কো-ওয়ার্কিং অফিস স্পেস এর ইতিহাস

কো-ওয়ার্কিং অফিস স্পেস এর ইতিহাস

কো-ওয়ার্কিং অফিস স্পেস এর ইতিহাস

কো-ওয়ার্কিং অফিস স্পেস এর ইতিহাস

কো-ওয়ার্কিং অফিস স্পেস এর ইতিহাস খুব বেশী বছরের নয়। আজ বিশ্বজুড়ে কয়েক হাজার স্থান থেকে প্রায় ২৫ মিলিয়ন মানুষ কো-ওয়ার্কিং অফিস ব্যবহার করছে।

এই ধারণাটি প্রথম বার্লিনে ইঞ্জিনিয়ারদের একটি সংগঠন সি-বেস, কম্পিউটার হ্যাকারদের সাথে কাজ করার জন্য একটি ‘হ্যাকার স্পেস’ তৈরি করেছিল। এর চার বছর পরে, ১৯৯৯ সালে, এই ধারনাটি আমেরিকার নিউ ইয়র্ক সিটিতে ছড়িয়ে পড়ে।

আধুনিক কো-ওয়ার্কিং অফিস মূলত শুরু হয় ১৯৯৯ সাল থেকে। ‘কো-ওয়ার্কিং’ শব্দটি বার্নার্ড ডেকোভেন তৈরি করেছেন। তবে সেই কো-ওয়ার্কিং আর আজকের কো-ওয়ার্কিং একটু আলাদা।

১৯৯৯ সালে শেষের দিকে নিউ ইয়র্ক সিটিতে কো-ওয়ার্কিং ধারনাটি বেশ ছড়িয়ে পড়ে। সেই থেকে স্টাপ-আপ কোম্পানি, ছোট ব্যবসায়ীদের কাছে এটি বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠে।

২০০২ সালে দুই অস্ট্রিয়ান উদ্যোক্তা ভিয়েনার একটি পুরানো কারখানায় শ্রোউবেনফ্যাব্রিক নামে একটি ‘‘entrepreneurial center বা উদ্যোক্তা কেন্দ্র’ স্থাপন করেছিলেন।

এর মূল লক্ষ ছিল উদ্যোক্তাদের তাদের বাড়ি থেকে কাজ করা এড়াতে একটি জায়গা দেওয়া এবং একে অপরকে সাহায্য করবে। ঐ উদ্যোক্তা কেন্দ্রে স্টার্টআপস, স্থপতি, পরামর্শদাতা, এবং ফ্রিল্যান্সাররা অন্তর্ভুক্ত ছিল। এই স্থানটিকে কো-ওয়ার্কিং এর জননী বলা যেতেই পারে।

পড়ুন – একত্রিত কর্মস্থল কোওয়াক

২০০৫ সালে ৯ই আগস্ট ব্র্যাড নিউবার্গ সান ফ্রান্সিসকোতে কো-ওয়ার্কিং অফিস স্পেস প্রথম শুরু করেন।

অফিসের উদ্দেশ্য ছিল সপ্তাহে দুই দিন অন্যের সাথে স্বাধীনভাবে কাজ করা এবং নিউবার্গকে এর জন্য  মাসে ৩০০ ডলার দিতে হয়েছিল। প্রথম মাসের জন্য কেউ তাকে সাহায্য করেনি। পরে নিউবার্গের সাথে রে বাক্সটার নামে একজন অ্যাথলিট সেই স্পেসের প্রথম সদস্য হন এবং পরিবর্তে তিনিই বিশ্বের প্রথম কোওয়াকার হিসাবে পরিচিত লাভ করেন।

সিবিআরইর সম্প্রতি প্রকাশিত শেয়ার্ড-অফিসের প্রতিবেদন অনুসারে, বিভিন্ন কোম্পানি তাদের ব্যয় হ্রাস কমানোর জন্য কো-ওয়ার্কিং এই ধারনাটি আগামী ৫ বছরে ৪১% বাড়বে বলে মনে করা হচ্ছে।