উদ্যোক্তা কি? উদ্যোক্তা সম্পর্কে বিস্তারিত ধারনা

উদ্যোক্তা কি? উদ্যোক্তা সম্পর্কে বিস্তারিত ধারনা

উদ্যোক্তা কি উদ্যোক্তা সম্পর্কে বিস্তারিত ধারনা

উদ্যোক্তা কি উদ্যোক্তা সম্পর্কে বিস্তারিত ধারনা

ইংরেজি শব্দ Entrepreneur এর বাংলা অর্থ উদ্যোক্তা। Entrepreneur শব্দটি ফ্রাস ভাষা থেকে নেওয়া হয়েছে। উদ্যোক্তার সংজ্ঞা এক জায়গায় এক এক রকম আছে। কেউ বলছেন উদ্যেক্তা মানে হচ্ছে সংগঠক। আবার অনেকে বলছেন উদ্যোগি হয়ে কাজ করলেই উদ্যোক্তা হওয়া যায়। আবার যে উদ্যোগ নিয়ে কাজ করে তিনি উদ্যোক্তা। আমরাও উদ্যোক্তা সম্পর্কে ভিন্ন ধারনা প্রেষণ করছি না। তবে সহজে যা বলতে পারি না নিন্মরূপ।

উদ্যোক্তার কিঃ উদ্যোক্তা এমন একজন মানুষ যিনি একটি লক্ষকে সফল করার উদ্দেশে যথেষ্ট ঝুঁকি নিতে জানে, (পণ্য ও গ্রাহক) সংগঠিত করার ক্ষমতা রাখে ও নতুনত্ব ধারনা নিয়ে কাজ করে।

উদ্যোক্তা যথেষ্ট ঝুঁকি নেয়

১৮তম শতাব্দীতে রিচাড ক্যান্টিওন যিনি জন্মসুত্রে আইরিশ কিন্তু ফ্রান্সে বসবাস করতেন এবং তিনি প্রথম Entrepreneur শব্দের সাথে আমাদের পরিচয় করিয়ে দেন। তার বর্ণনা অনুযায়ী একজন উদ্যোক্তা হতে হলে অব্যশই যথেষ্ট ঝুঁকি নেওয়ার মানসিকতা থাকতে হবে।

রিচাড ক্যান্টিওন এর মতে, একজন উদ্যোক্তা একটি লক্ষকে সফল করার উদ্দেশে এজেন্ট হিসাবে কাজ করে, এবং তার মূল লক্ষ থাকে পণ্য ও গ্রাহকের মধ্যে কোন কিছু নতুনত্ব নিয়ে আসা।

ভদ্রলোক আরো বলেন, উদ্যোক্তা শুধু একজন ব্যাক্তি হবেন না হয়, এক বা একাধিক মানুষ সমন্বিত প্রচেষ্টায় অনিশ্চয়তা থেকে ঝুঁকি নিয়ে সম্ভবনাময় কিছু বের করে আনে।

আরো পড়ুন – সফল উদ্যোক্তারা যে ৭টি ভুল পুনরায় করেন না

সংগঠক হিসাবে উদ্যোক্তা

ফরাসি অর্থনীতিবিদ জ্যান-ব্যাপটিস্ট, যিনি প্রথম ১৮০০ সালে উদ্যোক্তা বা Entrepreneur শব্দের অন্যতম প্রবর্তক। জ্যান-ব্যাপটিস্ট এর মতে, উদ্যোক্তা হচ্ছে এমন একজন যিনি সংগঠক হিসাবে কাজ করে। একজনের জমি, আরেকজনের শ্রম, অন্যজনের টাকা, সমল্লিত ভাবে কাজে লাগিয়ে সম্ভাবনাময় নতুনত্ব খুঁজে বের করে।

সংস্কারক হিসাবে উদ্যোক্তা

জোসেফ আলিওস শম্পম্পেট, অস্ট্রিয়ান রাজনৈতিক ও অর্থনীতিবিদ যাকে বিংশ শতাব্দীর প্রথমার্ধের অন্যতম সর্বশ্রেষ্ঠ অর্থনীতিবিদ বলা হয়। তার মতে উদ্যোক্তা ঝুঁকি গ্রহন ও সংগঠক হিসাবে কাজ করার পাশাপাশি সংস্কারক হিসাবেও কাজ করতে হবে।

তার মতে একজন উদ্যোক্তা সংস্কারক হিসাবে যেসব কাজ করবে-

  • বাজারে নতুন কোন পণ্যে প্রয়োজনীয়তা খুঁজে বের করা।
  • নতুন সম্ভাবনা বাজার খুঁজে বের করা।
  • সম্পূর্ণ নতুন পণ্য উদ্ভাবন করা যা আগে বাজারে ছিল না।
  • কাঁচামালের নতুন উৎস খুঁজে বের করা।