একজন সফল ব্যবস্থাপক হিসাবে ১০ টি গুণাবলী থাকতে হবে

সফল ব্যবস্থাপক হিসাবে ১০ টি গুণাবলী থাকতে হবে

একজন সফল ব্যবস্থাপক হিসাবে ১০ টি গুণাবলী থাকতে হবে

একজন সফল ব্যবস্থাপক হিসাবে ১০ টি গুণাবলী থাকতে হবে

সফল ব্যবস্থাপক বিভিন্ন প্রতিভার অধিকারী হয়ে থাকেন। কোম্পানীর প্রায় প্রতিটি পদক্ষেপে তাকে পদে পদে নানা ধরনের ভূমিকা গ্রহণ করতে হয়। তাকে নানা গুণে গুণানীত্ব হতে হয়। এখানে আমরা একজন মহান ব্যবস্থাপকের কি কি গুণাবলী থাকা প্রয়োজন তা নিয়ে আলোচনা করব। নিচে তা বিস্তারিত আলোচনা করা হলো।

জেণে নিন – উদ্যোক্তা ও ব্যবস্থাপকের মধ্যে পার্থক্যসমূহ

১. সৃজনশীলতা

সৃজনশীলতা দক্ষতাকে পৃথক ভাবে উপস্থাপন করতে সহায়তা করে থাকে। সৃজনশীলতা হলো এক ধরনের উদ্দীপনা যা কোম্পানীর বিভিন্ন প্রকল্প গুলোকে এগিয়ে নিতে ও কর্মীদের মনোযোগ আর্কষণে খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

একজন সফল ব্যবস্থাপক সৃজনশীল দক্ষতার সমন্বয়ে বিভিন্ন পৃথক কর্মকে একত্রিত করে যে কোন প্রকল্পকে সফল ভাবে সম্পন্ন করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকেন।

২. কাঠামো

একজন ব্যবস্থাপককে সর্বদা সীমাবদ্ধ ও সুনির্দিষ্ট কাঠামোর মধ্যে কাজ করতে হয়। আর একজন মহান ব্যবস্থাপক ভালো করেই জানেন কিভাবে কাঠামোর মধ্যে থেকে কাজ করতে হয়।

৩. স্বজ্ঞা

স্বজ্ঞা হলো যুক্তিসঙ্গত প্রক্রিয়া ব্যবহার করা ছাড়াই জানতে পারার ক্ষমতা। এটি হলো মানসিক বুদ্ধিমত্তার ভিত্তিপ্রস্তর। এর মাধ্যমে মানুষ অন্যদের অনুভূতি ও চিন্তা সম্পর্কে বুঝতে পারে। আর শক্তিশালী স্বজ্ঞাই একজন শক্তিশালী ব্যবস্থাপক তৈরি করতে পারে।

৪. জ্ঞান

একজন ব্যবস্থাপককে কোম্পানীর বিভিন্ন বড় বড় সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে হয়। তাই তার পুঙ্খানুপুঙ্খ জ্ঞান থাকা আবশ্যক। জ্ঞানের ভিত্তিটি এতটাই সংহত হওয়া প্রয়োজন যেন তারা স্বচ্ছ ভাবে কর্মীদের মনোযোগ আর্কষণ করতে পারে। পাশাপাশি তাদেরকে পরবর্তীতে আরো কি কি শিখতে হবে তা যেন জানতে পারে।

৫. প্রতিশ্রুতি

একজন ব্যবস্থাপক কোম্পানীর যে কোন প্রকল্প ও তার টিমের সকল সদস্যের সাফল্যের জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। তিনি তার টিমের দৃষ্টি আর্কষণের চেষ্টা করে থাকেন এবং টিমের শেষ ফলাফলের জন্য সামনের দিকে এগিয়ে যান।

৬. মানবিক

কর্মীরা মানবিক মূল্যবোধ সম্পন্ন নেতাদের মূল্যায়ন করে থাকেন। আর সেরা নেতারা অন্যদের মানদন্ডের সাথে মানিয়ে নিতে মানবিক আচরণ করে থাকেন। পাশাপাশি অন্যদের সাথে যোগাযোগ স্থাপনের ক্ষেত্রে বিনয়ী হয়ে থাকেন।

৭. বহুমুখীতা

বহুমুখীতা একজন মহান ব্যবস্থাপকের মূল্যবান গুণ গুলোর একটি। বহুমুখীতা বলতে ব্যক্তির উন্মুক্ততাকে বুঝানো হয়েছে। এর ফলে একজন ব্যবস্থাপক যে কোন প্রয়োজনে যে কোন বাধাকে তুচ্ছ মনে করে সামনে এগিয়ে যেতে পারেন।

৮. উজ্জ্বলতা

একজন সফল ব্যবস্থাপক শুধুমাএ অসামান্য ফলাফলই অর্জন করেন না, তার পুরো প্রক্রিয়াটিই অত্যন্ত মজাদার হয়ে থাকে। একজন ব্যবস্থাপক কোম্পানীর যে কোন প্রকল্পকে কর্মীদের সামনে উজ্জ্বল ভাবে উপস্থাপন করতে পারেন। যার ফলে প্রকল্পটি সামনে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া সহজ হয়।

৯. শৃঙ্খলা

শৃঙ্খলা যে কোন ব্যবস্থাপকের মহান গুলোর মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ গুণ গুলোর একটি। কোম্পানীর যে কোন প্রকল্প নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে সম্পন্ন করতে হলে শৃঙ্খলার কোন বিকল্প নেই।

১০. বড় চিত্র, ছোট পদক্ষেপ

কর্মীদের মনোযোগ আর্কষণের জন্য মহান ব্যবস্থাপকরা ছোট ছোট কর্ম গুলোকেও বড় করে উপস্থাপন করে থাকেন। যেন কর্মীরা কাজটিকে আন্তরিক ভাবে গ্রহণ করে এবং যথা সময়ে সম্পন্ন করতে পারে।