর ও প্রাণবন্ত করে তোলার জন্য বিভিন্ন ধরনের সজ্জা সামগ্রী ব্যবহার করে থাকে।

এর মধ্যে সবচেয়ে আকর্ষণীয় হলো গাছ দিয়ে সজ্জা। বিভিন্ন বাহারী লাইটিং ও রং সমৃদ্ধ গাছ হতে শুরু করে ফুলের গাছ সদৃশ বা অন্য যে কোন আকর্ষণীয় কাঠামোর ভিত্তিতে তৈরী গাছ দ্বারা এই সাজ সজ্জা করা হয়ে থাকে। সাজসজ্জার গাছ ভাড়া দিয়ে ব্যবসা বর্তমানে সকল পর্যায়ের উদ্যোক্তাদের নিকট অত্যন্ত জনপ্রিয় একটি ব্যবসা হিসেবে সমাদৃত হচ্ছে। আরো পড়ুন – ভাড়া দিয়ে আয় করা যায় এমন লাভজনক ব্যবসার ধারনা

যে কোন বাণিজ্যিক বা আবাসিক এলাকায় এই ব্যবসাটি শুরু করা যেতে পারে।

টবে গাছ ভাড়া ব্যবসাটি শুরু করতে খুব বেশি প্রারম্ভিক মূলধন লাগে না। অল্প বিনিয়োগই এই ব্যবসাটি শূরু করার জন্য যথেষ্ট বলে অনেক নতুন উদ্যোক্তাই এই ব্যবসাটি শুরু করতে আগ্রহী। এই ব্যবসায় একবার বিনিয়োগ করলে দীর্ঘদিন আর বিনিয়োগ করতে হয় না। এই ব্যবসাটি ভালো ভাবে পরিচালনা করতে পারলে লাভের পরিমাণ নেহায়েত মন্দ নয়। এই ব্যবসাটি পরিচালনা করা খুবই সহজ হলেও প্রথম দিকে গ্রাহক পেতে একটু কষ্ট করতে হয়।

গাছ ভাড়া ব্যবসাটি শুরু করতে ১ লাখ থেকে ৩ লাখ টাকা পর্যন্ত পুজিঁ বিনিয়োগ করতে হতে পারে।

কিভাবে এই ব্যবসাটি শুরু করবেন: সৌন্দর্য্য বর্ধনে সহায়ক এমন ধরনের গাছের চারা ক্রয় করে গাছের চারা গুলো টবে রোপন করতে হবে। তারপর বিভিন্ন অফিস বা বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের যোগাযোগ করে গাছের চারা মাসিক হিসেবে অথবা দৈনিক হিসেবে ভাড়া দেওয়া যায়। আবার বিভিন্ন বিবাহ অনুষ্টানের পরিবেশের সৌন্দর্য্য বদ্ধি করতেও এই চারা ব্যবহার করা হয়। এই ভাবে এই ব্যবসাটি পরিচালনা করা যায়।

গ্রাহক: বিভিন্ন অফিস ও বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানই এই ব্যবসার প্রধান ভোক্তা। তবে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজকরাও এই গাছ ভাড়ায় নিয়ে থাকেন।

যোগ্যতা: এই ব্যবসাটি শুরু করতে তেমন কোন যোগ্যতার দরকার হয় না। তবে গাছ ও গাছের পরিচর্যা সম্পর্কে অভিজ্ঞতা থাকলে ভালো হয়।

সম্ভাব্য আয়: মাসিক হিসেবে প্রতিটি গাছের ভাড়া ৫০ টাকা থেকে শুরু করে ১০০ টাকা পর্যন্ত হয়ে থাকে। আর দৈনিক হিসেবে প্রতিটি গাছের ভাড়া হয়ে থাকে ৩০ টাকা থেকে ৫০ টাকা পর্যন্ত।